খালেদা জিয়ার আগমনে শ্রীনগর বিএনপিতে নেই উৎসবের আমেজ

bnpআরিফ হোসেন: বুধবার দিন মুন্সীগঞ্জে বিএনপির চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার আগমন উপলক্ষ্যে শ্রীনগর উপজেলা বিএনপিতে নেই কোন উৎসবের আমেজ। তার আগমনকে সামনে রেখে গত সোমবার বিকালে উপজেলা বিএনপির পক্ষ থেকে শ্রীনগর সদর থেকে ৫ কিলোমিটার দূরে গিয়ে নামকাওয়াস্তে একটি প্রস্তুতি সভা ছাড়া তেমন কোন কর্মকান্ড নেই তাদের। দ্বন্দ্বের কারনে উপজেলা বিএনপির সভাপতি আলহাজ্ব মমীন আলীর গ্রামের বাড়ি কোলাপাড়ায় অনুষ্ঠিত ঐ প্রস্তুতি সভায় বিএনপির অপর একটি অংশ যোগ না দিয়ে একই সময়ে ছনবাড়ী এলাকায় আলাদা প্রস্তুতি সভা করে। তাদের বাইরে আরেকটি অংশ দুই সভার কোনটিতে যোগ নাদিয়ে শ্রীনগর পোষ্ট অফিসের সামনে মিছিল বের করে।

উপজেলা বিএনপির এরকম গ্র“পিংয়ের কারেনে ১৪ টি ইউনিয়নের নেতা কর্মীদের অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করেন। খালেদা জিয়ার মুন্সীগঞ্জ আসার বিষয়টি অনেক আগে চুড়ান্ত হলেও তৃণমূল নেতাদের শেষ মূহুর্তে নির্দেশনা দেওয়ায় তাদের মধ্যে নেই উৎসবের আমেজ।

গতবছর ৫ নভেম্বর হরতালের সময় পুলিশের সাথে সংঘর্ষের পর থেকেই শ্রীনগর উপজেলা বিএনপি অনেকটা নিষ্ক্রিয় হয়ে পরে। সভা-সমাবেশ হয়ে পরেছে ঘর মুখো। দলীয় সভা সমাবেশ শ্রীনগর সদরে না করে তা কোলাপাড়া গ্রামে মমীন আলীর বাড়িতেই হচ্ছে। গত ৬ মাসে কেন্দ্র ঘোষিত একটি প্রোগ্রামও উপজেলা পর্যায়ে পালন করতে পারেনি তারা। উপজেলা নির্বাচনকে ঘিরে তিন ভাগে বিভক্ত গ্র“প গুলোতে ঘটেছে নেতা বদলের ঘটনা।

উপজেলা বিএনপির সভাপতি আলহাজ্ব মমীন আলী ও সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ-সভাপতি শাহ মোয়াজ্জেম হোসেনের গ্র“প পরিবর্তন করে যোগ দেন সেচ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক মীর সরাফত আলী সপুর গ্র“পে।

অপরদিকে জেলা বিএনপির যুগ্ন সম্পাদক সেলিম হোসেন খান, উপজেলা বিএনপির যুগ্ন সম্পাদক আবুল কালাম কানন, কেন্দ্রীয় যুবদল নেতা তাজুল ইসলাম সহ আরো কয়েকজন সপুর গ্র“প ছেড়ে মোয়াজ্জেম হোসেনের গ্র“পে যোগ দেন। তাদের বাইরে বিএনপির অপর একটি গ্র“প মেতে উঠেছে বি চৌধুরীর বন্ধনায়। উপজেলা ছাত্রদলের নেতারাও বিভক্ত হয়ে গ্র“প গুলোতে যুক্ত হওয়ায় তাদের দলীয় কর্মকান্ড ঝিমিয়ে পড়েছে। উপজেলা বিএনপির এমন কাঁদা ছোড়াছুড়ির ঘটনায় তৃণমূল বিএনপির নেতা কর্মীরা ক্ষুদ্ধ-হতাশ। বিগত সময়ে শ্রীনগর বিএনপির এমন দূরাবস্থা ছিলনা বলে মত দেন দলটির অনেক স্থানীয় প্রবীন নেতা।

Leave a Reply