কবরের এক পাশে মাটি অন্য পাশে আগ্রাসী নদী

padma agrasiদোহারে পদ্মা ভয়ংকর
দোহারের নারিশা পশ্চিমচর এলাকায় হাবিব সরদারের বসতি এক যুগ। দুই বছর ধরে উত্তাল পদ্মার আগ্রাসী ভাঙন সেই গ্রামের দুই শতাধিক বাড়ি ও পাকা রাস্তা শেষ করে এখন তাঁর বাড়ির পাশে এসে ঠেকেছে। তিন বছর আগে বাবা আলেপ সরদার মারা যাওয়ার পর তাঁর কবর দেওয়া হয়েছিল বসতভিটার পাশে। এখন বাবার শেষ স্মৃতি হিসেবে থাকা সেই কবরটি নদীতে চলে যাচ্ছে দেখে কবরের পাশে দিনভর বসে সময় কাটান হাবিব সরদার ও তাঁর ভাই নুরু সরদার। পাশেই চলছে ঘরবাড়ি ভাঙাচোরার খেলা। মঙ্গলবার দুপুরে হাবিব সরদারের সঙ্গে যখন কথা হয়, তখন পাকা কবরের অর্ধেক অংশ ঝুলে আছে নদীতে। কথা বলতেই কান্নায় ভেঙে পড়েন তিনি। পাশ থেকে তাঁর চাচা হাবিবুর সরদার বলেন, ‘এই গ্রাম ভাঙব কহনও ভাবতে পারি নাই, এই গ্রামের আগে আরেক গ্রাম আছিল, তা ভাইঙা গেছে। কম কইরা হইলেও দুই শ পরিবার গ্যাছে। এইব্যার ভাঙন আরো বেশি মনে হইত্যাছে। এক মাসে এক শরও বেশি বাড়ি চইল্যা গেছে নদীতে। এ্যাহনই সরকার যদি কোনো ব্যবস্থা না নেয়, তাইলে কি যে হইব বুঝবার পারতাছি না।’

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, দোহারের নারিশা পশ্চিমচর, রানীপুর, মধুরচর, বিলাসপুর, বাহ্রা, পানকুণ্ডু ও অরঙ্গাবাদ এলাকাজুড়ে শুরু হয়েছে নদীভাঙন। এক মাসে এসব এলাকার অন্তত পাঁচ শতাধিক বাড়ি, বিস্তীর্ণ ফসলি জমি, রাস্তাঘাটসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা চলে গেছে পদ্মার গর্ভে। এসব বিধ্বস্ত জনপদের সব মানুষের অনাহারি শীর্ণ মুখ। যেখানেই চোখ গেছে, কেবলই ভাঙাচোরার খেলা। ভিটে নেই, শুধু ধ্বংসস্তূপ। আর এমন চিত্র প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে ফিরে এলেও ভাঙন রোধে নেই কোনো কার্যকরী উদ্যোগ।
padma agrasi
বাবার কবরের পাশে আগ্রাসী পদ্মা। দুই ছেলে নিজেদের ঘরবাড়ি সরিয়ে নিলেও নিতে পারছে না বাবার কবরটি। ছবিটি দোহারের নারিশা পশ্চিমচর থেকে মঙ্গলবার দুপুরে তোলা।

নারিশা পশ্চিমচর এলাকার বাসিন্দা রোজিনা বেগম বলেন, পদ্মাপারের মানুষের অসহায়ত্বকে পুঁজি করে নির্বাচনের সময় ভোট আদায়ের কৌশল হিসেবে প্রতিশ্রুতি এবং ভাঙন শুরু হলে দুই-চার কেজি চাল বিতরণের মধ্য দিয়ে যুগের পর যুগ পার করে দিচ্ছেন জনপ্রতিনিধি ও স্থানীয় প্রশাসনের কর্মকর্তারা। নারিশা উচ্চ বিদ্যালয়ের সদস্য এলাকার বাসিন্দা বশির আহম্মেদ বলেন, ‘কয়েক দিন ধরে এলাকাবাসীর সহযোগিতায় বাঁশ ও ছন দিয়ে স্বেচ্ছাশ্রমে আমরা ভাঙন প্রতিরোধের চেষ্টা করেছিলাম কিন্তু উত্তাল ঢেউয়ের কারণে সব ভেঙে গেছে।’

অরঙ্গাবাদ গ্রামটি এখন আর চেনা যায় না। ভাঙনে রূপ নিয়েছে ধ্বংসস্তূপে। নদীর পাশেই একটি ভিটায় ঘর ভাঙার দৃশ্য চোখে পড়ল। কাছে গিয়ে জানা গেল, এই বাড়ির মালিক তাহের মিয়া। তিনবার ভাঙনের শিকার হয়েছেন। ছিল আম বাগান, ছিল ফসলি জমি। এর কোনো চিহ্ন এখন আর নেই, সবই নদীর পেটে। রোদে পুড়ে যাওয়া মুখ নিয়ে তাহের বলেন, ঘর তোলার জন্য সরকারের পক্ষ থেকে সাহায্যের আশ্বাস দিলেও এর কোনো কার্যক্রম দেখতে পাননি তিনি।

ঢাকা জেলা প্রশাসক মোফাজ্জল হোসেন বলেন, ‘ভাঙনকবলিত এলাকাগুলো আমি পরিদর্শন করেছি। ভাঙনের অবস্থা ভয়াবহ। ক্ষতিগ্রস্ত পরিবাগুলোকে পুনর্বাসনের জন্য আমি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলেছি। ভাঙন প্রতিরোধে স্থায়ী ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য পানি উন্নয়ন বোর্ডের সঙ্গে আলোচনাও করেছি।’

কালের কন্ঠ

Leave a Reply