ময়নাতদন্তে কলেজ ছাত্রী শান্তার আত্মহত্যা!

santaফলোআপ
মুন্সীগঞ্জ শহরের রুহিতপুর গ্রামের আসাদউল্লাহ মেয়ে কলেজ ছাত্রী আফরোজা আক্তার শান্তা (২১) গলায় রশি পেচিয়ে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। উদ্ধারের পর মঙ্গলবার দুপুরে শান্তার লাশ ময়নাতদন্ত করা হয় মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে। মুন্সীগঞ্জ সিভিল সার্জন ডা. শরীফুল আলম, মুন্সীগঞ্জ বিএমএ’র সভাপতি আক্তার হোসেন বাপ্পী, মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের আরএমও ডা. কামরুল করীমসহ ৬ সদস্য’র একটি মেডিকেল টিম এ ময়নাতদন্ত সম্পন্ন করেন। আর ময়নাদন্তকারী এক ডাক্তার নাম না প্রকাশ করার শর্তে এ তথ্য জানিয়েছেন। তবে, চাঞ্চল্যকর কোন ঘটনা এবং প্রশাসনের কোন কর্তাব্যক্তি জড়িত থাকার অভিযোগ এলেই মুন্সীগঞ্জ সিভিল সার্জন সরাসরি ময়নাতদন্ত করতে আসেন।

এদিকে, অ্যাম্বুলেন্স থেকে নিখোঁজ কলেজ ছাত্রীর লাশ উদ্ধারের ঘটনায় মুন্সীগঞ্জ অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পেশকার ও তার ছেলেসহ ৩ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করা হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুর ২টার দিকে কলেজ ছাত্রীর পিতা আসাদউল্লাহ বাদী হয়ে ৩জনকে এজাহারনামীয় আসামি করে অপহরণ ও হত্যা মামলা দায়ের করেন। নিহত কলেজ কলেজ ছাত্রী আফরোজা আক্তার শান্তা মুন্সীগঞ্জ সরকারি হরগঙ্গা কলেজের অর্নাস তৃতীয় বর্ষের একাউন্টের ছাত্রী ছিল। শহরের রুহিতপুর গ্রামের আসাদউল্লাহ মেয়ে শান্তা আক্তার। শান্তা আক্তার মুন্সীগঞ্জ শহরের কাটাখালী বাজার এলাকার স্বদেশ কিন্ডারগার্টেনেও শিক্ষকতা করতেন।

নিহত কলেজ ছাত্রীর পিতা আসাদউল্লাহ জানান, মুন্সীগঞ্জ অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পেশকার আব্দুস সাত্তারের ছেলে শিক্ষানবিশ আইনজীবী নাজমুল হোসেন তার মেয়ে আফরোজা আক্তার শান্তাকে (২১)-কে উত্যক্ত করে আসছিল। গত ৭ই জুন সকাল ১০টার দিকে শহরের খালইস্ট গ্রামের কোচিং করতে গেলে শহরের মাঠপাড়া এলাকার পেশকারের ছেলে নাজমুল হোসেন তাঁর মেয়েকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। এরপর আত্ম সম্মানের ভয়ে পেশকার আব্দুস সাত্তারকে তার মেয়েকে এনে দেয়ার জন্য চাপ দেয়া হয়। এমনকি উভয়পক্ষের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে বিয়ের প্রস্তাবও দেয়া হয়। যদিও তার মেয়ে শান্তার আগামী ২০ শে জুন অন্যত্র বিয়ের দিনক্ষণ ঠিক করা হয়েছিল। এতে পেশকার আব্দুস সাত্তার রাজি না হলে এ ঘটনায় মামলার করার হুমকি দেয়া হলে পেশকার তাদের উল্টো হুমকি দিয়ে বলে তাহলেতা তোর মেয়েকে আর জীবিত পাবি না। এ ঘটনায় সোমবার মুন্সীগঞ্জ থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়। এরই মধ্যে ঢাকার সাভার এলাকায় সোমবার তার মেয়ে শান্তাকে হত্যা করে পেশকার সাত্তার ও তার ছেলে নাজমুল হোসেন গং। সোমবার বিকেল পৌনে ৩টার দিকে সাভারের এনাম হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার তার মেয়ে মৃত ঘোষণা করে।

পরবর্তীতে সাভার এনাম হাসপাতালের একটি অ্যাম্বুলেন্সে করে তার মেয়ের মৃতদেহ মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে পাঠায়। পথিমধ্যে ঘাতকরা নেমে অ্যাম্বুলেন্সের চালক জিয়াউল ইসলাম (৩০) ও নাজমুলের খালু আলী আহমদ (৩২)-কে দিয়ে লাশ পাঠিয়ে দেয়। খবর পেয়ে মুন্সীগঞ্জ সদর থানার পুলিশ সোমবার সন্ধ্যা ৭টার অ্যাম্বুলেন্স থেকে নিখোঁজ কলেজ ছাত্রীর লাশ উদ্ধার করে এবং অ্যাম্বুলেন্স চালক ও অপর ঘাতক আলী আহমদ আটক করে পুলিশ। পরে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে চালককে পুলিশ ছেড়ে দেয়।

তিনি আরো জানান, পেশকার ও তার ছেলে নামমুল তার মেয়েকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন তাদের পক্ষে নেয়ার চেষ্টা চলছে।

সদর থানার ওসি শহীদুল ইসলাম জানান, ময়নাতদন্তের রির্পোট হাতে পাওয়ার পর হত্যা নাকি আত্মহত্যা করেছে জানা যাবে।

মুন্সীগঞ্জ বার্তা

Leave a Reply