মহারাজ বল্লাল সেনের অর্ধনারীশ্বর মূর্তি

ArdhanariWikiPediaগোলাম আশরাফ খান উজ্জল: দূর অতীত কালে বাংলার বিভিন্ন অঞ্চলে অর্ধনারীশ্বর মূর্তির পূজা প্রচলিত ছিল। হিন্দু শাস্ত্রমতে অর্ধনারীশ্বর হলো শিব পার্বতী। অর্ধনারী হলো কষ্ঠিপাথরের মূর্তির একপাশ পুরুষ (শিব), অন্য অর্ধাংশ নারী (পার্বতী)। এ শিব-পার্বতী বা মহাদেবকে নিয়েও দূর অতীতে অনেক সাহিত্য সাধনা হয়েছে। বিশেষ করে মৎস্য পুরানে অর্ধনারীশ্বর মূর্তির স্তব রয়েছে। হেমাদ্রিকৃত ‘চতুর্বর্গচিন্তামনি’ গ্রন্থের ব্রত খ-েও অর্ধনারীশ্বর মূর্তির পঙ্ক্তি পাওয়া যায়।

বাংলার প্রাচীন রাজধানীগুলোর একটি হলো বিক্রমপুর। এ বিক্রমপুর হলো সেন রাজাদের সর্বপ্রধান রাজধানী ও সেনানিবাস। রাজা বিজয় সেনের যে তাম্র শাসনটি বারাকপুরে পাওয়া যায়। তার ২২-২৩ পঙ্ক্তিতে সুস্পষ্ট লেখা রয়েছে ‘শ্রী বিক্রমপুর সমাবাসিত শ্রীমজ্জায়স্কাবারাৎ।’

১৯১১ সালে সিতাহাটির জমিদার একটি তাম্রশাসন পেয়েছেন। তার ২৯ পঙ্ক্তিতে বল্লাল সেনের যে তাম্রশাসনটি ১৩ক্ম৫/৮ক্ম১৬ ইঞ্চি মাপের পেয়েছেন। তার ২৯ পঙ্ক্তিতে ‘সখলু শ্রীবিক্রমপুর সমবাসিত শ্রীমজ্জায়স্কাবারাৎ’ হতে জারি করা। বল্লাল সেনের দিনাজপুরের গঙ্গারামপুর ‘তপন দিঘী তাম্রশাসনটিও’ বিক্রমপুর হতে জারি করা। এমনকি লক্ষণ সেনের রাজধানীও বিক্রমপুর। লক্ষণ সেনের গোবিন্দপুর তাম্রশাসনটি ১৩.৫ক্ম১১.৫ যা বিক্রমপুর হতে জারি করা। এ তাম্রশাসনগুলো ঢাকা ও কলিকাতা জাদুঘরে রক্ষিত আছে।

মহারাজা বল্লাল সেন অর্ধনারীশ্বর মূর্তির উপাসক ছিলেন। সে রাজাদের ভূমিদানের তাম্রশাসন ও মুদ্রালিপির লাঞ্ছনা থেকে তাদের ধর্মবোধ আবিষ্কার করা সম্ভব। ঐতিহাসিকরা একমত যে, সব সেন রাজাই হিন্দু ধর্মাবলম্বী ছিলেন। মুদ্রা জারি ও তাম্রশাসন যেহেতু বিক্রমপুর (মুন্সীগঞ্জ জেলা) থেকে জারি করা হতো তাই অর্ধনারীশ্বর মূর্তি খুঁজতে ঐতিহাসিককরা তদানীন্তন মুন্সীগঞ্জ মহকুমায় গবেষণা করেন। এ গবেষণায় অগ্রনায়ক ছিলেন প্রফেসর যোগেন্দ্র নাথ গুপ্ত, যতীন্দ্র মোহন রায় প্রমুখ।
ArdhanariWikiPedia
শতাধিক বছর আগে বল্লাল সেনের রাজধানী বিক্রমপুরেই পাওয়া যায় সেই জগৎ বিখ্যাত অর্ধনারীশ্বর মূর্তিটি। মুন্সীগঞ্জ শহর থেকে ১০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে টঙ্গীবাড়ী উপজেলা। এই টঙ্গীবাড়ী উপজেলার পুরাপাড়া গ্রামেই আবিষ্কৃত হয় মহারাজাধিরাজ বল্লাল সেনের অর্ধনারীশ্বর মূতি। এই মূর্তিটি আবিষ্কার করেন বিক্রমপুরের ইতিহাস গ্রন্থের লেখক ও ঢাকা জগন্নাথ কলেজের প্রফেসর স্বর্গীয় যোগেন্দ্রনাথ গুপ্ত। বল্লাল সেনের একটি তাম্রশাসনের সঙ্গে পুরাপাড়া দেউল হতে এ মূল্যবান ঐতিহাসিক সম্পদটি আবিষ্কার হয়। বিগত সোয়াশ’ বছরে বাংলার আর কোন স্থান হতে অর্ধনারীশ্বর মূর্তি আবিষ্কৃত বা উদ্ধার হয়নি। যেহেতু বল্লাল সেন বিক্রমপুরে বাস করতেন তাই তার পূজার দেব-দেবী বিক্রমপুরেই থাকতো। আর তার পূজনীয় অর্ধনারীশ্বর মূর্তি মুন্সীগঞ্জে পাওয়াই স্বাভাবিক। মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ীতে প্রাপ্ত এই অর্ধনারীশ্বর মূর্তিটি সম্পর্কে প্রখ্যাত ঐতিহাসিক ঘ.ক. ইধঃঃধংধষর তার বিখ্যাত ওপড়হড়মৎধঢ়যু ড়ভ ইঁফফযরংঃ ধহফ ইৎধযসধহরপধষ ঝপষঁঢ়ঃঁৎব রহ ঃযব উধপপধ গঁংঁস গ্রন্থে লিখেন টঢ় ঃড় হড় িযড়বিাবৎ, ংড় ভধৎ ধং শহড়,ি ড়হষু ড়হব রসধমব ড়ভ অৎফযধহধৎরংধিৎধ যধং নববহ ফরংপড়াবৎবফ রহ ঊধংঃ ইবহমধষ (চধমব-১৩০).

