লঞ্চ খুঁজতে ব্যবহার হবে ইকোসাউন্ড

ecosideমাওয়ায় নৌবাহিনীর বিশেষজ্ঞ দল
মাওয়ায় পদ্মা নদীতে ডুবে যাওয়া লঞ্চ উদ্ধারে যোগ দিয়েছে নৌবাহিনীর বিশেষজ্ঞ দল। বাগেরহাটের মংলা থেকে চার সদস্যের হাইড্রোগ্রাফিক সার্ভে (জলসম্পদ বিষয়ক জরিপ) বিশেষজ্ঞ দল সন্ধ্যার পর সড়কপথে ঘটনাস্থলে পৌঁছান।

এই দলে নেতৃত্ব দিচ্ছেন লেফটেন্যান্ট পদমর্যাদার একজন কর্মকর্তা। কম্পিউটারসহ আধুনিক সব ধরনের সরঞ্জাম নিয়ে দুর্ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে বিশেষজ্ঞ দলটি।

ঢাকায় নৌবাহিনীর সদর দপ্তর থেকে লঞ্চ খোঁজার ব্যাপারে সব কর্মকাণ্ডের সমন্বয় করা হচ্ছে। নৌবাহিনীর পরিচালক (গোয়েন্দা) কমোডর রাশেদ আলী বাংলানিউজকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
ecoside
এর আগে সাইট স্ক্যানার সোনার দিয়ে নৌবাহিনীর অগ্রবর্তী একটি দল লঞ্চ শনাক্তে কাজ করছিলেন। সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে কয়েকশ’ যাত্রী নিয়ে পদ্মা লঞ্চডুবির পরপরপই নৌবাহিনীর ১২ সদস্যের ডুবুরি দল এক ঘণ্টার মধ্যে দুর্ঘটনাস্থলে পৌঁছে। লেফটেন্যান্ট সিদ্দিকের নেতৃত্বে সেখানে কাজ করছে ডুবুরি দলটি।

কিন্তু প্রবল স্রোত ও বৃষ্টির কারণে উদ্ধার তৎপরতার কাজ কিছুটা ব্যাহত হয়। এরপরই নৌ সদরদপ্তরের চাহিদা অনুযায়ী হাইড্রোগ্রাফিক বিশেষজ্ঞ দলকে মাওয়ায় পাঠানোর সিদ্ধান্ত হয়। হাইড্রোগ্রাফিক সার্ভে টিমের সদস্যরা ইকোসাউন্ড প্রযুক্তির মাধ্যমে পানির তলায় কোনো বস্তু থাকলে তা শনাক্ত করতে সক্ষম।

সূত্র জানায়, এই মুহূর্তে পদ্মায় ১২ জন ডুবুরি কাজ করলেও প্রয়োজনে এই সংখ্যা আরো বাড়ানো হবে। সূত্র আরও জানায়, অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষের উদ্ধারকারী জাহাজই লঞ্চ উদ্ধারে প্রধানত কাজ করবে। এই জাহাজকে সব ধরনের কারিগরি সহায়তা দিতে ২৪ ঘণ্টাই সক্রিয় থাকবে নৌবাহিনী। নৌবাহিনীর আলাদা কোনো জাহাজ থাকবে না, তবে বাহিনীর ছোট ছোট বোট রয়েছে মাওয়ায়।
ecoside2
গত ১৫ মে মুন্সিগঞ্জের গজারিয়ার আরও একটি লঞ্চ ডোবে। সেবারও নৌবাহিনীর সদস্যরা সবার আগে ঘটনাস্থলে ছুটে যায়।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর

Leave a Reply