‘মধুর ক্যান্টিন হবে আদর্শ রাজনীতির তীর্থস্থান’

maduDaকমিউনিস্ট পার্টির সভাপতি ও ডাকসুর সাবেক ভিপি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেছেন, সিট বাণ্যিজ্যের রাজনীতি, চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ড মধুর ক্যান্টিনে নিষিদ্ধ করা হোক। মধুর ক্যান্টিন হবে আদর্শরাজনীতির তীর্থস্থান। যেমনটি ছিল মধুদার বেঁচে থাকাকালীন সময়ে।

শনিবার দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনের সামনে শহীদ মধুদার ৪৩তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে আয়োজিত অনুষ্ঠানে মধুদার স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

‘মধুদার ৪৩তম মৃত্যুবার্ষিকী আয়োজন পরিষদ’ এই স্মরণসভার আয়োজন করে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর অধ্যাপক ড. এম আমজাদ আলীর পরিচালনায় ও ভিসি অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিকের সভাপতিত্বে স্মরণসভায় ডাকসুর সাবেক ভিপি ও বেসামরিক বিমান ও পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন এমপি, বাংলাদেশ সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক শিল্পমন্ত্রী কমরেড দিলীপ কুমার বড়ুয়া, ডাকসুর সাবেক ভিপি মাহফুজা খানম, সাবেক ভিপি আকতারুজ্জামান, সাবেক জিএস ড. নুশফাক হোসেন, ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক বাহলুল মজনুন চুন্নুসহ বর্তমান বিভিন্ন ছাত্র সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

মুজাহিদুল ইসলাম বলেন, দেশের রাজনীতিতে আজ পঁচন ধরেছে। সবাই বলে দেশের প্রাকৃতিক সম্পদকে বাঁচাও কিন্তু আমি বলি আগে দেশের রাজনীতিকে বাঁচাও।

তিনি বর্তমান ছাত্ররাজনীতির সমালোচনা করে বলেন, দেশের রাজনীতি যদি রুগ্ন হয়ে পড়ে তাহলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এর বাইরে থাকে না। সেখানেও রুগ্ন রাজনীতির চর্চা হয়। ‘আমাদের সবার স্লোগান হতে হবে ক্লিন দ্যা ক্যাম্পাস, চেঞ্জ দ্যা ক্যাম্পাস অ্যান্ড সেভ দ্যা ক্যাম্পাস’।

তিনি ডাকসু নির্বাচনের আহ্বান জানিয়ে বলেন, যদি ডাকসু নির্বাচনের সুযোগ করে দেওয়া হয় তাহলে দেশে এই অপরাজনীতির চর্চা থাকবে না। পাশাপাশি উগ্রবাদী মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী সংগঠনগুলোর বিরুদ্ধেও আন্দোলন করা সহজ হবে।

জামায়াত-শিবির সম্পর্কে তিনি বলেন, ১৯৭১ সালে মানবতাবিরোধী অপরাধের সাথে সম্পৃক্ততা থাকা জামায়াত-শিবিরের রাজনীতি শুধু নিষিদ্ধ করলেই হবে না দেশের ১৬কোটি মানুষের মন থেকে জামায়াত-শিবিরের চেতনা দূর করতে হবে।

ডাকসুর সাবেক ভিপি মাহফুজা খানম বলেন, সন্ত্রাসবাজি ও ছাত্র রাজনীতি এই দুইটা কখনো এক সাথে চলতে পারে না। কেউ সন্ত্রাসবাজি, চাঁদাবাজি ও টেন্ডারবাজি করবে আবার ছাত্র রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত হবে তা কখনো হতে পারে না।

রাশেদ খান মেনন এমপি বলেন, ছাত্র আন্দোলনে মধুদা ছিল ছাত্র ও আন্দোলনের একে অপরের পরিপূরক। দেশের গণতান্ত্রিক আন্দোলনে মধুদার অবদান ছিল অপরিসীম। মধুদা এখনো এই তরুণ নেতানেত্রীর মাঝে বেঁচে আছেন এবং ভবিষ্যতেও থাকবেন।

সভাপতির বক্তব্যে ঢাবি ভিসি অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক মধুদার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বলেন, ১৯৭১সালে যে কজন লোক দেশের স্বার্থে কাজ করে তাদের জীবন উৎসর্গ করে গেছেন তাদের শহীদ মধুসুদন দে অন্যতম। তিনি তার কাজের মাধ্যমেই এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারী ও ছাত্র নেতাদের মাঝে আলোচিত হয়ে থাকবেন।
এছাড়া অনুষ্ঠানে মধুদার স্মৃতিচারণ করেন তার পুত্র অরুন কুমার দে। স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে তিনি বলেন, আমার বাবা একটা সম্পদ গড়ে গেছেন। সেটা হলো ভালোবাসার সম্পদ। আর আমি সেই সম্পদটাই আপনাদের কাছে চাই।

এর আগে বেলা ১১টায় মধুদার প্রতিকীতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে স্মরণসভা শুরু হয়। প্রতিকীতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন ঢাবি ভিসি অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক, ডাকসুর সাবেক ও বর্তমান ছাত্র সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

এরপর জাতীয় সংগীত পরিবেশন করা হয় এবং মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের প্রতি স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

অর্থসূচক

Leave a Reply