টঙ্গীবাড়ীর এ দেউল হতে বল্লাল সেনে যুগের উমামহেশ্বর মূর্তিও পাওয়া গেছে। মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রাপ্ত এই অর্ধনারীশ্বর মূর্তিটি বর্তমানে বরেন্দ্র অনুসন্ধান সমিতির রাজশাহী জাদুঘরে রক্ষিত আছে। বাংলার ইতিহাসের এ মহামূল্যবান পাথর মূর্তিটি রাজশাহী জাদুঘর হতে ঢাকা জাতীয় জাদুঘরে নিয়ে আসা উচিত। আর দেশের কোন মূর্তি যেন বিদেশে প্রদর্শনীতে না নেয়া হয় সেদিকে সরকারকে খেয়াল রাখতে হবে। অন্যথায় মূর্তি পাচার হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

হিন্দুদের বিভিন্ন গ্রন্থে অর্ধনারীশ্বর মূর্তি নিয়ে কবিরা কাব্য রচনা করেছেন। এদের মধ্যে হেমাদ্রিকৃত ‘চতুর্বর্গচিন্তামনী’ গ্রন্থের ব্রতখ-ে অর্ধনারীশ্বর মূর্তির পঙ্ক্তি পাওয়া যায়। আর তা হলো অর্দ্বং দেবস্য নারী তু কর্ত্তব্যা শুভলক্ষণ! অর্দ্বস্ত পুরুষঃ কার্য্যঃ সর্বলক্ষণভূষিতঃ’ বাংলার ইতিহাস গবেষণা করে দেখা গেছে ‘মৎস্য পুরানে’ অর্ধনারীশ্বর মূর্তির স্তব আছে। যা কলায়া যতঃ। বামতো দপর্ণং দদ্যাদুৎ পলং বা বিশেষতঃ। ‘স্তনভারময়ার্দ্ধে তু বামে পীনং প্রকল্পয়েত।’ অতি প্রাচীন কাল হতেই সংস্কৃত সাহিত্যে অর্ধনারীশ্বর মূর্তি বা দেব-দেবীর কবিতা লিখিত ও পঠিত হতো। যা চতুর্বর্গচিন্তা মনী ও মৎস্য পুরান হতে জানা যায়।

মুন্সীগঞ্জের মূূর্তিটি অক্ষত অবস্থায় পাওয়া যায়নি। এ শিব-পার্বতীর মূর্তিটির বাম হাতটি সম্পূর্ণ ভাঙা ডান হাতেরও অর্ধেক নেই। তারপরও অর্ধনারীশ্বর মূর্তিটি দেখতে এত মায়াবী ও শৈল্পিক সৌন্দর্যম-িত। যা ভাষায় প্রকাশ করা যাবে না। গলায় চমৎকার করুকার্য খচিত হার। তার একটি অংশ বাম বুকের ওপর দিয়ে ডানপাশের পিছন পর্যন্ত বাঁধানো। কোমর এত চমৎকার নকশায় আবৃত যা শিল্পীর সেরা উপহার। কানে ঝুমকা হাজার বছরের বাঙালি স্মৃতি বহনকারী। মাথায় তাজ ঈশ্বরের বা ভগবানের চিহ্ন বটে। মুখ থাকার কথা মসৃণ। কিন্তু এ অর্ধনারীশ্বর মূর্তিটির মুখে হাজারো আঘাতের চিহ্ন। এমনটি কেন হলো? খুব সম্ভবত ভিনদেশীয় কোন আক্রমণে মূর্তিটি ক্ষত-বিক্ষত হয়েছে।

