‘বিশ হাজার টাকা নয়, ছেলের লাশ চাই’

PinakOvijan2aপদ্মায় লঞ্চডুবি
‘বিশ হাজার টাকা চাই না, ছেলের লাশ চাই। ছেলেকে জীবিত পাওয়ার আশা ছেড়ে দিয়েছি। এখন লাশটা নিয়ে বাড়ি ফিরতে চাই। লাশটা না পাইলে অলির মাকে আমি কি বলমু?’

পদ্মা নদীর লৌহজং চ্যানেলে ডুবে যাওয়া (এমভি পিনাক-৬) লঞ্চে ছিল ছেলে অলি শেখ। ছেলেকে জীবিত ফিরে পাওয়ার আশা ছেড়ে মাওয়া ফেরিঘাটে ছেলের মৃতদেহের জন্য অপেক্ষা করছেন ষাটোর্ধ্ব বৃদ্ধ বাবা শাফী শেখ। সেখানেই তিনি নদীর পানে চেয়ে বিলাপ করতে করতে মূর্ছা যাচ্ছেন। পাশে কয়েকজন উৎসুক জনতা তাকে শান্ত করার চেষ্টা করছেন।

তিনি বলেন, ‘ছেলে আমার সঙ্গে রাগ করে ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলার শরীফাবাদ থেকে কড়ইতলা বোনের বাসায় যাচ্ছিল। অলির মা’রে আমি বইলা আসছি তোমার ছেলেরে আনতে যাচ্ছি। সে তো আর নাই, তার লাশ না পাইলে আমিতো বাড়ি ফিরতে পারমু না।’

শুধু অলির বাবা-ই নয়, পদ্মায় এমন কয়েকশ’ স্বজনহারা মাওয়া ঘাটে অপেক্ষা করছেন। স্বজন হারিয়ে তারা বিলাপ করছেন।

কিন্তু ঘটনার ৩৬ ঘণ্টা পেরিয়ে গেলেও উদ্ধার কাজে অগ্রগতি কিছুই হয়নি। এখন পর্যন্ত ডুবে যাওয়া লঞ্চের সন্ধান দিতে পারেনি উদ্ধারকারীরা।

নিখোঁজদের স্বজনরা অভিযোগ করেছেন, সরকার কিংবা প্রশাসনের পক্ষ থেকে উদ্ধার কাজে কোনো আন্তরিকতা দেখা যাচ্ছে না। তারা উদ্ধার কাজ শুরু করেছে বললেও তা কেবল লোক দেখানো।

তবে সরকার এবং উদ্ধারকারীদের পক্ষ থেকে এ অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে। উদ্ধারকারীরা বলছেন, প্রচণ্ড স্রোতের কারণে ডুবে যাওয়া লঞ্চটি ঠিক স্থানে নেই। এ কারণে ব্যাপক অনুসন্ধান করেও এর কোনো খোঁজ মিলছে না।PinakOvijan2a

লাশের অপেক্ষায় থাকা মো. সুরুজ মাতুব্বর বলেন, ‘ছোট ভাইয়ের স্ত্রী ও দুই ভাতিজি এখনও নিখোঁজ। ৩৬ ঘণ্টা পরও কারও কোনো খোঁজ নেই। সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে উদ্ধার অভিযান চলছে। আমরা যা দেখছি এটা লোক দেখানো ছাড়া আর কিছুই না।’

তিনি আরও বলেন, ‘এখন মনে হচ্ছে তাদের লাশ ছাড়াই বাড়ি ফিরতে হবে।’

মাদারীপুরের শিবচর থেকে স্বজনদের খোঁজে আসা আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘বোন, বোনের তিন সন্তান ও স্বামী ছিল এ লঞ্চে। কাউকেই আমরা খুঁজে পাইনি। এখন লাশের জন্য অপেক্ষা করছি।’

তিনি অভিযোগ করে বলেন, ‘উদ্ধার কেবল টহলের মধ্যে সীমাবদ্ধ। এখানে কোনো উদ্ধার চলছে না। এখনও লঞ্চ কোথায় তারা জানেন না। এটা কোনো বিশ্বাসযোগ্য কথা না। লাশ পেলেও সরকার বলবে না।’

বাড়ছে নিখোঁজের তালিকা

জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে করা তালিকা অনুযায়ী এখন পর্যন্ত ১২৯ জন নিখোঁজের নাম নিবন্ধিত হয়েছে। র‌্যাব-১১ এর উপ-সহকারী পরিচালক নজরুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, ‘এ তালিকা আরও দীর্ঘ হতে পারে।’

