‘মাওয়া’য় পাল্টে যাওয়া জীবন

mawaMদুই যুগ আগের কথা। স্বল্প পুঁজির ব্যবসায়ী আবু কালাম জয়পুরহাট থেকে বাসের ছাদে উঠে নারায়ণগঞ্জ যাচ্ছিলেন। যমুনা সেতু তখনো চালু হয়নি। তাঁর বাসের সামনে সিরাজগঞ্জ থেকে ছেড়ে আসা কয়েকটি বাস। যানজটে থাকতেই কয়েকটি বাসের ছাদে চোখ আটকে গেল আবু কালামের। ছাদভর্তি নোংরা কাপড়ে মোড়ানো পোঁটলায় দুধের ছানা। ছানার গন্ধে মাছি ভনভন করছে। মাঝেমধ্যে ছোঁ দিচ্ছে কয়েকটি কাক। পোঁটলা থেকে ছানা বেরিয়ে পড়ছে। কোথায় যাচ্ছে এসব ছানা, কৌতূহলী হলেন আবু কালাম। নগরবাড়ি ফেরিঘাটে পৌঁছার পর তিনি ছানাবাহী কোচ খুঁজে কথা বললেন ছানার ব্যবসায়ীদের সঙ্গে। ব্যবসায়ীরা জানালেন, এসব ছানা যাচ্ছে রাজধানীর বিভিন্ন অভিজাত মিষ্টি কারখানায়।

কাকের বিষ্ঠা ছড়ানো এসব ছানা মানুষের পেটে যাবে ভেবে মনে মনে কষ্ট পেলেন আবু কালাম।
নারায়ণগঞ্জে পৌঁছার পর আলুর মহাজন চা খাওয়াতে নিয়ে গেলেন একটি রেস্তোরাঁয়। চায়ের আগে মিষ্টি এল। মিষ্টি দেখেই ছানার পোঁটলায় কাক বসার দৃশ্য মনে পড়ল তাঁর। বমি হওয়ার জোগাড় হলো কালামের। মহাজন কারণ জানতে চাইলে সেই ঘটনার বর্ণনা দিলেন। তাঁদের এই আলাপচারিতা পাশে বসে শুনছিলেন তপন ঘোষ নামে একজন। তিনি পেশায় ‘মাওয়া’ ব্যবসায়ী। বাড়ি মুন্সিগঞ্জ। ফরিদপুর থেকে ‘মাওয়া’ কিনে এনে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ-সিলেটের অভিজাত মিষ্টি বিপিণতে সরবরাহ করেন। কালামের সঙ্গে আলাপ জমে উঠল তাঁর। উত্তরবঙ্গে দুধের দাম সস্তা। কালামের মাধ্যমে উত্তরবঙ্গ থেকে ‘মাওয়া’ কেনার প্রস্তাব দিলেন। ‘মাওয়া’ জিনিসটা আসলে কী জানতে চাইলেন কালাম।

তপন ঘোষ জানালেন, কড়াইয়ে নিয়ে ঘণ্টা খানেক জ্বাল দিলে দুধ ঘন হয়ে ক্ষীর হয়। আরও জ্বাল দেওয়ার পর গাঢ় হলে নামিয়ে রাখা হয়। ঠান্ডা হওয়ার পর গুড়ের মতো এক কেজি ওজনের ঢিমা তৈরি করা হয়। এরপর কার্টন বা প্লাস্টিকের ড্রামে ভরে বিভিন্ন জায়গায় পাঠানো হয়। কাক বসার ভয় নেই, পচে যাওয়ার শঙ্কা নেই।

