তীব্র গ্যাস সঙ্কট : বন্ধের পথে বিসিক শিল্পনগরী

gas8সুজন হায়দার মোল্লা: মুন্সীগঞ্জ শহর ও শহরতলিতে দীর্ঘদিন ধরে চলছে তীব্র গ্যাস সঙ্কট। পবিত্র রমজানে এ সমস্যা আরও প্রকট আকার ধারণ করেছে। এতে রান্নাবান্নার কাজ নিয়ে চরম বিপাকে পড়েছেন গৃহিণীরা। এদিকে গ্যাস সঙ্কটের কারণে বন্ধের পথে মুক্তারপুর বিসিক শিল্পনগরীর ৩০টি ছোট-বড় শিল্প প্রতিষ্ঠান।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, শহরের বেশ কয়েকটি পাড়া-মহল্লার আবাসিক গ্যাস সংযোগ লাইনে গ্যাস সরবরাহ শূন্যের কোঠায় রয়েছে। এতে চরম দুর্ভোগে পড়েছে শহরের কয়েক হাজার পরিবার। বিষয়টি স্থানীয় প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিরা অবগত থাকলেও সমস্যা সমাধানে কোনো উদ্যোগ নেই তাদের। আবাসিক এলাকায় রাত ১২টা থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত সামান্য গ্যাস পাওয়া গেলেও দিনের বেলা গ্যাসের অভাবে চুলা জ্বালাতে পারছেন না গৃহিণীরা।

এতে রাতের ঘুম হারাম করে পরিবারের সদস্যদের জন্য রান্না করছেন তারা। শহরের মধ্য কোটাগাঁও এলাকারা চাকরিজীবী জান্নাতুল ফেরদৌস জানান, প্রতিদিন রাত ১২টার পর থেকে ভোর পর্যন্ত চুলায় কিছুটা গ্যাস পাওয়া যায়। তবে দিনের বেলা গ্যাস একেবারেই পাওয়া যায় না। ফলে প্রতিদিন রাত জেগে রান্না করে আবার সকালে অফিস করতে হয়।

এদিকে গ্যাস সঙ্কটের কারণে মুন্সীগঞ্জের মুক্তারপুর বিসিক শিল্পনগরীর ছোট-বড় ৩০টি শিল্প প্রতিষ্ঠান এখন বন্ধের পথে। প্রয়োজনের তুলনায় গ্যাস সরবরাহ অনেক কম থাকায় তাদের উৎপাদন নেমে এসেছে অর্ধেকের কোঠায়। অন্যদিকে গ্যাস সংযোগ না পাওয়ায় ওই বিসিক শিল্পনগরীর ৪০টি প্লটে এখনও কোনো প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেনি।

বিসিক শিল্পনগরীর হাওলাদার বিস্কুট ফ্যাক্টরির ব্যবস্থাপনা পরিচালক জানান, গ্যাস সঙ্কটে তাদের ব্যবসা পড়েছে হুমকির মুখে। গ্যাস অফিস সূত্র জানায়, মুন্সীগঞ্জে গ্যাসের চাহিদা ৫ দশমিক ২৫ এমএমসিএম (মিলিয়ন ঘন মিটার)। কিন্তু কত মিলিয়ন ঘন মিটার পাওয়া যাচ্ছে তা জানা নেই কর্তৃপক্ষের।

আলোকিত বাংলাদেশ

Leave a Reply