ভেসে যাওয়া শত শত পরিবার পেয়েছে শান্তি ও স্বস্তির আবাসন

পদ্মার রুদ্রমূর্তি আর ঢেউয়ের তোড়ে
কুল ভাঙ্গা-গড়ার মাঝে বেঁচে থাকার সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছিলেন ষাটোর্ধ্ব সূর্যভান বিবি। পদ্মার জলে গেছে তার কত সংসার! সে হিসেবের যেন শেষ নেই। ভাঙ্গনের হিসাব কষা জীবনের শেষ পর্যায়ে এসে সূর্যভান বিবি থাকতেন পদ্মাপাড়েই এক কুঁড়েঘরে। পদ্মার রুদ্রমূর্তি আর ঢেউয়ের তোড়ে ভেসে যাওয়ার আতঙ্ক থাকতো রাতদিন। এই বুঝি পদ্মা নিয়ে গেলো ঘর!

কিন্তু সেদিন এখন অতীত। সূর্যভানের মুখে পান, ঠোঁটে হাসি। এখন আছেন টিনের চালে কাঠের ঘরে। চৌকাঠ দরজা, ভেতরে খাট-টেবিল সব আছে। মুন্সিগঞ্জের পদ্মাপাড়ের মাওয়াঘাটের অদূরে কুমারভোগ পুনর্বাসন প্রকল্পের টিনের চালার এই ঘরের দরজায় ভিজতে ভিজতে কড়া নাড়েন এ প্রতিনিধি। দরজা খুলে ভেতরে আশ্রয় দেন সূর্যভান। বৃষ্টির ঝম ঝম শব্দ। তার মধ্যেই নিজের ভাঙ্গা গড়ার জীবনের গল্প শোনালেন সূর্যভান। বললেন, এই টিনের ঘরটিই এখন তার কাছে প্রাসাদ। এই প্রাসাদ গড়ে দিয়েছে ‘পদ্মাসেতু’! একসময় সূর্যভানের দুঃখ পদ্মা এখন আশির্বাদ। দেশের স্বপ্নের পদ্মাসেতু শুধু দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ১৯ জেলাবাসীর দুর্ভোগ ও দুরত্ব কমাতে যাচ্ছে তা নয়, তার আগে সূর্যভানের মত শত শত পরিবার পেয়েছে শান্তি ও স্বস্তির আবাসন। ভাঙ্গগড়ার ঘর ছেড়ে এখন তারা পেয়েছেন স্থায়ী আবাস। ঘরে আছে বিদুৎ আর বিশুদ্ধ পানি। কাছেই আছে স্কুল, মসজিদ ও স্বাস্থ্যকেন্দ্র। পাকা সড়ক ধরে ঘরে পৌঁছে যান সূর্যভানরা। সেই পাকা সড়ক ধরেই কাছেই গড়ে ওঠা বাজার থেকে আসে নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী।

ওদিকে পদ্মাসেতুর সংশ্লিষ্টতায় কাজেরও সুযোগও তৈরি হয়েছে। ফলে জীবন ও জীবিকা দুইয়েরই নিশ্চয়তা মিলেছে পদ্মা-পাড়ের মানুষগুলোর। সূর্যভানের পাশের ঘরের বাসিন্দা ও একসময় মাওয়াঘাটের দক্ষিণ মেদিনীমণ্ডলের মো. শাহজাহানের গল্পটাও একই রকম। দুই শতাংশ জায়গায় উপর যে ঘর ছিলো সেখানে বছরে দু’বার পদ্মার সর্বনাশা ঢেউ হানা দিতো। সেই ঘর ছেড়ে তিনিও এখন কামারভোগের এই প্লট পেয়েছেন। আর ক্ষতিপূরণ বাবদ আরও চার লাখ টাকা। তা দিয়েই প্লটে ঘর তুলেছেন। ঘাটে কাজ করতেন যে শাহজাহান এখন দোকান চালান সেই ঘাটে।

শাহজাহান বলেন, আমার মত কামারভোগে এরকম দু’শ পরিবার ক্ষতিপূরণ পেয়ে খুশি। পদ্মার সেতু নির্মাণে নদীপাড়ের বসতি উঠিয়ে দিয়ে স্থায়ী প্লট দেওয়া হয়েছে এরকম ৯শ’ পরিবারকে। পাঁচটি প্লটে পুনর্বাসিত হয়েছেন কয়েক হাজার মানুষ। একেকটি প্রকল্পে রয়েছে চার শতাধিক প্লট। প্রকল্পের মাওয়া ও জাজিরা অংশে পাঁচটি পুনর্বাসন এলাকা হলো যশোলদিয়া, কুমারভোগ, নাওডোবা, জসিম শেখ ও বাকরের কান্দি। পদ্মাসেতু প্রকল্পের উপ-সহকারি প্রকৌশলী (পুনর্বাসন) হুমায়ুন কবীর পুনর্বাসন প্রকল্প প্লট ঘুরিয়ে দেখান এ টিমকে। তিনি জানান, পদ্মাসেতু ও তার অ্যাপ্রোচ সড়ক নির্মাণে একহাজার ৭০ হেক্টর জমি অধিগ্রহণ করা হয়েছে।

দুই ধাপে এ জমি অধিগ্রহণের পর প্রায় তিনহাজার গৃহহীনকে আবাসন গড়ে দিতে সরকার পাঁচটি আবাসন পুনর্বাসন প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। হুমায়ূন কবীব জানান, প্রতিটি প্রকল্পে ‘গ্রিন এরিয়া’ সবুজায়ন কর্মসূচি রয়েছে। খালি থাকা স্থানসমূহ গাছগাছালিতে ভরিয়ে দেওয়া হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসন কাজের প্রধান দায়িত্ব পালন করছেন পদ্মাসেতু প্রকল্পের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. তোফাজ্জাল হোসেন। তিনি বলেন, ‘পদ্মা সেতুর নির্মাণের একটি ধাপ ছিলো ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসন। এই কাজ শতভাগ সম্পন্ন হয়েছে। পুনর্বাসন এলাকায় সব ধরনের অবকাঠামো নির্মাণ করা হয়েছে। প্রত্যেক প্রকল্পে একটি মসজিদ ও স্কুল নির্মাণ করা হয়েছে। তবে মসজিদে নামাজ-কালাম শুরু হলেও স্কুলে পাঠদান এখনও শুরু হয়নি। নিয়োগ হয়নি শিক্ষক-কর্মচারী।

মুন্সিগঞ্জেরকাগজ

Leave a Reply