লেনিনের বক্তব্যের উত্তর দিলেন সেলিম

sfkLeninঅধ্যাপক সরদার ফজলুল করিমের মৃত্যুতে শনিবার সন্ধ্যায় বাংলা একাডেমি মিলনায়তনে অধ্যাপক সরদার ফজলুল করিম নাগরিক শোকসভা কমিটি ও বাংলা একাডেমি আয়োজিত এক নাগরিক শোকসভায় আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য নুহ আলম লেনিনের বক্তব্যের পাল্টা বক্তব্য দিয়েছেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম।

নুহ আলম লেনিন বলেন, দলীয় শৃংখলা রক্ষা করতে গিয়ে সরদার ফজলুল করিম আমাদেরকে বঞ্চিত করেছেন। তিনি যদি সে সময় বৃত্তি নিয়ে উচ্চশিক্ষা অর্জনের জন্য বিলাতে যেতেন, তাহলে হয়ত তার মত জ্ঞানসাধক সাধারণ মানুষের মুক্তির জন্য, বিশ্ব সভ্যতা কিংবা সমাজতন্ত্রের সংকট থেকে উত্তরণের জন্য আরও গঠনমূনক তত্ত্ব দিতে পারতেন। মানবমুক্তির পথ বাতলে দিতে পারতেন।

তিনি আরও বলেন, মধ্য মেধার রাজনৈতিক দলগুলো সরদার ফজলুল করিমের মতো গড়পড়তার ঊর্ধ্বের মেধাকে প্রস্ফুটিত হতে দেয়নি। দৈনন্দিন রাজনীতি করার কোনো প্রয়োজন তার ছিল না। তার মতো পণ্ডিত জ্ঞানচর্চার মাধ্যমে জাতিকে আরও অনেক কিছু দিতে পারতেন।
sfkLenin
লেনিনের বক্তব্যের উত্তরে মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেন, সরদার ফজলুল করিমের মৃত্যু উপলক্ষ্যে আয়োজিত এই নাগরিক শোক সভায় কমিউনিস্ট পার্টির বিষেদগার থেকে যদি বক্তারা বিরত থাকত সেটাই ভাল হতো। আমি সরদার ফজলুল করিমের মুখ থেকে শুনেছি। তিনি বিদেশ যাওয়ার সব প্রস্তুত সম্পন্ন করে কলকাতায় কমরেড মোজাফফর আহমেদের সাথে দেখা করতে যান। কমরেড মোজাফফর তাকে বলেন আপনে বিদেশে গিয়ে পিএইডি ডিগ্রি নিয়ে আসেন আর আমরা এখানে ভেরেণ্ডা ভাজি। বিচক্ষণ সরদার ফজলুল করিম তখন কমরেডের একথার অর্থ জেনে বুঝেই বিদেশ না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন।

তিনি আরও বলেন, যারা পাণ্ডিত্য সাধনা আর বিপ্লবী প্রয়াসের মধ্যে বিভাজন সৃষ্টি করে তারা যে কত বড় আহম্মক তা আমার থেকে সরদার ফজলুল করিম উপস্থিত থাকলে তিনি ভালোভাবে বুঝাতে পারতেন। তার মুখ থেকেই আপনারা শুনতেন কমিউনিস্ট পার্টি তার জ্ঞান সাধনাকে সীমিত করেছে না প্রসারিত করেছে। এ জন্য আজ তাকে হারানোর শোকসভায় তার অভাবটাই আমি বেশি উপলব্দি করছি। তার মাঝে জ্ঞান সাধনার পাশাপাশি বিপ্লবী প্রয়াস একাকার হয়ে উঠেছিল। প্রকৃত রাজনীতিবিদদের এটাই করা উচিত।

এমেরিটাস অধ্যাপক আনিসুজ্জামানের সভাপতিত্বে শোকসভায় আলোচক হিসেবে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান, জাতীয় অধ্যাপক সালাউদ্দিন আহমদ, অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম, অধ্যাপক মুনতাসির মামুন, বিমান ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, ঐক্য ন্যাপের সভাপতি পঙ্কজ ভট্টাচার্য, সরদার ফজলুল করিমের মেয়ে আফসানা করিম সাথী প্রমুখ।

অন্যান্য বক্তারা ফজলুল করিমের রাজনৈতিক জীবন, কর্মজীবন, চিন্তা-চেতনা, দর্শন ও মুল্যবোধ নিয়ে আলোচনা করেন।

দ্য রিপোর্ট

Leave a Reply