কৃষকরা ধান ও খড় শুকানোর কাজে ব্যস্ত

riceবৈরী আবহাওয়া, শিলাবৃষ্টি ও ঝড়ে বোরো ক্ষেতের শীষ মাটিতে পড়ে যায়। শ্রীনগর, সিরাজদিখানের কাঁচা পাকা সড়কগুলো কৃষাণ-কৃষাণীর দখলে ধান ও খড় শুকানোর কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে। বৈরী আবহাওয়ার কারণে রোদ হচ্ছে না। প্রতিদিনই বৃষ্টি হচ্ছে। একটু রোদ হলেই কৃষক-কৃষাণীরা ধান ও খড় শুকানোর জন্য কাঁচা পাকা রাস্তা গুলো দখল করে নিচ্ছে।

কৃষকদের উৎপাদিত বোরো ধান কাটা মাড়াই শেষের দিকে। কৃষকরা জমিতে ধান কেটে মাড়াই করে ধান ঘরের কোনায় পালা দিয়ে রাখছে। রোদ না হওয়ার কারণে ধানে চারা গজাতে শুরু করেছে।

এতে করে পথচারীসহ রিক্সা, ভ্যান, মোটরসাইকেল, অটোরিক্সা চলাচলে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এতে দুর্ঘটনাও হচ্ছে। সিরাজদিখান উপজেলার বড় শিকারপুর, রাজানগর, মাঝচর, ভাড়ালিয়া, টেগোরিয়া, মির্যাকান্দা বিভিন্ন কাঁচা পাকা সড়কগুলো ঘুরে দেখা যায়, ধান শুকানোরনই চিত্র।

কৃষি শ্রমিকের অভাবে কৃষকরা ধান কাটতে না পারায় পানিতে পড়ে থাকা ধান চারায় পরিণত হয়েছে। অনেক কৃষকের ধান জমিতেই পঁচে গেছে। অতিবৃষ্টি হওয়ার কারণে কৃষকরা ধানের খড় শুকাতে পারছে না পঁচে যাচ্ছে শতাধিক একর জমির খড়।

কৃষাণী আলো আক্তার জানান, বাড়িতে জায়গা না থাকায় পাকা রাস্তায় ধান মাড়াই ও শুকানোর কাজ করছি।

অর্থসূচক

Leave a Reply