তাৎক্ষণিক পদক্ষেপ না নেওয়ায় খোঁজ মিলছে না লঞ্চটির

launch-hoপদ্মায় লঞ্চডুবি : নেই উদ্ধার পরিকল্পনা
ঝুঁকিপূর্ণ লক্কড়-ঝক্কড় লঞ্চ, অতিরিক্ত যাত্রী বহন ও বিরূপ আবহাওয়ার কারণে প্রতিবছরই দেশে লঞ্চ বা নৌকাডুবির ঘটনা ঘটে। কিন্তু এ সব ঘটনার পরও সরকার, প্রশাসন বা নৌ-সংশ্লিষ্টরা প্রতিকার করতে পারছে না। এমনকি দুর্ঘটনার পর দ্রুত ব্যবস্থা নিতেও ব্যর্থ হচ্ছে সংশ্লিষ্টরা। এ কারণে প্রাণহানি ও ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ কমানো যাচ্ছে না। এক্ষেত্রে উদ্ধার অভিযানে লজিস্টিক সাপোর্ট ও সমন্বয়হীনতাকেই দায়ী করেছেন সংশ্লিষ্টরা।

সর্বশেষ সোমবার সকালে দুই শতাধিক যাত্রী নিয়ে পিনাক-৬ নামের একটি লঞ্চ মুন্সীগঞ্জ জেলার লৌহজংয়ের মাওয়া ঘাটের কাছে পদ্মায় ডুবে যায়। ঘটনার চার দিন পেরিয়ে গেলেও এখনও লঞ্চটির সন্ধান দিতে পারেনি উদ্ধারকারীরা। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, মূলত তাৎক্ষণিক পদক্ষেপ না নেওয়ার কারণেই খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না লঞ্চটি।

অভিযোগ উঠেছে উদ্ধার কাজে সরকার বা সংশ্লিষ্টদের আন্তরিকতার অভাব ছিল। এমনকি ঘটনার পর ২৪ ঘণ্টা পেরিয়ে যাওয়ার পর কার্যত উদ্ধার অভিযান শুরু করে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ)। এর পরও পেরিয়ে গেছে তিন দিন। অগ্রগতি বলতে কিছু নেই।

শুধু সমন্বয়হীনতাই নয়, সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের মধ্যে আন্তরিকতার অভাব থাকায় এই ধরনের দুর্যোগে সঠিক সময়ে সঠিক ব্যবস্থা নেওয়া যাচ্ছে না বলেও অভিযোগ উঠেছে।

জানা গেছে, উদ্ধারকারী জাহাজ ‘রুস্তম’ ঘটনার ১২ ঘণ্টা পর মাওয়ায় আসে। স্বজনদের অপেক্ষার পর রুস্তম আসে মধ্য রাতে। কিন্তু রুস্তম মূলত শনাক্ত হওয়া ডুবে যাওয়া লঞ্চকে টেনে তুলে। লঞ্চ শনাক্ত হয়নি বলে রুস্তম এলেও কোনো কাজ হয়নি। এর পর লঞ্চটি খোঁজার জন্য তলব করা হয় ‘নির্ভীক’ জাহাজকে। আবারও অপেক্ষা স্বজনদের। এর পর দুপুরে লঞ্চটি এসে খোঁজা শুরু করে। ততক্ষণে অনেক দেরি হয়ে গেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, প্রতিটি দুর্ঘটনার পরই সিদ্ধান্তহীনতা এবং ভুল সিদ্ধান্তের কারণে উদ্ধার কাজ ব্যাহত হয়েছে। সর্বশেষ ঘটনার ক্ষেত্রেও এমনটাই ঘটেছে। ফলে লঞ্চটি প্রচণ্ড স্রোতে অনেক দূর চলে যেতে পারে বলে উদ্ধারকারীরা জানিয়েছে। আবার এমনও হতে পারে অনেক সময় পেরিয়ে যাওয়ার কারণে পলি পড়ে লঞ্চটি মাটির নিচে চাপা পড়তে পারে। উদ্ধার অভিযান শুরু করতে অধিক সময় নেওয়ার কারণেই মূলত লঞ্চটি উদ্ধারকারীদের রেঞ্জের বাইরে চলে গেছে।

উদ্ধারকারীরা দাবি করেছে লঞ্চটি স্রোতের কারণে দূরে সরে যেতে পারে অথবা লঞ্চের ওপর পলি জমার কারণে লঞ্চটি এখনও খুঁজে পাওয়া সম্ভব হয়নি। ঠিক সময়ে কাজ শুরু করতে পারলে হয়ত লঞ্চটি খুঁজে পাওয়া যেত।

ফায়ার সার্ভিস ও বিআইডব্লিউটিএ সূত্র জানায়, উদ্ধার অভিযান পরিচালনা করার জন্য যে ধরনের লজিস্টিক সাপোর্ট দরকার তা নেই। আবার যা আছে তারও সঠিক সময়ে সঠিক ব্যবহার করা হয় না।

