ঘাটে না গিয়ে ঢাকার দিকে গেলেন মন্ত্রী

PinkLashK1পদত্যাগ করবেন না
‘নৌ-দুর্ঘটনা রোধে ব্যর্থতায় পদত্যাগ করবেন কিনা’- সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান নিজের সাফাই গেয়ে বলেন, ‘অতীতের চেয়ে নৌ-দুর্ঘটনা অনেক কমেছে। এখন সময় হয়েছে কিভাবে তা আরও কমিয়ে আনা যায় সেই চেষ্টা করা। অবশ্যই এ কাজে মন্ত্রণালয়ের অনেক সীমাবদ্ধতা আছে। তবে আমার সময় নৌ-পথের সার্বিক অবস্থার উন্নতির কথা অস্বীকার করতে পারবেন না কেউ।’

নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান বুধবার বিকেল ৫টার দিকে মাওয়া ঘাটের অদূরে অবস্থিত সড়ক বিভাগের সার্কিট হাউজে আসেন। পদ্মায় ডুবে যাওয়া লঞ্চ উদ্ধার সংশ্লিষ্ট সরকারি কর্মকর্তাদের সঙ্গে পূর্বনির্ধারিত বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন তিনি।

দুই ঘণ্টাব্যাপী বৈঠকের পর ঘাটে অপেক্ষারত স্বজনদের কাছে যাওয়ার কথা শোনা গেলেও ঘাটের দিকে না যেয়ে ঢাকার দিকে রওনা দেন মন্ত্রী।

মন্ত্রী আসার কিছুক্ষণ পর মাওয়া ঘাটে মুন্সীগঞ্জ জেলা পুলিশের লঞ্চডুবির ঘটনায় স্থাপিত সাব-কন্ট্রোল রুমের সামনে একটি মৃতদেহ উদ্ধার করে নিয়ে আসেন স্থানীয়রা। সেই মৃতদেহ নিয়ে বিক্ষোভ মিছিলও করেন তারা।

মিছিলে অংশগ্রহণকারীদের কাছে মন্তব্য জানতে চাইলে একাধিক বিক্ষুব্ধ মানুষ সাংবাদিকদের মারতে আসেন। মন্ত্রীর বৈঠকের পর বিষয়টি তাকে অবহিত করা হয়।

মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসনের একটি সূত্র জানিয়েছে, বৈঠক শেষে ঘাটের (মাওয়া) দিকে যাওয়ার কথা থাকলেও তাৎক্ষণিকভাবে সিদ্ধান্ত হয় তিনি ঘাটে যাবেন না। কেন যাবেন না- সে বিষয়ে সূত্রটি জানায়, ঘাটে নিখোঁজ লঞ্চযাত্রীদের স্বজনরা বিক্ষুব্ধ। বিষয়টি অবহিত হওয়ার পরই এ সিদ্ধান্ত নেন মন্ত্রী।

উদ্ধার তৎপরতা তদারকির মূল স্থান মাওয়া ঘাটে না গিয়ে মন্ত্রী ঢাকার দিকে কেন গেলেন- এর জবাবে স্থানীয় এক ছাত্রলীগ নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে দ্য রিপোর্টকে জানান, স্বজনদের বিক্ষুব্ধ পরিবেশে গিয়ে বিব্রত না হতেই মন্ত্রী ঘাটের দিকে যাননি।

সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে দায়িত্বে অবহেলার কারণে মন্ত্রণালয় ও বিআইডব্লিউটিএ’র শীর্ষ কোনো কর্মকর্তার পদত্যাগ বা বরখাস্তের মতো ঘটনা ঘটেনি। এই দায় তাহলে কার? নৌমন্ত্রীকে প্রশ্ন করা হলে মন্ত্রী উল্টো প্রশ্ন করেন, শীর্ষ কর্মকর্তা বলতে কি বুঝাতে চাচ্ছেন?

সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে মন্ত্রী ও বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যানের প্রতি ইঙ্গিত করলে তিনি বলেন, ঈদের পর পাঁচ দিন পর্যন্ত লঞ্চে কঠোর নজরদারি ছিল। দুর্ঘটনাটি ঘটেছে ষষ্ঠ দিনে।

নিজের পদত্যাগ কিংবা মন্ত্রণালয় ও বিআইডব্লিউটিএ’র ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার পদত্যাগ কিংবা বরখাস্তের বিষয়টি আমলে না নিয়ে উল্টো নিজেদের সীমাবদ্ধতা এবং বিএনপির আমলে আরও বেশি দুর্ঘটনার ফিরিস্তি দিয়ে নৌপরিবহনমন্ত্রী বলেন, লঞ্চটি (পিনাক-৬) কাওড়াকান্দি থেকে মাওয়া আসার সময় কাওড়াকান্দিতে আমাদের পরিদর্শক ছিলেন। কিন্তু পথে থাকা কাঠালবাড়ি ঘাটে কোনো পরিদর্শক ছিলেন না। ওই পরিদর্শকই দু’টি ঘাট দেখাশোনা করেন। এক ব্যক্তির দুই জায়াগায় থাকা সম্ভব নয়। তবে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শাজাহান খান আরও বলেন, শরীয়তপুর, চাঁদপুর, বরিশাল ও ভোলা এই চারটি জেলা দুর্ঘটনাস্থলের ভাটিতে অবস্থিত। এ সব জেলার জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকেও সংশ্লিষ্ট নদী এলাকায় মৃতদেহ উদ্ধারে তৎপরতা চালানো হচ্ছে।

দুই ঘণ্টার দীর্ঘ বৈঠক শেষে নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান বলেন, ডুবে যাওয়া লঞ্চটি এখনও খুঁজে পাওয়া যায়নি। তবে আমাদের তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে। আশা করি, ‘কান্ডারি-২’ উদ্ধারকাজে যোগ দিলে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি হবে।

তিনি বলেন, আজ (বুধবার) দশটি লঞ্চের যাত্রী পরিবহনের পরিদর্শন রিপোর্ট আমি পেয়েছি। এর মধ্যে দু’টি লঞ্চ পরিবহন ক্ষমতার অতিরিক্ত যাত্রী নিয়েছিল। এখন থেকে নিয়মিত ও কঠোরভাবে এ রিপোর্ট নেওয়া হবে।

উদ্ধার অভিযান বিষয়ে দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করে মন্ত্রী আরও বলেন, ‘কান্ডারি-২’ উদ্ধার অভিযানে যোগ দিলে মাটির অনেক গভীরের খবরও যন্ত্রের মাধ্যমে পাওয়া যাবে। যারা ভাবছেন মাটির নিচে চলে গেলে লঞ্চটি পাওয়া যাবে না তা সঠিক নয়।

দ্য রিপোর্ট

Leave a Reply