বদলে যাচ্ছে খোকাপন্থিরা!

bnpক্ষুব্ধ মির্জা আব্বাস
ঘোষিত বিএনপির ঢাকা মহানগর কমিটিতে পরিবর্তনের ব্যাপারটি জানতেন না দলের আহ্বায়ক মির্জা আব্বাস। তার অজান্তে বড় ধরনের পরিবর্তনে তিনি অসন্তুষ্ট। শনিবার মির্জা আব্বাসের বাসায় হাবিব উন-নবী সোহেল দেখা করতে গেলে পরিবর্তনে অসন্তোষের কথা জানান তিনি।

কমিটি ঘোষণার পর দুই দিনেও বাসা থেকে বের হননি ঢাকা মহানগর বিএনপির নতুন আহ্বায়ক মির্জা আব্বাস। তাকে না জানিয়ে সদস্য সচিবসহ বেশ কয়েকটি থানায় নতুন করে সদস্য পরিবর্তন করায় ক্ষুব্ধ, বিরক্ত ও মনোক্ষুণ্ন বিএনপির প্রভাবশালী স্থায়ী কমিটির এই সদস্য। কমিটি ঘোষণার এক দিনের মাথায় ঘনিষ্ঠজনদের কাছে পদত্যাগের কথাও বলেছিলেন তিনি। তবে মির্জা আব্বাসের থিঙ্কট্যাংক বলে খ্যাত কয়েকজন নেতা তাকে বুঝিয়ে শান্ত করেছেন। দলের বৃহত্তর স্বার্থে খোকাপন্থিদের সঙ্গে নিয়ে কাজ করার কথাও জানান তারা। এদিকে কমিটিতে থাকা খোকাপন্থিরাও গত দুই দিন ধরে মির্জা আব্বাসের সঙ্গে সম্পর্ক বাড়ানোর চেষ্টা করছেন। ফুল নিয়ে গেছেন মির্জা আব্বাসের বাসায়। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে, কমিটি ঘোষণার পরদিন খোকাপস্থি বলে খ্যাত ডেমরার সদস্য নবীউল্লাহ নবীসহ বেশ কয়েকজন সদস্য ফুল নিয়ে মির্জা আব্বাসের বাসায় যান। কিন্তু তারা নতুন এই আহ্বায়কের সঙ্গে সাক্ষাতের সুযোগ পাননি। গতকালও বেশ কয়েকজন সদস্য মির্জা আব্বাসের সঙ্গে বিভিন্নভাবে যোগাযোগ করেন। আগে খোকা সমর্থক থাকলেও কমিটিতে থাকা কেউ কেউ এখন আব্বাস সমর্থক হওয়ার জন্য নানা কৌশল গ্রহণ করছেন বলে জানা গেছে। নতুন কমিটির সদস্যদের বড় অংশই খোকা সমর্থক হিসেবে পরিচিত ছিলেন। তবে গত দুই দিনে অনেকেই নিজেদের আব্বাস সমর্থক বলে দাবি করছেন বলে জানা গেছে।

সূত্রমতে, গতকাল ঘনিষ্ঠ কয়েকজন নেতার সঙ্গে নিজ বাসায় দীর্ঘ সময় কথা বলেন মির্জা আব্বাস। কমিটির নানা দিক নিয়ে আলোচনার পর বৃহত্তর স্বার্থে সদ্য বিদায়ী আহ্বায়ক সাদেক হোসেন খোকা সমর্থকদের সঙ্গে নিয়েও কাজ করার কথা বলা হয়। ওই নেতারা আব্বাসকে মাথা ঠাণ্ডা রেখে ধৈর্যের সঙ্গে কাজ চালিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন।