উদ্ধারকাজে নেতৃত্ব দানকারী নৌবাহিনীর কমান্ডার নজরুল ইসলাম দ্য রিপোর্টকে বলেন, ঘটনার পরের দিন থেকে উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন স্যুনার মেশিন (সাউন্ড নেভিগেশন অ্যান্ড রেঞ্জিং) প্রযুক্তি ব্যবহার করে লঞ্চটি খোঁজা হয়েছে। কিন্তু সন্ধান পাওয়া যায়নি। এখন চট্টগ্রাম পোর্টের জাহাজ ‘কান্ডারি-২’ লঞ্চটি শনাক্ত করার চেষ্টা করছে। এই জাহাজটির ওপর পলি পড়লেও কান্ডারি খুঁজে বের করতে পারবে। ঘটনার পর দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়া যায়নি বলে এখন লঞ্চটি খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না বলেই ধারণা করছি।’

ফায়ার সার্ভিসের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আলী আহমদ খান দাবি করেন, উদ্ধার অভিযানে যে সব কর্মীরা অংশ নেয় তারাও যথেষ্ট প্রশিক্ষিত নয়। প্রশিক্ষণের অভাবেও দুর্যোগ মোকাবেলা করা যাচ্ছে না।

ফায়ার সার্ভিসের মহাপরিচালক বলেন, কোনো ঘটনা ঘটার পর প্রথমে প্রয়োজন সমন্বয়। উদ্ধার অভিযানে সমন্বয়হীনতা দেখা দিলে সেখানে ক্ষয়ক্ষতি বা প্রাণহানি রোধ করা সম্ভব হয় না। এ কারণে সবার পূর্বে সমন্বয় প্রয়োজন।

উদ্ধারকর্মীরা যথেষ্ট প্রশিক্ষিত না দাবি করে তিনি বলেন, উদ্ধারকর্মীদের সঠিক প্রশিক্ষণ দেওয়া সম্ভব হলে উদ্ধার কাজ আরও সহজ হত। এ ধরনের দুর্যোগ মোকাবেলা করার জন্য ফায়ার সার্ভিসকে আরও লজিস্টিক সাপোর্ট দেওয়া উচিত।

বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান ড. শামসুজ্জোহা খন্দকার বলেন, আমরা নকশা অনুমোদন করি না, ফিটনেস পরীক্ষাও করি না। অতিরিক্ত যাত্রীবোঝাই করা হচ্ছে কিনা, শৃঙ্খলা মেনে চলছে কিনা, এগুলো নিয়ন্ত্রণ করি।

উদ্ধার তৎপরতার বিষয়ে তিনি জানান, সর্বোচ্চ চেষ্টা করা হচ্ছে। এখানে কোনো গাফিলতি নেই।

যে কারণে দুর্ঘটনা রোধ করা যাচ্ছে না

নৌ-দুর্ঘটনা রোধ করা যাচ্ছে না এর প্রধান কারণ হিসেবে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, নৌ-পথে চলাচলকারী পরিবহনে কোনো ধরনের তদারকি নেই। জনবলের অভাবে নৌ-পুলিশিং করা সম্ভব হচ্ছে না। এমনকি তদারকির দায়িত্বে থাকা বিআইডব্লিউটিএ এই কাজ ঠিকমতো করছে না বলে অভিযোগ উঠেছে।

আর এ কারণেই ফিটনেসবিহীন লঞ্চ যাতায়াত বন্ধ করা যাচ্ছে না। এমনকি ফিটনেসবিহীন লঞ্চে উঠছে অতিরিক্ত যাত্রী। এমনকি পিনাক-৬ লঞ্চে মালিকের ছেলে অতিরিক্ত যাত্রী উঠিয়ে নেমে যায় বলে দ্য রিপোর্টের একটি প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

এ ছাড়া এই লঞ্চটির বৈরী আবহাওয়ায় চলাচল করার অনুমতি ছিল না। গত মঙ্গলবার নৌপরিবহনমন্ত্রী শাহজাহান খানও স্বীকার করেন, জনবলের অভাবে তদারকি করা সম্ভব হচ্ছে না। যে কারণে ফিটনেসবিহীন ওই লঞ্চটি বৈরী আবহাওয়ায় চলাচল করলেও কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।

এ বিষয়ে ফায়ার সার্ভিসের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আলী আহমদ খান বলেন, ‘সব সময়ই তদারকিতে মোবাইল টিম থাকা উচিত। এ ছাড়া নৌ-পুলিশিংয়ের মাধ্যমে সার্বক্ষণিক তদারকি করা উচিত।’

দ্য রিপোর্ট

Leave a Reply