অঙ্ক কষে লাভের হিসাব জেনে উত্তরবঙ্গ থেকে ‘মাওয়া’ পাঠাতে রাজি হলেন কালাম। আট দিন ধরে তপন ঘোষের সঙ্গে নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন কারখানা ঘুরে ‘মাওয়া’ তৈরির কৌশল শিখলেন। এরপর আলু ব্যবসার পুঁজি নিয়ে ফিরলেন বাড়ি। নারায়ণগঞ্জ থেকে সঙ্গে আনলেন চারজন কারিগর। দুধ কিনে বাড়িতেই কারিগরদের সঙ্গে নিজেই ‘মাওয়া’ তৈরি শুরু করলেন। তিন দিন পর দুই মণ ‘মাওয়া’ পাঠালেন নারায়ণগঞ্জে। প্রথম চালানেই খরচ বাদে এক হাজার টাকা লাভ থেকে গেল। সেই শুরু। দিনে দিনে ব্যবসার পরিধি আরও বেড়েছে। বেড়েছে কারখানায় কারিগর ও শ্রমিকের সংখ্যা।
mawaM
‘মাওয়া’ ব্যবসায় বদলে গেছে তাঁর ভাগ্যের চাকা। অভাব ঘুচেছে। সংসারে ফিরেছে সচ্ছলতা। নিজেই রেস্তোরাঁ খুলেছেন। মাথা গোঁজার ঠাঁই ছিল না। এখন পাকা বাড়ি করেছেন। কিনেছেন চার বিঘা আবািদ জমি । ছেলেকে পড়ালেখা শিখিয়ে বিদেশ পাঠিয়েছেন। বেড়েছে সামাজিক পরিচিতি। এ সুবাদেই ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন একবার। জয়পুরহাটের কালাই উপজেলার করিমপুর গ্রামের আবু কালামের হাত ধরে ‘মাওয়া’র ব্যবসা ছড়িয়ে পড়ছে আশপাশের জেলাগুলোতে। বাড়ছে দুগ্ধ খামার। বদলে যাচ্ছে এলাকার অর্থনীতি।

নিজের ভাগ্য এবং সেই সঙ্গে অনেকের ভাগ্যের চাকা ঘুরিয়ে দেওয়া এই আবু কালাম বড় হয়েছেন চরম দারিদ্র্যের মধ্যে। বললেন, ‘পৈতৃক ভিটেমাটিও ছিল না। ঠিকমতো দুই বেলা ভাত ভাগ্যে জুটত না। স্ত্রী-সন্তান নিয়ে অনাহারে থাকতে হতো। মাওয়ার ব্যবসা ভাগ্যদেবতা হয়ে আমার জীবনে ধরা দিয়েছে।’

মাওয়ার আদ্যোপান্ত: যুগ যুগ ধরে মিষ্টি তৈরি হয়ে আসছে ছানা দিয়ে । নব্বইয়ের দশকে রাজধানী ঢাকার অভিজাত কিছু মিষ্টি কারখানায় মাওয়া থেকে মিষ্টি তৈরি শুরু হয়। তখন মিষ্টি ব্যবসায়ীরা ফরিদপুরসহ কয়েকটি এলাকা থেকে অর্ডার দিয়ে মাওয়ার সরবরাহ নিতেন। এখন সারা দেশের অভিজাত প্রায় সব মিষ্টির দোকানেই ছানার বদলে মাওয়া দিয়ে মিষ্টি তৈরি হচ্ছে।

কালাম জানান, এক মণ দুধ থেকে সাড়ে পাঁচ কেজি মাওয়া হয়। দুধের দাম এক হাজার ২০০ থেকে এক হাজার ৪০০ টাকায়। এক মণ দুধের মাওয়া তৈরিতে এক মণ কাঠের লাকড়ি লাগে। এতে খরচ পড়ে ১৭০ টাকা। প্রত্যেক কারিগরকে মুজুরি দিতে হয় মাসে সাত থেকে আট হাজার টাকা। সেই হিসাবে প্রতি কেজি মাওয়া তৈরি খরচ প্রায় ৩০০ টাকা। ঢাকায় নেওয়ার পর তা বিক্রি হয় ৪০০ টাকায়। প্রতিদিন চাহিদা থাকে পাঁচ থেকে দশ মণ। ঈদ, পয়লা বৈশাখ ও দুর্গাপূজায় মাওয়ার চাহিদা বেশি থাকে।

