বামন গাছে বড় লিচু

lichuপাঁচ মাস বয়সী সাড়ে তিন ফুট উচ্চতার গাছে লিচু ধরেছে। মুন্সীগঞ্জ শহরে জেলা জজের বাসভবনের আঙিনায় ওই লিচু গাছ দেখে অনেকে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন। মুন্সীগঞ্জের সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ মো. আতোয়ার রহমান জানান, গত জানুয়ারি মাসে তিনি এই গাছ রোপণ করেন।

শীত মৌসুমে রোপণ করার পর থেকে নিয়মিত এর যত্ন নেওয়া হয়। চলতি মাসের শুরুতে লাল রঙের বড় আকৃতির লিচু ধরে গাছটিতে। লিচুর ওজন এত বেশি যে ছোট্ট গাছটি হেলে যাচ্ছিল। পরে কাঠি দিয়ে এটিকে দাঁড় করিয়ে রাখা হয়। তিনি বলেন, ‘ছোট্ট গাছে এত বড় লিচু হতে পারে এমন ধারণা আমার ছিল না।’ নিজ হাতে রোপণ করা গাছে আকর্ষণীয় লিচু পেয়ে তিনি বেজায় খুশি।

তবে কৃষি বিশেষজ্ঞ আব্দুল আজিজ বলেন, ‘প্রথম দেখাতে অবাক লাগলেও, এটাই সত্য। চায়না-৩ জাতের এই লিচু গাছ রোপণ করে সঠিক যত্ন নিলে শুধু তাক লাগিয়ে দেওয়া নয়, অর্থনৈতিকভাবে সাবলম্বী হওয়া সম্ভব।’ তিনি আরো বলেন, ‘বাজারের লিচুতে ফরমালিনের অপব্যবহার হচ্ছে। এ লিচু না কিনে বাড়ির আঙিনায় বা উঁচু জমিতে লিচুর চাষ করা যেতে পারে।’

lichu
মুন্সীগঞ্জ শহরে জেলা জজের বাসভবনের আঙিনায় বামন গাছে ধরেছে লিচু

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. মো. আব্দুর রহিম বলেন, চায়না-৩ জাতের লিচু দেশের যেকোনো স্থানে রোপণ করে ভালো ফল পাওয়া সম্ভব। এই লিচু দেখতে যেমন আকর্ষণীয়। তেমনি সুস্বাদু। এই লিচুর প্রতিটি চারা ১০০ টাকায় পাওয়া যায়। ময়মনসিংহের বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসের বাউজার্ম প্লাজম সেন্টার থেকে যে কেউ এ চারা সংগ্রহ করতে পারে। এই সংগ্রহশালায় ২৭ জাতের লিচু রয়েছে।

এ উদ্যোগের প্রশংসা করে মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. সাইফুল হাসান বাদল বলেন, ‘এভাবে বাড়ির আঙিনায় ফলের আবাদ করে পরিবারের চাহিদা মেটানো সম্ভব।’

কালের কন্ঠ

Leave a Reply