গ্রামে গ্রামে রাত জেগে পাহারা

dakati2মুন্সীগঞ্জে ডাকাত আতঙ্ক
সুজন হায়দার মোল্লা: মুন্সীগঞ্জ জেলা সদরসহ ছয়টি উপজেলায় ডাকাত আতঙ্ক বিরাজ করছে। একের পর এক ডাকাতির ঘটনা ঘটলেও পুলিশের নীরব ভূমিকায় জনমনে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। বিশেষ করে টঙ্গিবাড়ী, শ্রীনগর ও লৌহজং উপজেলার চার শতাধিক গ্রামে ডাকাত আতঙ্কে নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছে লাখ লাখ মানুষ। ডাকাত প্রতিরোধে ওই তিন উপজেলার গ্রামে গ্রামে লাঠিসোটা নিয়ে রাত জেগে পাহারা দিচ্ছে গ্রামবাসী। সন্ধ্যার পর থেকেই তিনটি উপজেলায় বিভিন্ন গ্রামের ব্যস্ততম হাটবাজার, সড়কের বিভিন্ন পয়েন্ট এবং উপজেলা ঘেঁষা পদ্মা, ইছামতি ও ধলেশ্বরী নদীর বিভিন্ন পয়েন্টে ডাকাত প্রতিরোধে চেকপোস্ট নির্ধারণ করে পাহারা দিচ্ছে গ্রামবাসী।

সম্প্রতি শ্রীনগরে সিরিজ ডাকাতি এবং সিরাজদিখানের শেখরনগরে এক রাতে পাঁচ বাড়িতে ডাকাতিকালে ডাকাতদের গুলিতে যুবক নিহত হওয়ার পর এ দুটি উপজেলার ২৮টি ইউনিয়নের ৩১৭টি গ্রামের ৫ লক্ষাধিক মানুষের মধ্যে ডাকাত আতঙ্ক বিরাজ করছে। যার প্রভাব পড়েছে টঙ্গিবাড়ি উপজেলার ১২টি ইউনিয়নের ১৫৬টি গ্রাম বসবাসকারী ১ লাখ ৯০ হাজার গ্রামবাসীর ওপর।

এ কারণে বর্তমানে মুন্সীগঞ্জের তিনটি উপজেলার ৪৭৩টি গ্রামে ডাকাত প্রতিরোধে পাহারা দিচ্ছে শত শত গ্রামবাসী। এদিকে ডাকাত আতঙ্কে গ্রামের বাড়িঘরে তালা ঝুলিয়ে নিরাপদে বসবাসের জন্য ঢাকায় চলে গেছে বিভিন্ন গ্রামের ৫ শতাধিক পরিবার।

গত এক মাসে শ্রীনগর উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে ৩০ বাড়িতে ডাকাতি সংঘটিত হয়। এসব ঘটনায় দুই-তিনটি ডাকাতি মামলা রুজু হলেও অপর মামলাগুলো পুলিশ রুজু করেছে চুরির অভিযোগ দেখিয়ে। শ্রীনগর থানার ওসি শেখ মাহবুবুর রহমান সাংবাদিকদের জানান, ডাকাতি প্রতিরোধে শ্রীনগরের বিভিন্ন গ্রামে পুলিশের টহল ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।

আলোকিত বাংলাদেশ

Leave a Reply