পিনাক-৬ ট্র্যাজেডি: নিখোঁজ তালিকার ৪৯ জন জীবিত!

পদ্মা নদীতে ‘এমএল পিনাক-৬’ নামের লঞ্চটি ডুবে যাওয়ার ঘটনায় সাড়ে চার ঘণ্টায় নিখোঁজের সংখ্যা প্রায় অর্ধেকে নেমে এসেছে। গত সোমবার মাওয়া ঘাটের কাছে ওই লঞ্চ ডুবির ঘটনায় কারো কারো মোবাইল ফোন বন্ধ থাকায় ‘ভুলে’ তাদের স্বজনরা নিখোঁজের তালিকায় নাম উঠিয়েছিল বলে দাবি করেছে পুলিশ।

সর্বশেষ শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে নিখোঁজ ৬৭ জনের তালিকা চূড়ান্ত করেছে মাওয়া ঘাটে স্থাপিত অস্থায়ী পুলিশ ক্যাম্প।

আর এদিন সন্ধ্যা পর্যন্ত পিনাক-৬ ডুবির ঘটনায় লাশ উদ্ধার করা হয়েছে ৪৩ জনের।

৪৩ লাশের মধ্যে হস্তান্তর করা হয়েছে ২৭টি লাশ। আর ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ করে মাদারীপুরের শিবচরে দাফন করা হয়েছে ১৫ জনের মৃতদেহ।

মুন্সিগঞ্জের মোক্তারপুরে ধলেশ্বরী নদী থেকে শনিবার সর্বশেষ উদ্ধারকৃত শিশুর লাশ শিবচরের পাচ্চর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।

এর আগে বেলা আড়াইটার দিকে মাওয়া ঘাটের পুলিশ নিয়ন্ত্রণ কক্ষে নিখোঁজের তালিকায় নাম ছিল ১২২ জনের। লাশ উদ্ধারের সংখ্যা ছিল ৪২টি। এর মধ্যে শনাক্ত ২৭টি, অজ্ঞাত হিসেবে ১২টি দাফন করা হয় শুক্রবার। অজ্ঞাত তিনটি লাশ শনিবার বাদ আছর দাফন করেন মাদারীপুর জেলা প্রশাসন।

মাওয়াঘাটে স্থাপিত পুলিশ নিয়ন্ত্রণ কক্ষের কর্তব্যরত মুন্সিগঞ্জ শ্রীনগর থানার ওসি (তদন্ত) মজিবর রহমান সন্ধ্যা পৌনে সাতটায় উদ্ধার তৎপরতার সর্বশেষ তথ্য জানান।

পুলিশ নিয়ন্ত্রণ কক্ষ থেকে মাইকে তিনি ঘোষণা দেন, নিখোঁজের তালিকায় নাম থাকা অনুসন্ধানকারী স্বজনদের মোবাইলে ফোন করে জানতে চাইলে অনেকেই বলেছেন, তারা অন্য লঞ্চ ও ফেরিতে করে নিজ নিজ গন্তব্যে গিয়েছিল।

এই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, কারো কারো মোবাইল ফোন বন্ধ থাকায় নিখোঁজ তালিকায় তাদের স্বজনরা নাম অন্তর্ভূক্ত করেছিলেন।

উদাহরণ হিসেবে তিনি বলেন, তিনজন ফেরিতে করে গোপালগঞ্জে গিয়েছিলেন।তাদের নামও তালিকায় লেখা ছিল। অথচ ফোন করে জানা যায় তারা বেঁচে আছেন। তারা একটি ফেরিতে করে সেখানে গিয়েছিলেন।

যারা নিখোঁজের নাম লিখিয়েছিলেন তাদের অনেকের কাছে নিয়ন্ত্রণ কক্ষের মোবাই নম্বর ছিল না, তাই আমাদের জানাতে পারেনি বলে জানান পুলিশ কর্মকর্তা।

জীবিতদের মধ্যে রয়েছেন জালাল হাওলাদার, রুবি, আব্দুল আজিজ, মোস্তাকি, ছৌধুরী মোল্লা, রেজাউল, রুমি আক্তার, সোহেল, রাসেল।

সদর থানার এসআই রাসেল সন্ধানপ্রার্থী এক স্বজন কাজী আনোয়ারের সঙ্গে মোবাইলে কথা বলে জানতে পারেন তার তিন স্বজন নিখোঁজ ছিলেন। এর মধ্যে হিরন নেসা (৫৬) ও আল আমিনের (২৫) লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। আর ৬ দিনেও তৃষার (২২) খোঁজ পাওয়া যায়নি। আনোয়ার শিবচরের পাচ্চর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে পুলিশ ক্যাম্পে তখন অবস্থান করছিলেন।

এদিকে লঞ্চ উদ্ধারের কোনো তথ্য নেই জানিয়ে ওসি মজিবুর বলেন, উদ্ধারকাজে অংশগ্রহণকারীরা একটা ধাতব কিছুর সন্ধান পেয়েছেন। এর বেশি আমরা আর কিছু জানি না।

পিনাক-৬ উদ্ধারকাজে অংশ নেওয়া চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের বিশেষ জাহাজ ‘কান্ডারি-২’ থেকে চিফ হাইড্রোগ্রাফার কমান্ডার মনজুর বিকেলে সাংবাদিকদের সর্বশেষ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, মাওয়াঘাটের এক কিলোমিটারের মধ্যে যে ধাতব বস্তুর সন্ধান পাওয়া গেছে তার দৈর্ঘ ১৭ মিটারের মত।

আর গত সোমবার ডুবে যাওয়া পিনাক-৬ লঞ্চটিরও দৈর্ঘ সাড়ে ১৬ মিটার। তবে পানির নিচে ওই অবজেকটির আকৃতি বিকৃত হয়েছে বলে জানান কমান্ড‍ার মনজুর।

পিনাক-৬ উদ্ধারে সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা চলছে বলে জানান চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের এই কর্মকর্তা।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর

Leave a Reply