লৌহজংয়ে চা বিক্রেতা রুহুলের ঘরে তিনটি চাঁদের আলো

ruhulLauদারিদ্রতা হার মেনেছে চা বিক্রেতা রুহুলের কাছে। অদম্য মেধা আর সাহস আলো জ্বালিয়েছে রুহুলের ভাঙ্গা ঘরে। তিনটি চাঁদের আলো ওকি মেরেছে তার ঘরে। বাবা রুহুল আমিনের স্বপ্ন অনেকটা পুরন হলেও এখনও বাকি অনেকটা ছোট মেয়ে মুন্নি এবার এইচএসসিতে লৌহজং বিশ্ব বিদ্যালয় কলেজ থেকে বিঞ্জান বিভাগ থেকে জিপিএ ৫ পেয়েছে।

বাবার স্বপ্ন মেয়ে এবার ডাক্তারী পরবে কিন্ত বাধ সেধেছে আবার সেই দারিদ্রতা। সাধ আছে তো সাধ্য নেই। বাবা রুহুল আমিন লৌহজং উপজেলার সদরে থানার গেইটে ছোট্ট একটি দোকানে সামান্য চা পান বিক্রি করে কোন রকম সংসার চালায় আর মা তাসলিমা বেগম গৃহিনী। উর্পাজনক্ষম লোক বলতে বাবা একাই সংসারের দ্বার টানছে। ৪ মেয়ে আর ১ ছেলে নিয়ে তাদের সংসার। এই সল্প আয়ে সংসার চললেও পড়াশুনা চালানোটা খুবই কষ্ট সাধ্য বিষয় এই বাজারে।

বড় মেয়ে রুবি এসএসসিতে জিপিএ ৫ পেয়ে পড়াশুনা করেন লৌহজং বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে । ২০১০ সালে বানিজ্য বিভাগ থেকে রুবি এইচএসসি পরীক্ষায় জিপিএ ৫ পেয়েছে। এরপর ব্র্যাকের সহ যোগিতায় রুবি ভারতের হায়দারাবাদে ৩ বছর পড়াশোনা করেন। রুবি বর্তমানে ঢাকায় বিবিএ করছে।
ruhulLau
মেজু মেয়ে মেরিন আক্তার ২০১২ সালে লৌহজং বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ থেকে মানবিক বিভাগে জিপিএ ৫ পেয়েছে। ছোট মেয়ে মুন্নী আক্তার ২০১৪ সাল এই বছরে একই কলেজ থেকে বিঞ্জান বিভাগে জিপিএ ৫ পেয়েছে। রুহুল আমিনের স্বপ্ন ছোট মেয়ে মুন্নি কে ডাক্তার বানাবে। কিন্তু দারিদ্রের কষাঘাত যে তার পিছু ছারছে না।

চা বিক্রেতা রুহুল আমিন জনান, আমার তিন মেয়ে কে এই পর্যন্ত আনার পেছনে আমার আত্মীয় স্বজন, ব্র্যাক ও শিক্ষকদের যথেষ্ট ভুমিকা রয়েছে। তিন মেয়ের অদম্য মেধা আর জিপিএ ৫ পেয়ে হাসি ফুটিয়েছে বাবা মার মুখে। এই পরিবারের তিনটি মেয়ে বরাবর জিপিএ ৫ পেয়ে সবার চোখে তাক লাগিয়ে দিয়েছে। চাহিদা মতো জোগার হয়নি বই ও পোশাক। তবুও দমে যায়নি ওরা। হার মানেনি দরিদ্র্যের কাছে।

এ সাফল্যে তাদের দুচোখে এখন এগিয়ে যাওয়ার স্বপ্ন। এপরও অর্থাভাবে উচ্চ শিক্ষা ও লেখাপড়া চালিয়ে যাওয়া নিয়ে সংশয়ে পড়েছে অদম্য এসব মেধাবী ও তাদের পরিবারের সদস্যরা।

বাংলাপোষ্ট

Leave a Reply