পিনাক-৬: তদন্তে আরো সময় চায় কমিটি

pinakDমুন্সীগঞ্জের পদ্মায় পিনাক-৬ ডুবে যাওয়ার ঘটনায় নির্ধারিত সময়ের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিতে পারছে না নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের তদন্ত কমিটি।

কমিটির প্রধান যুগ্ম সচিব নুর-উর-রহমান জানান, সোমবার প্রতিবেদন জমা দেয়ার দিন ছিল। কিন্তু তদন্তটি সুষ্ঠু ও সঠিকভাবে সম্পন্ন করতে আরো সময় প্রয়োজন।

“তাই কমিটির সকলে একমত হওয়ায় আরো সাত থেকে ১০দিন সময় বৃদ্ধির জন্য সোমবার আবেদন করা হবে বলে।”

গত ৪ অগাস্ট দুই শতাধিক যাত্রী নিয়ে পিনাক-৬ ডুবে যাওয়ার পরপরই সাত সদস্য বিশিষ্ট উচ্চ পর্যায়ের এই তদন্ত কমিটি গঠন করে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়।

১৩ প্রত্যক্ষদর্শীসহ এ পর্যন্ত ২৫ জনের স্বাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়েছে জানিয়ে কমিটির প্রধান বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “বেঁচে যাওয়া যাত্রীরা যারা স্বাক্ষ্য দিয়েছেন তারা বলেছেন, অতিরিক্ত যাত্রীর কারণেই লঞ্চটি ডুবেছে। তারা তাদের স্বজনহারানোর বেদনার কথা বলেছেন। বলেছেন লঞ্চ ডুবে আর কারো যেন প্রাণহানি না ঘটে।

“আমাদের প্রতিবেদনে লঞ্চ দুর্ঘটনার কারণ, ব্যবস্থাপনা ও কারিগরি ত্রুটি, সুপারিশ সবকিছুই তুলে ধরবো। কারণ আমরাও আর কারো কান্না শুনতে চাই না।”

তদন্ত কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- বুয়েটের শিক্ষক প্রকৌশলী গৌতম কুমার সাহা, সমুদ্র পরিবহন অধিদপ্তরের ম্যাজিস্ট্রেট সাইফুল হাসান, বিআইডব্লিউটিএর প্রকৌশলী ফিরোজ আহমেদ, বিআইডব্লিউটিসির প্রতিনিধি আব্দুল রহিম তালুকদার ও মুন্সীগঞ্জে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো.নজরুল ইসলাম সরকার এবং কমিটির সদস্য সচিব সমুদ্র পরিবহন অধিদপ্তরের চিফ ইঞ্জিনিয়ার ও সার্ভেয়ার ক্যাপটেন জসিম উদ্দিন।

এদিকে, লঞ্চডুবির ঘটনায় বিআইডব্লিউটিএ’র করা মামলায় লঞ্চের মালিক আবু বক্কর সিদ্দিক কালু ও তার ছেলে ওমর ফারুক লিমনকে সোমবার আবার মুন্সীগঞ্জ আদালতে তোলা হবে। বিচারিক হাকিম হারুন অর রশিদের আদালতে তাদের রিমান্ডের শুনানি হওয়ার কথা রয়েছে।

দুই আসামিকেই সাত দিন করে হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের আবেদন করেছে লৌহজং থানা পুলিশ।

গত ১৪ অগাস্ট বুধবার ভোরে চট্টগ্রামের আগ্রাবাদ হাইজিং এলাকা থেকে পলাতক লঞ্চ মালিক আবু বকরকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। পরের দিন শুক্রবার রাজধানীর খিলক্ষেতের একটি বাসা থেকে গ্রেপ্তার করা হয় মামলার তিন নম্বর আসামি ওমর ফারুক লিমনকে (২৭), যিনি ওই লঞ্চের টিকিট বিক্রিসহ সার্বিক তদারকির দ্বায়িত্বে ছিলেন।

ওই ঘটনায় বেপরোয়া যান চলাচল, ভাড়ার জন্য অতিরিক্ত যাত্রী বহন ও অবহেলাজনিত মৃত্যুর অভিযোগ এনে পিনাকের মালিক আবু বকর, তার ছেলে, লঞ্চের সারেং ও সুকানিসহ ছয় জনের বিরুদ্ধে লৌহজং থানায় মামলাটি করেন বিআইডব্লিউটিএর পরিবহন পরিদর্শক জাহাঙ্গীর ভূইয়া।

সরকারি তথ্য অনুযায়ী, লঞ্চডুবির পর এ পর্যন্ত নদীর ভাটিতে বিভিন্ন স্থান থেকে মোট ৪৮টি লাশ উদ্ধার হয়েছে। নিখোঁজ রয়েছে ৬১ জন।

লঞ্চমালিক সিদ্দিক মেদিনীমণ্ডল ইউনিয়ন বিএনপির সহসভাপতি। তার বাড়ি মাওয়া ঘাটের কাছে দক্ষিণ মেদিনীমণ্ডল গ্রামে।

মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌপথে ‘মাওয়া এক্সপ্রেস’ লঞ্চের মালিকানাতেও তার অংশীদারিত্ব আছে বলে লঞ্চ মালিক সমিতির নেতারা জানান।

দুর্ঘটনার আট দিনেও তলিয়ে যাওয়া লঞ্চের অবস্থান সনাক্ত করতে না পারায় গত ১১ অগাস্ট তল্লাশি অভিযান সমাপ্ত ঘোষণা করে কর্তৃপক্ষ।

বিডিনিউজ

Leave a Reply