উদ্ধার অভিযান পরিত্যক্ত ঘোষণার সম্ভাবনা!

PinakOvijan2পদ্মায় লঞ্চডুবি
লঞ্চডুবির তিনদিন পেরিয়ে গেলেও এখনো পিনাক-৬ এর সন্ধান মেলেনি। বুধবার সকাল থেকে লঞ্চটির উদ্ধারে নতুন করে যুক্ত হয়েছে বিআইডব্লিউটি-এর নির্ভীক ও রুস্তম এবং ফায়ার সার্ভিসের উদ্ধারকারী জাহাজ অগ্নিশাসক ও অগ্নিবীণা।

দুপুরের পর চট্টগ্রাম থেকে আসা কান্ডারী-২ উদ্ধার কাজে যুক্ত হয়ে লঞ্চটির অবস্থান সনাক্ত করার শেষ চেষ্টা চলছে। এ অবস্থায় লঞ্চটির অবস্থান নিয়ে সংশয় দেখা দেয়ায় আজ রাতের মধ্যে উদ্ধার অভিযান পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হতে পারে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো আভাস দিয়েছে।

মঙ্গলবার সারারাত উদ্ধার অভিযান পরিচালনা করে বিআইডব্লিউটি এর উদ্ধারকারী জাহাজ সন্ধানী, তিস্তা ও আইটি ৩৯৪ এবং ফায়ার সার্ভিসের স্পিডবোট রেসকিউ-২।

সংশ্লিষ্টরা আশঙ্কা করছেন, পদ্মায় ডুবে যাওয়া লঞ্চটি পলি মাটিতে চাপা পড়তে পারে অথবা স্রোতের টানে ভাটিতে অনেক দূরে চলে যেতে পারে। এছাড়া প্রতিকূল আবহাওয়া ও তীব্র স্রোতের কারণে উদ্ধার কাজ কিছুটা বিঘ্নিত হচ্ছে। দীর্ঘ ৪৮ ঘন্টায়ও ডুবে যাওয়া লঞ্চটির কোন সন্ধান না পাওয়ায় উদ্ধার অভিযান পরিত্যক্ত ঘোষণা করার সম্ভাবনা বেশী।

উদ্ধার অভিযানে অংশ নেয়া নৌ-বাহিনীর ক্যাপ্টেন নজরুল ইসলাম বলেন, সোমবার যে স্থানে লঞ্চটি ডুবেছিল আমরা তার আশপাশে ৩৬ কি: মি: জায়গা তন্ন তন্ন করে সন্ধান চালিয়েছি। কিন্তু এখন পর্যন্ত সুনির্দিষ্ট কোন প্রমাণ পাইনি। লঞ্চের অবস্থান নিয়ে সেরকম কিছুই আমাদের নজরে আসেনি। তিনি বলেন, লঞ্চটি ছিলো ছোট এবং কাঠের তৈরি। ফলে খরস্রোতা নদীতে তলিয়ে গেলে এর ওপর পলি জমার সম্ভাবনা বেশী বলে ক্যাপ্টেন নজরুল সাংবাদিকদের জানান। যে কারনে সাইড স্ক্যান সোনারে এটি নজরে আসছে না বলে তিনি মন্তব্য করেন।

একটি সূত্র জানায়, ৫টি জাহাজ দিয়ে অনুসন্ধানের পরও লঞ্চটির অবস্থান সনাক্ত না হওয়ায় উদ্ধার অভিযান পরিত্যক্ত ঘোষণা করার বিষয়টি প্রশাসন চিন্তাভাবনা করছে। তৃতীয় দিনে বিভিন্ন এলাকায় ১৩টি লাশ উদ্ধার হওয়ায় নদীর তীরে আপনজনের জন্য অপেক্ষমান আত্মীয় স্বজনের মধ্যেই দেখা দিয়েছে সন্দেহ। এখন যে আর কেউই বেচে নেই তা সবার কাছে নিশ্চিত। এ অবস্থায় যেসব লাশ পাওয়া যাবে সেগুলো অক্ষত না থাকার সম্ভাবনাই বেশী।

বার্তা রিপোর্ট

Leave a Reply