নাসিক ও সওজ’র ফাঁদে মুন্সিগঞ্জ জেলার স্থায়ী গ্যাস সংকট

gas8সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের সিদ্ধানত্মহীনতায় আর সিটি কর্পোরেশনের কারনে থেমে আছে নারায়ণগঞ্জের গ্যাস সমস্যার স্থায়ী সমাধানের পথ। নারায়ণগঞ্জ ও মুন্সিগঞ্জ জেলার স্থায়ী গ্যাস সংকট সমাধানে গৃহীত ২২ কোটি টাকার গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পটি থামিয়ে রেখেছে সিটি কর্পোরেশন ও সড়ক জনপথের কুচক্রটি।

পাশাপাশি নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের সিদ্ধিরগঞ্জ এলাকায় একটি মহলের মামলার কারনে থমকে আছে দুই জেলার তীব্র গ্যাস সংকট সমাধানের পথ।

তিতাস কর্তৃপক্ষ বলছে, এই প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে নারায়ণগঞ্জ ও মুন্সিগঞ্জ জেলায় আগামী ৫০ বছরেও গ্যাস সংকট থাকবে না। কিন্তু সড়ক ও জনপথের জায়গায় গ্যাসের পাইপ লাইন নির্মাণের অনুমতি চেয়ে পেট্রোবাংলা, জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রনালয়ের সুপারিশসহ রাস্তা খননের ক্ষতিপূরণ প্রদান শর্তে যোগাযোগ মন্ত্রনালয়ে পত্র প্রেরণ করেও অনুমতি পাওয়া যায়নি। এদিকে এব্যাপারে ঈদের আগেই এলাকাবাসীকে নিয়ে সমস্যা সমাধানে এক যোগে মাঠে নামার ঘোষনা দিয়েছেন স্থানীয় এমপি ও বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের নেতারা।

তথ্যানুসন্ধানে জানা গেছে, বর্তমানে নারায়ণগঞ্জ ও মুন্সিগঞ্জ জেলায় গ্যাসের দৈনিক চাহিদা প্রায় ১৬০ মিলিয়ন ঘনফুট হলেও বিদ্যমান পাইপ লাইন ও কন্ট্রোল স্টেশন দ্বারা সরবরাহ করা হচ্ছে দৈনিক ৮৫ থেকে ৯০মিলিয়ন ঘন ফুট গ্যাস। ফলে এই ব্যাপক ঘাটতির কারণে শিল্পাঞ্চল নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন শিল্প সেক্টরে মারাত্মক বিরুপ প্রভাব সৃষ্টি হয়ে আছে। বিশেষ করে দেশের প্রধান রপ্তানী খাত নীট শিল্প, রি-রোলিং মিল, নীট ডাউং, ডাইংসহ নানা সেক্টরে উৎপাদন চরমভাবে ব্যাহত হয়ে আসছে। পাশাপাশি নারায়ণগঞ্জ ও মুন্সিগঞ্জের আবাসিক গ্রাহকদের অবস্থা গত কয়েকবছর ধরেই অবর্ননীয়। এমনকি রোযার মাসেও গ্যাস সংকটের কারণে লাখ লাখ মানুষের ত্রাহি অবস্থা বিরাজ করছে। বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী প্রায় প্রতি মাসেই তিতাস কার্যালয় ঘেরাও করছেন, না হয় রাসস্তায় নেমে বিক্ষোভ করছেন।

তিতাসের একটি সূত্র জানায়, নারায়ণগঞ্জের এই গ্যাসের সংকট সমাধানে প্রয়াত এমপি ও জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়ামের সদস্য নাসিম ওসমানের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় ২২কোটি টাকা ব্যয়ে ‘সিদ্ধিরগঞ্জ-পঞ্চবটী গ্যাস পাইপ লাইন নির্মাণ প্রকল্প’ নামের একটি প্রকল্প পাস হয়।

২০১৩ সালের ২৩শে নভেম্বর সিদ্ধিরগঞ্জের গোদনাইল এলাকায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে প্রকল্পের কাজ উদ্বোধন করেছিলেন প্রয়াত এমপি নাসিম ওসমান নিজেই। ঐ অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, রূপগঞ্জ আসনের এমপি গাজী গোলাম দসত্মগীর, আড়াইহাজার আসনের এমপি নজরুল ইসলাম বাবু , পেট্রো বাংলার চেয়ারম্যানসহ তিতাসের কর্মকর্তারা। তিতাসের গ্যাস লাইন কন্সট্রাকশন বিভাগের প্রধান ডিজিএম আব্দুল ওয়াহাব জানান, এই গ্যাস লাইনটি সিদ্ধিরগঞ্জের ৩৬ইঞ্চি লাইন থেকে ৬ কিলোমিটার ব্যাপী ১৬ইঞ্চি লাইন হয়ে (৩০০পিএসআইজি চাপের) গোদনাইল ডিআরএস এবং গোদনাইল থেকে ৮কিলোমিটার দূরত্ব ব্যাপী ১২ইঞ্চি লাইন (১৪০ পিএসআইজি চাপের) চাষাড়া দিয়ে ফতুল্লার পঞ্চবটী এলাকা পর্যন্ত যাওয়ার কথা। গ্যাস লাইনটি নির্মাণ শেষ হলে বাখরাবাদ ও আশুগঞ্জ থেকে যে পরিমাণ গ্যাস আসার কথা তাতে নারায়ণগঞ্জ ও মুন্সিগঞ্জ জেলার চাহিদারও বেশী দৈনিক প্রায় ২০০মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস পাওয়া সম্ভব হবে। কিন্তু মাঝপথেই থেমে যায় এই প্রকল্পের কাজ।

ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান বি-রয়েল ইউটিলাইজেশন এর পরিচালক আবদুস সাত্তার শিশু জানান, গ্যাসের পাইপ লাইন স্থাপনের পথেই সিদ্ধিরগঞ্জের ধনকুন্ডা এলাকায় তিতাসের নিজস্ব জায়গা নয় বলে মিথ্যা অভিযোগ তুলে পাইপ লাইন স্থাপনের কাজ বন্ধ করে দেয় সিটি কর্পোরেশনের স্থানীয় কাউন্সিলর রুহুল আমিন। অথচ ১৯৬৪সালে অধিগ্রহনকৃত ঐ জায়গা দিয়ে তিতাসের একটি ১৬ইঞ্চি লাইন বহু বছর ধরেই প্রবাহিত হচ্ছে। বিষয়টি নিয়ে তিতাস ও ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের লোকজন সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষকে বারবার অনুরোধ করা সত্বেও কোন ফল হয়নি।

এ ব্যাপারে মেয়র আইভীর বরাবর তিতাস চিঠি দিলেও কোন ফল হয়নি। উল্টো আলোচনার নামে সময়ড়্গেপন করে একটি মহলের যোগসাজসে এ ব্যাপারে উচ্চ আদালতে মামলা করে এই পাইপ লাইন বসানোর কাজে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। আব্দুস সাত্তার আরো জানান, প্রকল্পের পাইপ লাইন স্থাপনে লিংক রোডের এলজিইডি থেকে চাষাড়া মোড় পর্যনত্ম ১.২৫কিলোমিটার রাস্তা এবং চাষাড়া থেকে পঞ্চবটি পর্যন্ত ৪কিলোমিটার পর্যন্ত সড়ক ও জনপথের জায়গায় গ্যাসের পাইপ লাইন নির্মাণের অনুমতি চেয়ে পেট্রোবাংলা, জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রনালয়ের সুপারিশসহ রাস্তা খননের ক্ষতিপূরণ প্রদান শর্তে যোগাযোগ মন্ত্রনালয়ের পত্র প্রেরণ করে তিতাস কর্তৃপক্ষ। কিন্তু সড়ক ও জনপথের কিছু অসাধূ চক্র তিতাস কর্তৃপড়্গকে পাইপ লাইন বসানোর অনুমতি না দিয়ে উল্টো তিতাস গ্যসকে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় ভুমি সংগ্রহ করার হাস্যকর ও অনৈতিক পরামর্শ দেয়। এব্যাপারে সড়ক ও জনপথের প্রধান প্রকৌশলী মফিজুল ইসলাম রাজ খানের মোবাইলে একাধিকবার ফোন করলেও তিনি রিসিভ করেননি।

অপরদিকে গ্যাসের সমস্যা সমাধানে আটকে থাকা এই প্রকল্পের কাজ ফের শুরু করতে এলাকাবাসীকে নিয়ে মাঠে নামার ঘোষনা দিয়েছেন স্থানীয় এমপি ও আওয়ামীলীগের প্রভাবশালী নেতা শামীম ওসমান। ইতিমধ্যেই ফতুলস্নার একটি ইফতার মাহফিলে তিনি এব্যাপারে বক্তব্যও দিয়েছেন। মোবাইলে তিনি জানিয়েছেন, বিষয়টি আমার এতদিন জানা ছিল না। পরবর্তীতে আমি জানতে পারলাম সিটি কর্পোরেশনের ইন্ধনে একটি মহল এই প্রকল্পের কাজ রুখে দিতে উচ্চ আদালতে মামলা কওে নিষেধাজ্ঞা জারি করে রেখেছে। কিন্তু দুই জেলার বৃহত্তর স্বার্থে এই মহলকে চিহ্নিত করে সকল বাধা দূর করা হবে। পাশাপাশি সড়ক ও জনপথ কেন পাইপ লাইনের স্থাপনে অনুমতি দিচ্ছেনা সে ব্যাপারেও আমরা জোরালোভাবে কথা বলবো। তবে আমার বিশ্বাস যোগাযোগমন্ত্রী এব্যাপারে নারায়ণগঞ্জ ও মুন্সিগঞ্জবাসীর প্রতি সুবিচার করবেন। গ্যাসের সমস্যা সমাধানে আন্দোলনরত ‘আমরা নারায়ণগঞ্জবাসী’ সংগঠনের নেতা এডভোকেট মাহাবুবুর রহমান ইসমাইল জানান, বিষয়টি আমরাও জানতে পেরেছি। যেখানে গ্যাসের সংকটের কারণে শিল্প কারখানা বন্ধ হওয়ার উপক্রম চলছে সেখানে সরকারেরই একটি প্রতিষ্ঠান সমস্যা সৃষ্টি করে রাখবে তা মেনে নেয়া যায়না। আমরা এব্যপারে সিদ্ধান্ত নিয়ে কঠোর কর্মসুচী নিয়ে মাঠে নামবো।

ইউনাইটেডনিউজ

Leave a Reply