এইখানে এক নদী ছিল!

nadiএকাদশ শতাব্দীতে বাংলাদেশের ভূখণ্ডে নদীর সংখ্যা ছিল প্রায় দেড় হাজার। নদীগুলো ছিল প্রশস্ত গভীর ও পানিতে টইটুম্বর। পানি উন্নয়ন বোর্ড ও বাংলাদেশ পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলন নামক সংগঠনের দেওয়া তথ্যমতে দেশে (শীতকালে ও গ্রীষ্মকালে পানি থাকে) এমন নদীর সংখ্যা ২৩০টি এবং সরকারি হিসাবে (শুধু গ্রীষ্মকালে পানি থাকে) এমন নদীর সংখ্যা ৩২০টি। অথচ দুঃখের বিষয় এই নদীগুলোর মধ্যে বর্তমানে ১৭টি নদী তার চরিত্র সম্পূর্ণ হারিয়ে মৃত্যুর দ্বারপ্রান্তে গিয়ে ঠেকেছে। ধারণা করা হচ্ছে আগামী কয়েক বছরের মধ্যে আরো ২৫টি নদী দেশের মানচিত্র থেকে হারিয়ে যাবে।

দেশের মৃতপ্রায় নদীগুলো হচ্ছে_ নরসুন্দা (কিশোরগঞ্জ), ভূবনেশ্বর (রাজবাড়ী-ফরিদপুর), বিবিয়ানা (হবিগঞ্জ), পালং (শরিয়তপুর), বুড়িনদী (কুমিল্লা), হরিহর (নোয়াখালী), মুক্তেশ্বরী (যশোর), হামকুমরা (খুলনা), মরিচাপ (সাতক্ষীরা), বামণী (লক্ষ্মীপুর-নোয়াখালী), মানস (বগুড়া), বড়াল (নাটোর-পাবনা), চিকনাই (নাটোর-পাবনা), হিসনা (কুষ্টিয়া), মুসাখান (রাজশাহী-নাটোর) ও ভৈরব (কুষ্টিয়া-মেহেরপুর-চুয়াডাঙ্গা-ঝিনাইদহ-যশোর-খুলনা-বাগেরহাট)।

এ ছাড়া আরো ৮টি নদী আজ বিপর্যস্ত ও মৃত্যুমুখি। এগুলো হচ্ছে_ করতোয়া (পঞ্চগড়-বগুড়া-নীলফামারী-রংপুর-সিরাজগঞ্জ), ইছামতি (পাবনা-মানিকগঞ্জ-ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ), কালিগঙ্গা (কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহ-মাগুরা-ফরিদপুর-মাদারীপুর), চিত্রা (নড়াইল-চুয়াডাঙ্গা-ঝিনাইদহ), ভদ্রা (যশোর-খুলনা), সুমেশ্বরী (নেত্রকোনা) ও নবগঙ্গা।

গবেষণায় জানা যায়, বাংলাদেশের সব নদীর মধ্যে মাত্র ১০০টির বাৎসরিক নৌ-চলাচলের মতো প্রশস্ততা ও পানির গভীরতা রয়েছে। বর্তমানে অধিকাংশ নদীই তার নাব্যতা হারিয়েছে। ভারতীয় আন্তঃনদী সংযোগ প্রকল্প চালু হলে আমাদের নদীগুলোতে প্রায় ৪০% ভাগ পানি প্রবাহ হ্রাস পাবে। ১৫-২০% প্রবাহ হ্রাস পেলে আরো ১০০টি নদীর নাব্যতা বিনষ্ট হয়ে যাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। শুষ্ক মৌসুমে আমাদের দেশে ৯৭% ভাগ নদীর পানির প্রবাহ ও পরিমাণ হ্রাস পায়। ভারত থেকে আসা ৫৪টি নদীর উজান অঞ্চলে (ভারতীয় অংশে) ভারত সরকারের নির্মিত বাঁধ/ব্যারাজ ও বিভিন্ন প্রয়োজনে পানি প্রত্যাহারমূলক কার্যক্রমই তার প্রধান কারণ।

