শ্রবণ ও বাক প্রতিবন্ধীর জিপিএ ৪.৪৪ অর্জন

nihon“যদি লক্ষ্য থাকে অটুট বিশ্বাস হৃদয়ে, হবেই হবে দেখা, দেখা হবে বিজয়ে”। এমনি এক বিজয়ের পথ-যাত্রী মুন্সিগঞ্জের রায়হান আলম নিহন। লোহজং উপজেলার দক্ষিণ মেদিনীমন্ডল গ্রামের আবুল হাসান ও রেহেনা হাসান রহিমার প্রথম সন্তান রায়হান আলম নিহন (১৭)।

জন্মগতভাবে বাক ও শ্রবন প্রতিবন্ধী নিহনের লাখ ও বিশ্বাসের একাগ্রতার বলে প্রতিবন্ধিত্ব রুখতে পারেনি, শারীরিক অক্ষমতা তাকে দমাতে পারেনি। সকল অক্ষমতা পেছনে ফেলে ছুঁয়েছে সাফল্যের সূর্য।

নিহন চলতি বছরের এসএসসি পরীক্ষায় হিসাব বিজ্ঞান বিভাগ থেকে জিপিএ ৪.৪৪ (এ গ্রেড) পেয়ে সাফল্যের সঙ্গে উত্তীর্ণ হয়। সে মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার মেদিনীমন্ডল আনোয়ার চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী।

ছোট বেলা থেকেই নিহনের পড়ালেখার প্রতি ঝোঁক বেশি ছিলো এমনটাই বললেন নিহনের মা রেহেনা হাসান রহিমা। তিনি বলেন, ছেলেকে নিয়ে খুবই দুশ্চিন্তায় ছিলাম। পরে জানতে পারলাম ঢাকার ধানমন্ডিতে ‘হাই কেয়ার স্কুল’ নামে বধিরদের একটা স্কুল আছে’।
nihon
নিহনের মা বলেন, ‘খোঁজ খবর নিয়ে সেখানে নিহনকে শিশু শ্রেণিতে ভর্তি করাই। ওই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকেই আমার ছেলে অক্ষরজ্ঞান লাভ করে এবং ধীরে ধীরে লিখতে ও পড়তে শেখে। ওই বধিরদের স্কুল থেকে প্রাথমিক শিক্ষা শেষে নিহনকে লৌহজং উপজেলার মেদিনীমণ্ডল আনোয়ার চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তি করাই। এই স্কুল থেকে এবছর এসএসসি পাশ করে’।

তিনি আরো জানান, ‘অদম্য মনোবল আর লক্ষ্য অর্জনে দৃঢ় প্রতিজ্ঞা থাকলে কোনো বাঁধাই কাউকে আটকে রাখতে পারে না। নিহনকে নিয়ে আমাদের যে সংগ্রাম তাতে আমরা বিজয়ী হয়েছি। আমরা আনন্দিত’।

মা রেহেনা হাসান জানান, ‘হাই কেয়ার স্কুলের প্রধান শিক্ষক আবদুস সালাম, প্রাক্তন সহকারী প্রধান শিক্ষক হেমায়েতুন নেসা পাপড়ি, সহকারী প্রধান শিক্ষক রিপাত আনাম শিপ্রার কাছে আমরা কৃতজ্ঞ। তারা অত্যন্ত যত্ন সহকারে আমাদের ছেলেকে লেখাপড়া শিখিয়েছেন। তাদের ঋণ আমরা কোনো দিন শোধ করতে পারব না’।

নিজের সাফল্যে খুবই খুশি নিহন। ভবিষ্যতেও পড়াশোনা করে ‘মানুষ’ হয়ে দেশের জন্য ও তার মতো হাজারো প্রতিবন্ধিদের জন্য কাজ করার আকাঙ্খা ব্যক্ত করে সে।

শীর্ষ নিউজ

Leave a Reply