উদ্ধার অভিযানে অগ্রগতি নেই

ঘটনার পর থেকেই উদ্ধার অভিযান চলছে দাবি করা হলেও এখনও পর্যন্ত কোনো অগ্রগতি নেই। ঘটনার পর থেকেই ফায়ার সার্ভিস উদ্ধার অভিযানে নামে। এরপর নারায়ণগঞ্জ থেকে বিআইডব্লিউটিএ’র জাহাজ ‘রুস্তম’ মধ্যরাতে ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছায়। কিন্তু লঞ্চটি খুঁজে না পাওয়ায় রুস্তম অভিযান শুরু করতে পারেনি।

লঞ্চটি খুঁজে বের করার লক্ষ্যে নারায়ণগঞ্জ থেকে বিআইডব্লিউটিএ’র অপর জাহাজ ‘নির্ভীক’ ঘটনাস্থলে আসে মঙ্গলবার সকাল ১০টায়। এরপর থেকে লঞ্চ খোঁজার কাজ শুরু করলেও এখন পর্যন্ত অগ্রগতি কিছুই হয়নি। উদ্ধারকারীরা ধারণা করছেন লঞ্চটি স্রোতের কারণে মাটির নিচে চাপা পড়ে গেছে। এ কারণে লঞ্চটি খুঁজে পাওয়া সম্ভব হচ্ছে না।

বিআইডব্লিউটিএ’র পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, সমুদ্রের তলদেশে কোনো কিছু খোঁজার জন্য এ জাহাজটি ব্যবহার করা হয়।

ফায়ার সার্ভিস, বিআইডব্লিউটিএ, নৌবাহিনী, পুলিশ, র‌্যাব, সেনাবাহিনী ও এপিবিএন উদ্ধার অভিযানে কাজ করছে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) চেয়ারম্যান শামসুদ্দোহা খন্দকার বলেন, ‘আমরা ২০ কিলোমিটার জায়গাজুড়ে ডুবে যাওয়া লঞ্চটি খুঁজেছি। নদীতে প্রচণ্ড স্রোতের কারণে লঞ্চটি ডুবে যাওয়া স্থানে নেই। এ কারণেই খুঁজে পেতে সমস্যা হচ্ছে।’

নৌবাহিনীর ক্যাপ্টেন নজরুল ইসলাম বলেন, ‘সোমবার রাত থেকে বিআইডব্লিউটিএ সাইড স্ক্যানার দিয়ে খুঁজেও কোনো ইতিবাচক ফল পায়নি। নৌবাহিনীর পক্ষ থেকেও দুটি মেশিন দিয়ে কাজ চলছে। এ দুটি মেশিনের একটি ১০০ মিটার এবং অপরটি ২০০ মিটার জায়গাজুড়ে খুঁজতে পারে। কিন্তু কোনো ইতিবাচক ফলাফল আমরাও পাইনি।’

তিনি বলেন, ‘আমরা অন্তত ১৫-২০টি স্পটে খুঁজেছি।’

ফায়ার সার্ভিসের উপ-পরিচালক ভারত চন্দ্র বিশ্বাস বলেন, ‘ফায়ার সার্ভিসের পক্ষ থেকে নোঙর ফেলে খুঁজছি। আমাদের ১৪ জন ডুবুরিসহ মোট ৫৯ জন কাজ করছে।’

তিনি বলেন, ‘ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা থেকে মনে হচ্ছে, লঞ্চটি ঠিক জায়গায় নেই। স্রোতে দূরে কোথাও নিয়ে গেছে বলে ধারণা করছি।’

এ পর্যন্ত ৩টি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন মুন্সিগঞ্জ জেলার লৌহজং সার্কেলের এএসপি কুতুবুর রহমান।

তিনি আরও জানান, লাশ উদ্ধার করে মাদারীপুর জেলার শিবচর উপজেলার পাঁচচর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। এখন থেকে যত লাশ উদ্ধার হবে সেখানেই নিয়ে যাওয়া হবে বলেও জানান তিনি।

প্রসঙ্গত, এমভি পিনাক-৬ নামের একটি লঞ্চ দুই শতাধিক যাত্রী নিয়ে সোমবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে পদ্মা নদীর লৌহজং চ্যানেল এলাকায় ডুবে যায়। তীব্র স্রোত ও ঘূর্ণাবর্তে পড়ে লঞ্চটি ডুবে যায় বলে উল্লেখ করা হলেও অতিরিক্ত যাত্রীবোঝাই লঞ্চডুবির অন্যতম কারণ বলে অভিযোগ করেছেন উদ্ধার হওয়া যাত্রীরা।

এদিকে মুন্সিগঞ্জ জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ঘোষণা দেওয়া হয়েছে, উদ্ধার করা প্রতিটি লাশের পরিবারকে ২০ হাজার করে টাকা দেওয়া হবে।

দ্য রিপোর্ট

Leave a Reply