তদন্তের সময় ফের ৭ কার্য দিবস বাড়ানো হলো

pinakDপিনাক-৬ লঞ্চডুবি
মাওয়ার পদ্মায় পিনাক-৬ লঞ্চডুবির তদন্ত কমিটির মেয়াদ আরও ৭ কার্য দিবস বাড়ানো হয়েছে। বুধবার দ্বিতীয় দফা সময় শেষের দিন আরেক দফা সময় চেয়ে আবেদন করলে নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয় এ সময় বৃদ্ধি করে। আইনী জটিলতার কারণে গ্রেফতারকৃত লঞ্চ মালিক ও তার পুত্রের সাক্ষ্য নিতে না পারায় এই সময় বাড়ানো হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন খান।

সাত সদস্যবিশিষ্ট সরকারের এই তদন্ত কমিটির প্রধান যুগ্ম সচিব নুর-উর-রহমান নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব বরাবর সময় বৃদ্ধির যুক্তি তুলে ধরে বুধবার এ আবেদন করেন। এদিকে লঞ্চ মালিক সমিতির মনিটরিংয়ের দায়িত্বে থাকা কাওড়াকান্দির দু’জন ও কাঠাঁলবাড়ি লঞ্চ ঘাটের দু’জনের সাক্ষ্য নেয়া হয়েছে মঙ্গলবার। এই নিয়ে তদন্ত কমিটি ৩৫ জনের সাক্ষ্য গ্রহন করেছে। ঢাকার সমুদ্র পরিবহন অধিদফতরে দেশের একমাত্র মেরিন কোর্টে লঞ্চ মালিক আবু বক্কর কালু ও তার পুত্র ওমর ফারুক লিমনকে হাজির করা হলে আদালতটির অনুমতি সাপেক্ষে সাক্ষ্য গ্রহণ করা হবে।

তদন্ত কমিটির সদস্য সমুদ্র পরিবহন অধিদফতরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাইফুল ইসলাম জানান, শুধু সাক্ষ্য গ্রহণের মধ্যেই এই তদন্ত সীমাবদ্ধ নেই। নথিপত্র, রেজিস্ট্রেশন, সার্ভে সনদ, আবহাওয়া রিপোর্ট, নদীর ঢেউ, লঞ্চের নকসা সংশ্লিষ্ট সবই পর্যবেক্ষণ ও বিবেচনা করা হচ্ছে। কারা কারা এই মর্মান্তিক দুর্ঘটনার জন্য দায়ী ও শাস্তিযোগ্য অপরাধ করেছে তা সবই সুষ্ঠুভাবে শনাক্ত করা হচ্ছে।

কমিটির সদস্য বুয়েটের শিক্ষক প্রকৌশলী গৌতম কুমার সাহা নক্সায় ত্রুটি নিয়ে কাজ করছেন। তবে লঞ্চটি উঠাতে পারলে টেকনিক্যাল অনেক কিছু পাওয়া যেত। অনুমোদিত নক্সা অনুযায়ী লঞ্চটি বাস্তবে মিল ছিল কিনা।
সাত সদস্যবিশিষ্ট উচ্চ পর্যায়ের এই তদন্ত কমিটির প্রধান যুগ্ম সচিব নুর-উর-রহমান ছাড়া অন্য দস্যরা হচ্ছেন- বুয়েটের শিক্ষক প্রকৌশলী গৌতম কুমার সাহা, সমুদ্র পরিবহন অধিদফতরের ম্যাজিস্ট্রেট সাইফুল ইসলাম, বিআইডব্লিউটিএ’র ইঞ্জিনিয়ার ফিরোজ আহমেদ, বিআইডব্লিউটিসির প্রতিনিধি আব্দুর রহিম তালুকদার ও মুন্সীগঞ্জে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোঃ নজরুল ইসলাম সরকার এবং কমিটির সদস্য সচিব সমুদ্র পরিবহন অধিদফতরের চিফ ইঞ্জিনিয়ার ও সার্ভেয়ার ক্যাপটেন জসিম উদ্দিন।

জনকন্ঠ

Leave a Reply