থমকে আছে উদ্ধারকাজ, নিখোঁজ তালিকায় ১১৮

pinakT3সন্ধ্যান মেলেনি লঞ্চের
মধ্যরাতে উদ্ধার কাছ থমকে আছে। দিনের আলোর অপেক্ষায় রয়েছেন ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরিরা। আর পাড়ে বসে থেমে থেমে বিলাপ করছেন জনাপঞ্চাশেক স্বজন। পাড় থেকে ৩০ ফুট দূরে কন্ট্রোল রুমে নিখোঁজের তালিকা করছেন শ্রীনগর থানার ওসি (তদন্ত) নুরুল ইসলাম। সেখানে কয়েকজন ৠাব সদস্যও রয়েছেন।

তবে উদ্ধার কাজ বন্ধ রয়েছে বলে স্বীকার করতে রাজি হননি প্রশাসনের কেউই। ওসি নুরুল ইসলাম দাবি করেন, উদ্ধার কাজ থেমে আছে এ কথা বলা ঠিক হবে না। ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা চেষ্টা অব্যহত রেখেছে।

একাধিক ফায়ার সার্ভিস কর্মী (রাত সাড়ে ১২টায়) জানিয়েছেন, প্রথমত তারা লঞ্চটিকে চিহ্নিত করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। দু’দফায় তারা গিয়ে ব্যর্থ হয়ে ফিরে এসেছেন। এখন কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। রাতের খাবার খেয়ে আবারও নদীতে নামবেন। তবে ভোরের আলো না ফোটা পর্যন্ত কাজ জোরদার করা যাচ্ছে না।
pinakT1
মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক সাইফুল হাসান বাদল ও লৌহজং উপজেলার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা খালিকুজ্জামান অবস্থান করছেন কোয়ার্টার কিলোমিটার দূরে সড়ক জনপথ বিভাগের রেস্ট হাউসে।

জেলা প্রশাসক সাইফুল হাসান বাদল বলেছেন, যেখানে লঞ্চ ডুবেছে সেখানে পানির নিচে ডিভাইস (সাইট স্ক্যানার সোনার) দিয়ে স্ক্যান করেও লঞ্চটির অবস্থান নিশ্চিত হওয়া যায়নি। লঞ্চটি চিহ্নিত করার কাজ অব্যহত রয়েছে। পলি পড়ে গেলে স্ক্যানারে অবস্থান চিহ্নিত করা সম্ভব নয়।

একশ’ থেকে দেড়শ‘ ফুট পানি রয়েছে। প্রবলবেগে স্রোত বইছে। তার সঙ্গে বিশাল বিশাল ঢেউয়ের কারণে লঞ্চ ডুবে যাওয়া স্থানটিতে উদ্ধারকারী সি-বোর্ডগুলো স্থির হতে পারছে না বলেও দাবি করেছেন জেলা প্রশাসক।

জেলা প্রশাসকের সেই কথার রেশ পাওয়া গেলো উদ্ধার তৎপরতার নিউজ কভার করতে যাওয়া সাংবাদিকদের মুখেও। এটিএন নিউজের ক্যামেরাপারসন আব্দুস সালাম দুপুরে উদ্ধারকারী ট্রলারের সঙ্গে গিয়েছিলেন। তিনি জানিয়েছেন, ট্রলারটি কিছুদূর যাওয়ার পর নদীর ঢেউয়ের কারণে উল্টে যেতে ধরেছিলো। চালক দ্রুত তীরে ফিরে আনায় রক্ষা পান উদ্ধারকারীরা।
pinakT2
মাসুম বিল্লাহ’র (জাজিরা-শরীয়তপুর) বোনের মেয়ে জান্নাতুন নাইম লাকি (চীনের একটি মেডিকেল কলেজের শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী) নিখোঁজ রয়েছেন। লাকি ওই লঞ্চটিতে ছিলেন। মাসুম অপেক্ষায় আছেন তার ভাগনির খোঁজে।

তিনি বলেন, ১৩ ঘণ্টা পার হলেও লঞ্চটির অবস্থান চিহ্নিত করা যায়নি। মধ্যরাতে এসে উদ্ধার কাজ স্থগিত রাখা হয়েছে। আমাদের কোনো তথ্য দেওয়া হচ্ছে না। আধুনিক ডিভাইস দিয়ে উদ্ধার তৎপরতার কথা বলা হলেও আইওয়াশ মনে হচ্ছে।
pinakT3
জাহাঙ্গীর হোসেন’র (শিবচর-মাদারীপুর) চাচাতো ভাই, ভাবী, বোন ও বোনের স্বামীসহ মোট সাত জন নিখোঁজ রয়েছেন। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, উদ্ধার তৎপরতা নেই। যে অবস্থা দেখছি তাতে আল্লাহর দিকে তাকিয়ে থাকা ছাড়া কোনো উপায় দেখছি না।

রাত ১টার দিকে তীরে গিয়ে দেখা গেছে, ফায়ার সার্ভিসের উদ্ধার বোর্ট ‘অগ্নি শাসক’ তীরে ভেড়ানো। সেখানে কর্মীরা উঠছেন নদীতে যাওয়ার জন্য। তার পাশে শরীয়তপুর সি-বোর্ট ঘাটে শতাধিক স্বজন। অনেকে থেমে থেমে আর্তনাদ করছেন, আবার কিছু লোকজন তাদের সান্ত্বনা দিচ্ছেন।

উদ্ধারকারী জাহাজ রুস্তম এসে বসে আছে। নারায়ণগঞ্জ থেকে মাওয়ার পথে রওয়ানা দিয়েছে উদ্ধারকারী জাহাজ নির্ভীক। ভোর রাতে এসে পৌঁছুবে ঘটনাস্থলে। আর তখনই জোরালোভাবে উদ্ধারকাজ শুরু হবে। বিকেলে নৌ পরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খানও এমন আশ্বাস দিয়ে গেছেন।

সোমবার সকাল ১১টায় মাওয়া ঘাটের একশ’ গজ দূরে পদ্মায় তলিয়ে যায় পিনাক-৬ লঞ্চটি। সাঁতরে তীরে উঠে আসেন ৪০-৪৫ জন যাত্রী। আর দুই জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। তাদের মধ্যে এক জনের লাশ স্বজনরা নিয়ে গেছেন। একজন বেওয়ারিশ নারীর লাশ ঘটনাস্থলে রয়েছে। খুঁজতে আসা স্বজনদের তথ্যমতে নিখোঁজদের একটি তালিকা করা হচ্ছে। সেখানে এখন পর্যন্ত ১১৮ জনের নাম লিপিবদ্ধ করা হয়েছে।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর

Leave a Reply