মাওয়ায় যাত্রীসেবায় আড়াই শতাধিক আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী

sirajdikhanPoliceআর মাত্র কয়েক দিন পরই ঈদ। তাই শুরু হয়ে গেছে ঘরমুখো মানুষের যাত্রাও। গত দুই দিন মাওয়ায় ফেরিগুলো যানবাহনের জন্য ঘাটে অলস দাঁড়িয়ে থাকলেও শুক্রবার দেখা গেছে ভিন্ন চিত্র। ফেরি, সিবোট ও লঞ্চঘাটে যাত্রীদের ভিড় লক্ষ করা গেছে। তবে কর্তৃপক্ষ যতটা যাত্রীর চাপ আশা করেছিল, এর কিছুই দেখা যায়নি। যাত্রীসেবায় মাওয়ায় বিপুলসংখ্যক আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য কাজ করছেন। সঙ্গে রয়েছে বিএনসিসি ও রোভার স্কাউট।

বিআইডাব্লিউটিসির মাওয়া অফিসের ম্যানেজার (বাণিজ্য) সিরাজুল হক জানান, ঈদ উপলক্ষে মাওয়া-কাওরাকান্দি নৌরুটের নিয়মিত ১৬টি ফেরির বাইরে আরো দুটি নতুন ফেরি যুক্ত হওয়ায় এ রুটে এখন ফেরি সংখ্যা ১৮টি। গতকাল শুক্রবার সকালে মাওয়ায় দক্ষিণবঙ্গগামী ঘরমুখো যাত্রীদের কিছুটা চাপ পড়ে। তবে বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে গাড়ির চাপ কমতে থাকে। বিকেলে ফেরিগুলো গাড়ির অপেক্ষায় ঘাটে অলস দাঁড়িয়ে ছিল। পর্যাপ্তসংখ্যক ফেরি থাকায় যানবাহন পারাপারে তেমন কোনো অসুবিধা হচ্ছে না। ১০ কিলোমিটার দূরে শ্রীনগরের ছনবাড়ীতে আটকে দেওয়া ট্রাকগুলোকে এই ফাঁকে পার করা হচ্ছে। যাত্রীবাহী গাড়ির চাপ বাড়লে আবার ট্রাক পারাপার বন্ধ থাকবে।

এদিকে সিবোট ঘাটে নৌপরিবহনমন্ত্রীর নির্দেশ পালনে সচেষ্ট দেখা গেছে সিবোট মালিক-ইজারাদারকে। বেশির ভাগ সিবোটেই লাইফ জ্যাকেট রাখতে দেখা গেছে। তবে তা প্রয়োজনের তুলনায় যথেষ্ট নয়। প্রশাসনের নির্ধারিত ১৮০ টাকা সিবোট ভাড়া হিসেবে নিতে দেখা গেছে। এ ব্যাপারে ঘাট ইজারাদার আশরাফ হোসেন বলেন, একসঙ্গে পাঁচ শতাধিক লাইফ জ্যাকেট না পাওয়ায় সব সিবোটে তা দেওয়া সম্ভব হয়নি। ২০০ জ্যাকেট সিবোটে সরবরাহ করা হয়েছে। অতি অল্প সময়ে নোটিশ দেওয়ায় ঈদের আগে আর লাইফ জ্যাকেট পাওয়া সম্ভব নয়। কারণ একসঙ্গে পাঁচ শতাধিক জ্যাকেট পাওয়া কষ্টের ব্যাপার। আর অতিরিক্ত কোনো ভাড়া আদায় করা হচ্ছে না।

যাত্রীসেবার ব্যাপারে লৌহজং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. খালেকুজ্জামান জানান, আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় বিপুলসংখ্যক সদস্য কাজ করছেন। যাত্রীদের সহযোগিতার জন্য ৩০ জন রোভার স্কাইট রয়েছে। কারো কিছু বুঝতে, জানতে অসুবিধা হলে রোভার স্কাউট তাদের সহযোগিতা করছে। তা ছাড়া অতিরিক্ত ভাড়া ও যাত্রী পরিবহনসহ সব ধরনের অবৈধ কাজ রোধে ঘাটে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবুল কালামের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত কাজ করছে।

লৌহজং থানার ওসি তোফাজ্জেল হোসেন জানান, আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় আড়াই শতাধিক পুলিশ রয়েছে। এর বাইরে র‌্যাব, আনসার ও কমিউনিটি পুলিশসহ সাদা পোশাকের পুলিশ রয়েছে।

কালের কন্ঠ

Leave a Reply