বগুড়ার এশিয়া সুইটসের প্রধান কারিগর সিরাজুল ইসলাম বলেন, মিষ্টির স্বাদ ও গুণগত মান বাড়াতে এখন প্রায় সব ধরনের মিষ্টিতেই ‘মাওয়া’ ব্যবহার করা হয়। সন্দেশজাতীয় মিষ্টি মাওয়া ছাড়া হয়ই না। কাচ্চি বিরিয়ানিতেও মাওয়ার ব্যবহার রয়েছে।

সরেজমিন: বগুড়া থেকে প্রায় ৫২ কিলোমিটার দূরে জয়পুরহাটের কালাই উপজেলার করিমপুর গ্রাম। গত বুধবার বিকেলে করিমপুরে আবু কালামের মাওয়া কারখানায় গিয়ে দেখা গেছে, ঈদ উপলক্ষে কারখানাজুড়ে কর্মমুখর পরিবেশ। বাজার থেকে পাত্রে ২০ থেকে ২৫ মণ দুধ কিনে এনে কারখানায় জড়ো করছেন কারখানার শ্রমিকেরা। সেই দুধ ১৪ থেকে ১৫ জন কারিগর কারখানার চুলায় জ্বাল দিচ্ছেন। চুলায় বসানো দুধ নাড়াচাড়া করছেন, কেউ অল্প গরম দুধ হাতে নিয়ে ঘনত্ব পরীক্ষা করছেন। কয়েকজন শ্রমিক তৈরি করা ঢিমা ঢাকায় পাঠানোর জন্য কার্টনজাত করছেন। আবু কালাম এবং তাঁর স্ত্রীও কারিগরদের সঙ্গে কাজ করছেন।

আবু কালাম বললেন, ‘সামনে ঈদ, মালের প্রচুর অর্ডার। তবে দুধের দাম বেশি হওয়ায় চাহিদামতো মাল সরবরাহ করতে পারছি না।’ কালাম আগে সিলেটের বনফুল, ঢাকার আলাউদ্দিন সুইটসসহ অভিজাত অনেক মিষ্টি কারখানায়ই মাওয়া সরবরাহ করতেন। এখন নারায়ণগঞ্জের পাইকারি ব্যবসায়ী এবং বিভিন্ন মিষ্টি কারখানায় সরবরাহ করেন।

নোংরা পরিবেশে ছানা বহনের অভিজ্ঞতা থেকে মাওয়া ব্যবসায় জড়িয়ে পড়লেও নিজের কারখানায় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা ও পণ্যের মান কীভাবে নিশ্চিত করেন জানতে চাইলে আবু কালাম বলেন, একসময় তাঁর কারখানা কালাই উপজেলা সদরে এবং গোবিন্দগঞ্জের রাজাবিরাট বাজারে ছিল। তখন তিনি কারিগর ও শ্রমিকদের আলাদা পোশাক এবং শতভাগ পরিচ্ছন্ন পরিবেশে মাওয়া তৈরি নিশ্চিত করতে পারতেন। তবে এখন কারখানা নিজের বাড়িতে স্থানান্তর করায় ঠিক ততটা পরিচ্ছন্ন পরিবেশ নিশ্চিত করতে পারেন না।

কারণ, গ্রামে অভিজ্ঞ শ্রমিক-কারিগর পাওয়া যায় না। কারখানার পরিধি আরও বেড়ে গেলে পণ্যের মান নিয়ন্ত্রণের জন্য লোক নিয়োগ ও শ্রমিক-কারিগরদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।

উদ্যোক্তারা চাইলে পণ্যের মান নিয়ন্ত্রণে প্রশাসনের পক্ষ থেকে সব ধরনের সহযোগিতা দেওয়া হবে, জানালেন জয়পুরহাটের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইয়াসিন।

প্রথম আলো

Leave a Reply