১১৭৮ সালের ২০ সেপ্টেম্বর হযরত শহীদ বাবা আদম (রহ.) নামক এক আরব ধর্ম প্রচারকের সঙ্গে রাজা বল্লাল সেনের যুদ্ধ হয়। প্রথমে যুদ্ধে জয়ী হলেও পরে পরাজিত হন বল্লাল সেন। হয়তো মুলসমানদের দ্বারা এই অর্থনারীশ্বর মূর্তিটি আঘাতপ্রাপ্ত হয়। এও হতে পারে ১৪৮৩ সালে মালিক কাফুর শাহ কর্তৃক বিক্রমপুর দখলের সময় মূর্তিটির ক্ষতি হয়। বিক্রমপুরে আক্রমণ করেন ত্রিপুরা ধন্যমানিক্য। তিনি ১৫১৮ সালের বিক্রমপুরের রাজধানী শহর রামপাল বিধ্বস্ত করেন। এটাও হতে পারে ১৬০৩ সালে বিক্রমপুরের শেষ রাজা কেদার রায় ১৬০৩ সালে মুঘল সেনাপতি মানসিংহের সঙ্গে যুদ্ধে পরাজিত হন। এ পরাজয়গুলোর সময় বিক্রমপুরের বিভিন্ন স্থানে ব্যাপক লুণ্ঠন হয়েছে। সে সময় হয়তো বা মূর্তিটির হাত ভেঙে গেছে।

প্রফেসর যোগেন্দ্রনাথ গুপ্ত বিক্রমপুরের ইতিহাসে অর্ধনারীশ্বর (যধষভ-সধহ, যধষভ-ড়িসধহ) বর্ণনা এভাবে দিয়েছেন। ‘ঊর্ধ্ব বাম দিকে ফনিময় বিলম্বিত জটাজাল। কাঁধের ওপর দিয়া আসিয়া পড়িয়াছে। ললাটে অর্ধচন্দ্র। বাম দিকে সিন্দুর বিন্দু। আকর্ষণ বিস্তৃত নয়ন। কর্ণে-কর্ণ ভুষা। অনেকটা ভাঙিয়া গিয়াছে। তবু কি তার বিচিত্র গঠন নৈপূণ্য। আর দক্ষিণ-ফনি-কু-স্থ। কণ্ঠে নরকপাল-মালা। বামে মনিময় মালিকা। দক্ষিণ স্থূল যজ্ঞোপরীত, বামকণ্ঠে পার্বতীর লম্বিত দোদুল্যমান মনিমালার সহিত জড়াইয়া গিয়াছে। দক্ষিণ হস্ত ভঙ্গ। যদি অভঙ্গ থাকিত তাহা হইলে সে হাতে থাকিত ত্রিশূল। বাম হস্তটিও সম্পূর্ণ ভঙ্গ। যদি ইহা অভগ্ন থাকিত তাহা ইলে দেখিতে পাইতাম বাজু ও বলয় এবং অন্যান্য অলংকার। বামে পীন স্তন। সূক্ষ্ম বস্ত্রাবরণে আবৃত। দক্ষিণে মুক্ত ও বিশাল বক্ষস্থল, পুরুষোচিত দৃঢ়তার সহিত খোদিত। আর পরিধানে বাঘছাল। কটিতে নরহস্ত। ঊর্ধ্ব লিঙ্গ। বামে স্তরে স্তরে মাল্যাকারে ভূষণসমূহ দোলায়মান। মূর্তিটি পদদ্বয় ভগ্ন। যদি পদ যুগ, অভগ্ন থাকিত। তাহা হইলে দেখা যাইত যে, দক্ষিণ পদখানি বিকশিত শতদলোপরি সুরক্ষিত আর বাম পদখানি থাকিত লোহিত-রাগরঞ্জিত-পদালঙ্কার-শোভিত শতদলের উপর।’

কবি ভারত চন্দ্রের ‘অর্ধনারীশ্বর’-এর বর্ণনার সহিত সম্পূর্ণ মিলে গেছে মুন্সীগঞ্জের অর্ধনারীর মূর্তিটি। বাংলার ইতিহাসের প্রামাণ্য তথ্য সংবলিত এ অর্ধনারীশ্বর মূর্তিটি সংরক্ষণ ও হেফাজত করার দায়িত্ব সরকার এবং পুরো জাতির। অন্যথায় হারিয়ে যাবে আমাদের জাতীয় ইতিহাস।

[লেখক : সাংবাদিক ও প্রাবন্ধিক]

লেখাঃ সংবাদ, ছবিঃ উইকিপেডিয়া

 

Leave a Reply