চাচ্চু আমাকে একটু উঠাও, আমাকে একটু বাচাঁও

pinakCপদ্মায় লঞ্চডুবি
কাজী দীপু: চাচ্চু আমাকে একটু উঠাও, আমাকে একটু বাচাঁও… কথাগুলো বলতে বলতে মুহূর্তের মধ্যেই ঘূর্ণায়মান স্রোতের তোড়ে রাক্ষুসী পদ্মার অতলে তলিয়ে গেলো ৮ থেকে ৯ বছরের অজ্ঞাতপরিচয়ের একটি শিশু। তাকে বাঁচাতে না পেরে ব্যথিত হৃদয়ে মাওয়া ঘাটে ফিরে এসে কান্নায় ভেঙে পড়েন স্পিডবোট চালক মো. শাহ আলম।

শিশুটিকে বাঁচাতে না পারলেও কান্দিপাড়ার মো. শাহ আলম পিনাক-৬ লঞ্চটি ডুবে যাওয়ার পরই নিজের স্পিডবোট নিয়ে দুর্ঘটনাস্থলে গিয়ে ৩ জন নারী ও ৩ জন পুরুষকে জীবিত উদ্ধার করেন।

কিন্তু ৮ থেকে ৯ বছরের ফুটফুটে ওই ছেলে শিশুটিকে বাঁচাতে না পারার ব্যর্থতায় খুব কষ্ট পেয়ে মুষড়ে পড়েন তিনি।

শাহ আলমের স্বজন সাবিবর হোসের জানান, শিশুটিকে বাঁচাতে না পেরে মাওয়া ঘাটে ফিরে কান্নায় ভেঙে পড়েন মো. শাহ আলম। পদ্মায় ডুবে যাওয়ার আগে বাঁচার আশায় অপরিচিত এক স্পিডবোট চালককে “চাচ্চু আমাকে উঠাও, আমাকে একটু বাচাঁও”বলে শিশুটি যে হৃদয়মাখা আকুতি জানিয়েছিল তার বর্ণনা শুনে উপস্থিত অনেকেই চোখের পানি ধরে রাখতে পারেননি।

স্পিডবোট মালিক লাল মিয়া সিকদার জানান, পদ্মায় পিনাক-৬ লঞ্চডুবির পরপরই মাওয়া ঘাট থেকে ৩০ থেকে ৪০টি স্পিডবোট দুর্ঘটনাস্থলে গিয়ে বেঁচে যাওয়া যাত্রীদের উদ্ধার করেন। মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে কোনো দুর্ঘটনা ঘটলে স্পিডবোট মালিক ও চালকরাই যাত্রী উদ্ধারে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন।

এদিকে, অজ্ঞাতপরিচয় ওই শিশুটির মতো পদ্মায় ডুবে যাওয়া পিনাক-৬ লঞ্চের দেড় থেকে দুই শতাধিক যাত্রী নিখোঁজ রয়েছেন বলে ঘাটের একাধিক সূত্র দাবি করেছে। তবে মাওয়া ঘাটে স্থাপিত স্থানীয় প্রশাসনের তথ্য কেন্দ্র সোমবার দিনগত রাত ২টা পর্যন্ত ১১৮ যাত্রী নিখোঁজ থাকার তালিকা তৈরি করেছে।

তথ্য কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত শ্রীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি, তদন্ত) মো. মজিবর রহমান জানান, এ পর্যন্ত ১১৮ যাত্রী নিখোঁজের তালিকা তৈরির পাশাপাশি মৃতের তালিকা ও কতজন যাত্রী উদ্ধার হয়েছে তারও তালিকা তৈরি করা হয়েছে।

তিনি জানান, লঞ্চডুবির ঘটনায় শতাধিক যাত্রী জীবিত উদ্ধার হওয়ার খবর পাওয়া গেলেও তথ্য কেন্দ্রে ২৩ জন যাত্রী জীবিত উদ্ধারের খবর জানিয়েছেন স্বজনরা। আরও যাত্রী জীবিত উদ্ধার হলেও তথ্য কেন্দ্রে কেউ জানায়নি।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর

Leave a Reply