শাপলা বেচে জীবিকা

saplaমো. মাসুদ খান: বর্ষায় মাঠঘাট যখন তলিয়ে যায়, তখন দরিদ্র কৃষক ও কৃষি শ্রমিকের হাতে কোনো কাজ থাকে না। পরিবারে লেগে থাকে অভাব-অনটন। এই সাময়িক অভাব ঘোচাতে মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার কৃষকরা শাপলা তুলে বিক্রি করে। এবার বর্ষা মৌসুমে এখানকার অন্তত ৩০০ পরিবার শাপলা বেচে জীবিকা নির্বাহ করছে।

কৃষকরা জানায়, এ পেশায় কোনো পুঁজির প্রয়োজন হয় না। তাই অনেকে এ পেশায় জীবিকা নির্বাহ করছে। শাপলা বেচাকেনাকে কেন্দ্র করে এখানে গড়ে উঠেছে কয়েকটি পাইকারি ক্রয়কেন্দ্র।

সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, বর্ষায় ডুবে যাওয়া সিরাজদিখানের বিস্তীর্ণ ইরি ধান, পাট ও আমন ধানের জমিতে আপনা-আপনি জন্ম নিয়েছে শাপলা। এলাকার ইছামতি খাল-বিলের পানিও সাদা শাপলায় ভরে আছে। এসব জমিতে তাকালে শাপলা ফুলের সৌন্দর্য মন কেড়ে নেয়।
sapla
কৃষকরা জানায়, প্রতিদিন ভোরে নৌকা নিয়ে ডুবে যাওয়া জমি ও বিলের মধ্যে ঘুরে ঘুরে শাপলা সংগ্রহ করতে হয়। দুপুর পর্যন্ত এই সংগ্রহকাজ চলে। সাধারণত আষাঢ় থেকে শুরু করে কার্তিক মাস পর্যন্ত শাপলা পাওয়া যায়।

নদী থেকে শাপলা সংগ্রহকারী মোশারফ হোসেন জানান, একেকজন ৪০ থেকে ৭০ মুঠা পর্যন্ত (৭০ থেকে ৮০ পিস শাপলায় এক মুঠা) শাপলা সংগ্রহ করতে পারে। পাইকাররা আবার এসব শাপলা কিনে একত্র করে। সিরাজদিখানের রসুনিয়া, ইমামগঞ্জ ও তালতলায় শাপলা বেচাকেনাকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছে পাইকারি ক্রয়কেন্দ্র। পাইকাররা এখানে বসে কৃষকের কাছ থেকে শাপলা সংগ্রহ করে পরে রাতে ঢাকার যাত্রাবাড়ী পাইকারি বাজারে বিক্রির জন্য নিয়ে যায়।

ওই কৃষক আরো জানান, একসময় বর্ষায় অভাবী লোকজন জমি থেকে শাপলা কুড়িয়ে এনে সবজি বা ভাজি হিসেবে খেয়ে বেঁচে থাকত। আর আজ শাপলা একটি মজাদার খাবারে পরিণত হয়েছে। গরিব বা মধ্যবিত্তের মধ্যেই শাপলার তরকারি সীমাবদ্ধ নেই। এখন ধনী পরিবারেও মজা করে শাপলা ভাজি বা তরকারি খাওয়ার রসনা বেড়েছে।

উপজেলার রসুনিয়া গ্রামের পাইকার লেলু মিয়া জানান, কৃষকদের কাছ থেকে প্রতিদিন প্রায় দেড় থেকে দুই হাজার মুঠা শাপলা তিনি ক্রয় করেন। এক মুঠা শাপলা তিনি ১০-১২ টাকা দরে ক্রয় করেন। এরপর গাড়ি ভাড়া গড়ে তিন টাকা, লেবার খরচ এক টাকা, আড়তদারি খরচ দুই টাকাসহ ১৭ থেকে ২০ টাকা পর্যন্ত খরচ পড়ে। যাত্রাবাড়ী আড়তে এ শাপলা বিক্রি করেন ২৫ থেকে ৩০ টাকা মুঠা।

লেলু আরো জানান, শাপলা সবজি বা তরকারি হিসেবে খুবই মজাদার একটি খাদ্য। এ ছাড়া এটি বিষমুক্ত সবজি। কয়েক বছর ধরে এ ব্যবসা এলাকায় বেশ প্রসার লাভ করেছে। এতে করে বেকার কৃষকের কর্মসংস্থানের একটি সুযোগ হয়েছে। শাপলা বিক্রি করে এলাকায় কয়েক শ দরিদ্র কৃষক তাদের জীবিকা নির্বাহ করছে।

উদ্ভিদবিজ্ঞানী ও মুন্সীগঞ্জ সরকারি হরগঙ্গা কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ প্রফেসর সুখেন চন্দ্র ব্যানার্জি বলেন, ‘শাপলা একটি ভালো সবজি। এতে প্রচুর আয়রণ রয়েছে, যা মানবদেহের রক্ত গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। শ্বেতপ্রদর রোগ উপশমেও এটি উপকারী।’

কালের কন্ঠ

Leave a Reply