ইফতার ও সেহেরীতে গৃহীনিদের দুর্ভোগ চরমে : তীব্র গ্যাস সংঙ্কট

gas6মুন্সীগঞ্জে তীব্র গ্যাস সঙ্কট দেখা দিয়েছে। রামজান মাস শুরু হতে না হতে এ গ্যাস সংকট দেখা দেওয়ায় রান্না-বান্না নিয়ে চরম বিপাকে পড়েছেন গৃহিণীরা। সময় মত রোজাদারের জন্য ইফতারি বানাতে হিমসিম খেতে হচ্ছে বাড়ির গৃহবধুদের। গ্যাস সঙ্কটে পড়ে তারা এখন গ্যাসের চুলা ছেড়ে রান্না করছেন খড়ি বা কেরোসিনের চুলায়। আবার অনেকেই মধ্য রাতে ঘুমকে হারাম করে রাত জেগে রান্না করে পরবর্তী দিনের জন্য রেখে দিচ্ছেন। ফলে গ্যাস গ্রাহক ও সাধারণ মানুষের মধ্যে তীব্র ক্ষোভ বিরাজ করছে।

গত কয়েক বছর ধরেই রমজানের শুরুতে এভাবে গ্যাস সঙ্কট দেখা দিলে শহরসহ আশপাশের হাজার পরিবার দুর্ভোগে পড়লেও কোনো ভ্রুক্ষেপ নেই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের।

গ্যাসের দাবিতে মুন্সীগঞ্জবাসী একাধিকবার মানববন্ধনসহ বিভিন্ন প্রতিবাদ কর্মসূচিসহ আন্দোলনে রাজপথে নামলেও অবস্থার কোনো উন্নতি হয়নি। এখন মুন্সীগঞ্জবাসীর কাছে বড় সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে এই গ্যাস সঙ্কট।
শহরবাসীর সাথে আলাপ করে জানা যায়, প্রতিদিন রাত ১২টা থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত মোটামুটি গ্যাস পাওয়া গেলেও দিনের বেলায় গ্যাসের অভাবে চুলা জ্বালাতে পারছেনা গৃহবধুরা। ফলে রাতের ঘুম হারাম করে তারা দিনের রান্না আগের রাতে সেরে রাখছেন। এছাড়া রমজান মাসে রোজা রেখে প্রতিদিন বিকেলে ইফতার, সেহরী ও রাতের খাবার তৈরি করতে গিয়ে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে তাদের।
gas6
শহরের মানিকপুরের বাসিন্দা গৃহিনী মাজেদা বেগম (২৫) জানান, শুক্রবার বিকেলে ইফতার তৈরী করতে গিয়ে চুলোয় গ্যাস সংকটে পড়েন তিনি। ফলে ইফতার তৈরী করতে না পেরে অবশেষে বাজার থেকে ইফতার কিনে এনেছেন পরিবারের সদস্যদের জন্য।

শহরের খাল ইষ্টের গৃহিনী সেতু ইসলাম (৩৫) জানান, সন্ধ্যা ৭টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত গ্যাসের অভাবে সেহরীর খাবার রান্না করতে চুলা জ্বালানো সম্ভব হয়নি। পরে কিছুটা গ্যাস পাওয়া গেলে নিভু নিভু আকারে চুলা জ্বালিয়ে রান্না করতে হয়। সারা দিন রোজা থেকে এরকমভাবে রান্না করা বড্ড কষ্ঠের ব্যাপার হয়ে দাড়িয়েছে।

ইসলামপুরের এনজিও কর্মী মরিয়ম আক্তার বলেন, মুন্সীগঞ্জের গ্যাস সংকট দীর্ঘ দিনের হলেও এখন তা আরো ব্যাপক আকারে দেখা দিয়েছে। অফিসের কাজ সেরে বাসায় এসে গ্যাস সংঙ্কটের কারণে রান্না করতে না পেরে বাজার থেকে ইফতার কিনে আনতে হচ্ছে। তার মতো শহরে প্রতিটি এলাকার প্রতিটি পরিবারের গৃহিণীদের একই রকম দুর্ভোগের শিকার হতে হচ্ছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তিতাস গ্যাসের এক ঠিকাদার জানান, শিল্প কারখানায় গ্যাস সরবরাহ বেশী দেওয়ায় বাসা বাড়িতে গ্যাস কম পাওয়া যাচ্ছে। দিনের বেলায় কয়েকটি শিল্প কারখানায় গ্যাস সংযোগ বন্ধ করে দিলে এ সঙ্কট থাকতো না বলে তিনি দাবী করেন।

তবে এজনপদের মানুষের দাবী আসন্ন ঈদকে সামনে রেখে নারায়ণগঞ্জের গার্মেন্টসসহ বিভিন্ন শিল্প কারখানায় চাহিদা বৃদ্ধি পাওয়ায় মুন্সীগঞ্জে গ্যাস সঙ্কট আরও প্রকট আকার ধারণ করেছে।

স্থানীয় তিতাস গ্যাস অফিস সূত্র জানায়, মুন্সীগঞ্জে গ্যাসের চাহিদা ৫ দশমিক ২৫ এমএমসিএম (মিলিয়ন ঘন মিটার)। কিন্তু পাওয়া যাচ্ছে কত মিলিয়ন ঘন মিটার তা জানা নেই কর্তৃপক্ষের। মুন্সীগঞ্জে বাসা-বাড়িতে আবাসিক প্রায় সাড়ে ৯ হাজার ও ৪৫টি শিল্প ও বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানে গ্যাসের সংযোগ রয়েছে।

এ ব্যপারে তিতাস গ্যাসের মুন্সীগঞ্জ আফিস সূত্রে জানা গেছে -একই লাইনের মাধ্যমে নারায়ণগঞ্জ ও মুন্সীগঞ্জে গ্যাস সরবরাহ মুন্সীগঞ্জে গ্যাস সঙ্কটের অন্যতম কারণ। নারায়ণগঞ্জের চাহিদা মেটানোর পর পাইপ লাইনের গ্যাস না থাকায় মুন্সীগঞ্জের গ্রাহকরা গ্যাস পাচ্ছেন না ।

সম্প্রতি জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের এক সভায় মুন্সীগঞ্জ-৩ আসনের এমপি ও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপ দফতর সম্পাদক মৃনাল কান্তি দাস গ্যাস সঙ্কটের কারণে কানসাটের মতো মুন্সীগঞ্জের মানুষও ফুসেঁ উঠতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করে পেট্রো বাংলার চেয়ারম্যানকে বিষয়টি অবহি করার পরও মুন্সীগঞ্জে গ্যাগ সংকট সমাধানের কোন লক্ষন দেখা যায়নি।

রজতরেখা

Leave a Reply