আজ সোমবার নতুন কমিটির নেতাদের নিয়ে বৈঠক করবেন মির্জা আব্বাস। এরপর তিনি গণমাধ্যমের কর্মীদের সঙ্গে কথা বলবেন। দুই-এক দিনের মধ্যে নবগঠিত কমিটির নেতাদের সঙ্গে কথা বলে সংবাদ সম্মেলন করবেন তিনি। এরপর বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের মাজারে শ্রদ্ধা নিবেদন করে কাজ শুরু করবেন। অবশ্য বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া দেশে ফিরলে কমিটির কিছু দিক নিয়ে কথা বলবেন আব্বাস। গতকাল সরেজমিনে শাজাহানপুরের বাসা ঘুরে দেখা গেছে, দিনভর মির্জা আব্বাসের বাড়িতে থানা পর্যায়ের নেতা-কর্মীরা ভিড় জমান। বাসার আঙিনায় অর্ধশত চেয়ার রাখা হয়। বাসার নিচ তলায় নেতা-কর্মীদের সাক্ষাৎ দেন তিনি।

তবে কমিটির বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা ফুল নিয়ে গতকালও দেখা করতে গেলে তিনি ফুল গ্রহণ করেননি। পরে ফুল বাইরে রেখে আব্বাসের সঙ্গে দেখা করেন থানা পর্যায়ের নেতা-কর্মীরা। দুপুরের দিকে কমিটির সিনিয়র নেতাদের মধ্যে মির্জা আব্বাসের বাসায় যান, কমিটির ১ নম্বর সদস্য ও বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নবগঠিত কমিটির ১ নম্বর যুগ্ম আহ্বায়ক ও চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুল আওয়াল মিন্টু, সদস্য ও যুগ্ম মহাসচিব বরকতউল্লা বুলু, যুগ্ম মহাসচিব সালাহউদ্দিন আহমদ, সদস্য ও দলের সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক আবুল খায়ের ভূইয়া, সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক গাজী মাজহারুল আনোয়ার, যুবদলের সিনিয়র সহসভাপতি অ্যাডভোকেট আবদুস সালাম আজাদ, আশরাফ উদ্দিন আহমেদ উজ্জ্বল, হেলাল খান, সালাহউদ্দিন ভূঁইয়া শিশির, জাকির হোসেন রোকন প্রমুখ নেতা।

পরে বিএনপি নেতা গয়েশ্বর রায়, আবদুল আওয়াল মিন্টু, বরকতউল্লা বুলু, সালাউদ্দিন আহমদ ও আবুল খায়ের ভূঁইয়ার সঙ্গে দীর্ঘ সময় কথা বলেন মির্জা আব্বাস। বাসভবনের নিচতলায় এই প্রতিবেদকের সঙ্গে কথা হয় মির্জা আব্বাসের। কিন্তু তিনি সাফ জানিয়ে দেন, আপাতত কাউকে এককভাবে কোনো কথা বলবেন না। কমিটির সবাইকে সঙ্গে নিয়েই কথা বলবেন তিনি। গণমাধ্যমের সবাইকে যথা সময়ে ডাকা হবে।

জানা গেছে, শুক্রবার ঘোষিত কমিটিতে পরিবর্তনের বিষয়টি জানতেন না আহ্বায়ক মির্জা আব্বাস। তার অজান্তে বড় ধরনের পরিবর্তনে তিনি অসন্তুষ্ট। শনিবার মির্জা আব্বাসের বাসায় হাবিব উন-নবী সোহেল দেখা করতে গেলে পরিবর্তনে অসন্তোষের কথা জানান তিনি।

ওমরাহ শেষে সৌদি আরব থেকে দেশে ফিরলে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে তিনি কথা বলবেন বলে জানা গেছে। অবশ্য প্রয়োজনের তাগিদেই কিছুটা পরিবর্তন করতে হয়েছে বলে দাবি করেছেন মহানগর বিএনপির এক নেতা। তিনি বলেন, সবাইকে রেখে কমিটি করা হয়েছে। এতে কারও ক্ষুব্ধ হওয়ার কথা নয়। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘সিন্দুক আব্বাসের হাতে। আর চাবি খোকার হাতে-এ হচ্ছে নগর কমিটি।’ কমিটির সদস্য সচিব হাবিব-উন নবী সোহেল জানান, ‘বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া এবং সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান আমাদের ওপর আস্থা রেখেছেন। এ আস্থার মূল্য দিতে জীবনবাজি রেখে কাজ করব। আন্দোলনের মাধ্যমে দাবি আদায় করাই মূল চ্যালেঞ্জ।’

অলনিউজবিডি

bnp

Leave a Reply