রিটের কথা বলে আট লাখ টাকা চাঁদা আদায়

লৌহজংয়ের পদ্মায় দিয়ারা জরিপ বাতিল দাবি
মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার পদ্মার চরে জেগে ওঠা জমি দিয়ারা জরিপের মাধ্যমে সরকার খাসজমিতে পরিণত করেছে। ওই জরিপ বাতিল এবং জমির প্রকৃত মালিকদের কাছ থেকে খাজনা আদায়ের জন্য আন্দোলন চলছে। এরই মধ্যে একটি পক্ষ এ বিষয়ে প্রতিকার চেয়ে হাইকোর্টে রিটের কথা বলে আট লাখ টাকা চাঁদা উত্তোলন করেছে। এ চাঁদা দিয়েছে জমির মালিকরা। তবে কারা এই টাকা নিয়েছে তা জমির মালিকরা ভয়ে সুনির্দিষ্ট করে বলছেন না।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, একটি মহল খাজনা চালুর জন্য আদালতে রিট করার কথা বলে জমির মালিকদের কাছ থেকে চাঁদা তুলতে শুরু করেছে। মহলটি এ পর্যন্ত প্রায় আট লাখ টাকার ওপরে চাঁদা তুলেছে। চরের জমির কয়েকজন মালিক নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘একটি মহল মামলা করার কথা বলে লাখ লাখ টাকা চাঁদা হাতিয়ে নিচ্ছে। কিন্তু তারা জনগণের হয়ে কতটুকু কাজ করবে তা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।’

লৌহজং থানার ওসি তোফাজ্জেল হোসেন বলেন, ‘এ রকম চাঁদা তোলার খবর শুনে পুলিশ মাঠে নেমেছে। চাঁদাবাজদের সম্পর্কে জেনে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

ভূমিমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক আজ

এদিকে পদ্মায় জেগে ওঠা চরের জমির প্রকৃত মালিকদের কাছ থেকে খাজনা নেওয়ার ব্যাপারে আজ রবিবার দুপুর ২টায় ভূমি মন্ত্রণালয়ে বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফের সঙ্গে ওই বৈঠকে উপস্থিত থাকবেন মুন্সীগঞ্জ-২ (লৌহজং-টঙ্গীবাড়ি) আসনের সংসদ সদস্য অধ্যাপিকা সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি, লৌহজং উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. ওসমান গনি তালুকদার, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রশিদ সিকদার।

এ বিষয়ে সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি জানান, লৌহজংয়ের পদ্মার চরে মাত্র কয়েক বছরের মধ্যে জেগে ওঠা জমি দিয়ারা জরিপের মাধ্যমে সরকার খাসজমিতে পরিণত করেছে। এটা বাংলাদেশের ইতিহাসে এই প্রথম। ৩০ বছরের মধ্যে নদীতে জেগে ওঠা জমি খাজনা চালুর মাধ্যমে প্রকৃত মালিককে ফিরিয়ে দেওয়ার বিধান থাকলেও এখানে তার ব্যত্যয় ঘটেছে। ব্যক্তিমালিকানাধীন জমিকে খাসজমিতে রূপান্তর করা হয়েছে।

কালের কন্ঠ

Leave a Reply