ঈদ : ব্যস্ত মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুট

mawa456ঈদের দিন ঘনিয়ে আসতে শুরু করায় ব্যস্ত হয়ে উঠছে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সঙ্গে রাজধানী ঢাকার যোগাযোগের অন্যতম নৌপথ মাওয়া-কাওড়াকান্দি। তবে বরাবরের মতো এবারো রং-চঙ করে প্রস্তুত করে রাখা হচ্ছে ফিটনেসবিহীন লঞ্চসহ নৌযানগুলো। বর্ষা মৌসুমের এই দমকা হাওয়ায় পদ্মার উত্তাল ঢেউেয়ে জান-মালের নিরাপত্তা নিয়ে শংকিত ঘরমুখো সাধারণ যাত্রীরা। তবে নৌযান কর্তৃপক্ষ জোড়ালোভাবে নিরাপত্তা ব্যবস্থার দাবী করেন। এছাড়া লঞ্চে চলাচলকারী যাত্রীদের ঊঠানামার ক্ষেত্রে রয়েছে ঘাটে চরম অব্যস্থাপনা।

গত বছর ঈদ হয়েছে বর্ষার শেষের দিকে বা অনেকটাই শীতের কাছাকাছি সময়ে। তখন পদ্মা ছিল পুরোপুরি শান্ত। অধিক যাত্রী বহন করলেও ঝুঁকি ছিল কিছুটা কম। কিন্তু চলতি বছর বর্ষা-ঝড়-বৃষ্টির মৌসুমে ঈদে ঘরে ফেরা মানুষের চাপ বাড়বে। এ সময় পদ্মা থাকবে উত্তাল। তাই ঝুঁকিটাও বেশি। গুরুত্বপূর্ণ এই নৌপথ দিয়ে প্রতিদিনই হাজার হাজার যাত্রী নিয়মিত যাতায়াত করে। আর পারাপারে নিয়োজিত রয়েছে লঞ্চ, স্পিডবোট, ট্রলার ও ফেরি। পরিবহন পারাপারের সাথে ফেরিগুলোতে সাধারণ যাত্রীরাও পার হচ্ছে নিয়মিত। তবে তা অপেক্ষাকৃত কম। ঈদ উপলক্ষে আরও তিনটি ফেরি নতুন করে যুক্ত হচ্ছে। বর্তমানে ১৬টি ফেরি চলাচল করছে। এই নৌরুট দিয়ে চলাচলরত লঞ্চগুলোর বেশির ভাগেরই নেই ফিটনেস। বাইরে রঙ-চঙে নতুন মনে হলেও ভেতরে প্রবেশ করলে ধরা পড়ে আসল চেহারা।

দীর্ঘদিনের এ লঞ্চগুলোকে কোনো রকম মেরামত শেষে রঙ করে আবার নামানো হচ্ছে নদীতে। আর লঞ্চগুলোর ভেতরে নেই কোনো জীবন রক্ষাকারী বয়া বা লাইফ জ্যাকেট। ফলে বাড়তি যাত্রী বহন করলে বড় ধরণের দূঘর্টনার আশংঙ্কা রয়েছে। এতে দুর্ভোগের পরিমাণও বেড়ে যায়। তাই এক্ষুনি যথাযথ ব্যবস্থা নেয়ার দাবী এই রুটে চলাচলরত যাত্রী ও পরিবহন ড্রাইভারদের। কয়েকজন যাত্রী ও পরিবহন ড্রাইভার, এই রুটে চলাচলরত লঞ্চ সঠিক ফিটনেস আছে দাবী করেন লঞ্চ চালকরা।

নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান, নিজেও ফিটনেসবিহীন লঞ্চ চলাচলের কথা অস্বীকার করে ঈদের সময় নৌযানগুলো রং-চং করার পক্ষে মতামত দেন। বাড়তি চাপে এক শ্রেণীর অসাধু নৌযান মালিকরা অধিক মূল্যে যাত্রী পারাপার করার অভিযোগ রয়েছে যাত্রীদের। সে ক্ষেত্রে আইন-শৃংঙ্খলা বাহিনী এবছর কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করবে।

কাওড়াকান্দি ঘাটের বিআইডব্লিউটি’র সহকারী ব্যবস্থাপক আব্দুস সালাম জানিয়েছে, এই নৌরুটে ৮৭টি লঞ্চ, পাঁচ শতাধিক স্পিডবোট, দুই শতাধিক ট্রলার ও সতেরো টি ফেরি নিয়মিত চলাচল করছে।

বিআইডব্লিউটিসির চেয়ারম্যান ড.মিজানুর রহমান বলেন, ঈদে যাত্রীদের নির্বিঘ্রে বাড়ী ফেরার জন্যে আরো দুটি ফেরি বাড়ানোর আশ্বাস দেন। দূর্যোগ কালীন সময়ে টানা ফেরি চলাচল ব্যাহত হলেও এ বছর ঈদে আরও দুটি রোরো ফেরি ইতোমধ্যে বরাদ্দ করা হয়েছে। ঈদে ঘরমুখো যাত্রীদের বাড়ি ফিরতে তেমন সমস্যা হবে না বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

বার্তা২৪

Leave a Reply