পলি জমে তলা ভরাট হয়ে বাংলাদেশের ১৮৭টি নদী শুকিয়ে গেছে, যা আমাদের মোট নদীর ২৮%। অন্যদিকে আমাদের ৭৭% নদীর মুখে পলি জমে পানি প্রবাহ ব্যাহত হচ্ছে। বাংলাদেশের ৪১% নদী ব্যাপক ভাঙনের শিকার। বিশেষ করে বর্ষাকালে আড়িয়াল খাঁ, বলেশ্বর, ধলেশ্বরী, ধরলা, মেঘনা, যমুনা, পদ্মা প্রভৃতি নদী বিস্তীর্ণ ভাঙনের কবলে পতিত হয়। পাড় ভাঙা মাটি নদীর তলা ভরাট করছে অবিরত। বিগত ৬০ বছরে পানি উন্নয়ন বোর্ডের উদ্যোগে পাঁচ শতাধিক বন্যা নিয়ন্ত্রণ ও সেচ বাঁধ প্রকল্প বাস্তবায়নের ফলে ৩৫ মিলিয়ন হেক্টর জমিকে নদীর পানি থেকে বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে।

বাংলাদেশের বন্যা নিয়ন্ত্রণের নামে বাঁধ তৈরির মাধ্যমে যেসব নদীকে ক্ষতিগ্রস্ত করা হয়েছে সেগুলো হচ্ছে_ বড়াল, ধনগোদা, ফেনী, গড়াই, হালদা, কপোতাক্ষ, মনু, মেঘনা, মহুরী ও তিস্তা। দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বিরাট এলাকা আজ বাঁধজনিত জলাবদ্ধতার শিকার । দখল জনিত কারণে দেশে ১৫৮টি প্রশস্ত নদী আজ ক্ষীণকায় হয়ে পড়েছে। এগুলোর মধ্যে রয়েছে বুড়িগঙ্গা, বালু, তুরাগ, বংশী (টঙ্গী), কালিগঙ্গা (মানিকগঞ্জ), কপোতাক্ষ ও নবগঙ্গা (যশোর), নরসুন্দা ও কলাগাছিয়া (কিশোরগঞ্জ), সুরমা (সিলেট) ও কর্ণফুলী। দেশের ১১% নদী শিল্পবর্জ্য নিঃসৃত রাসায়নিক দ্রব্য দ্বারা ব্যাপক দূষণের শিকার। বিশেষ করে শীতকালে বুড়িগঙ্গা ও শীতলক্ষ্মা এক বিষাক্ত নদীতে রূপ নেয়।

প্রতিবছর দেশে ১.৬০ মিলিয়ন টন রাসায়নিক সার, ৪-৫ হাজার টন কীটনাশক ব্যবহৃত হয়, যার একটি বিরাট অংশ পানিতে মিশে শেষ পর্যন্ত নদীতে পেঁৗছায়। আমাদের বাৎসরিক নৌ-যান নিঃসৃত ময়লার পরিমাণ ১.৭০-২.৪০ বিলিয়ন টন। যা থেকে ৩৫ মিলিয়ন টন রাসায়নিক পলি হিসেবে নদীর তলায় জমা হয়। ছয় মাস আগে সরকারের তরফ থেকে নদী রক্ষায় একটি টাস্কফোর্স গঠন করা হয়। সে টাস্কফোর্সের একজন সদস্য এবং বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের জেনারেল সেক্রেটারি ড.মোহাম্মদ আবদুুল মতিন জানান, বর্তমানে সারাদেশে নদীর অবস্থা খুব একটা ভালো নয়। বর্তমান সরকার নদী রক্ষায় আন্তরিক। নদী রক্ষায় গঠিত টাস্কফোর্সের সদস্যরা প্রত্যেকটি বিপন্ন নদীকে ধরে কাজ করার চেষ্টা করছে।

কিন্তু প্রত্যেকটি নদীর ইস্যু ভিন্ন হওয়ায় নদীগুলোর সমস্যা সমাধানের গতি ত্বরান্বিত হচ্ছে না। তিনি বলেন, সরকারের তরফ থেকে মৃতপ্রায় নদীগুলোকে বাঁচাতে একটি কমিশন ও নদী রক্ষার জন্য আলাদা নীতিমালা তৈরি করা উচিত। আবদুুল মতিন জানান, দেশের নদী রক্ষায় সরকারি কর্মচারীরা ভুল নীতিমালা অনুসরণ করছে ফলে নদীগুলো দিন দিন মৃত্যুর দিকে ঝুঁকে পড়ছে।

বাংলাদেশ প্রতিদিন

Leave a Reply