আওয়ামী লীগ জাপান শাখার পূর্ণাঙ্গ কমিটির নাম ঘোষণা

al japanরাহমান মনি: নেতাকর্মীদের প্রত্যাশা পূরণ করে অবশেষে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ জাপান শাখার পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। নতুন কমিটি দায়িত্ব পাবার পর দীর্ঘ কয়েক মাস বিভিন্ন সভা, যাচাইবাছাই করে ৭১ সদস্যবিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটির সদস্যদের নাম ঘোষণা করেন নতুন কমিটিতে দায়িত্বপ্রাপ্ত সভাপতি সালেহ্ মো. আরিফ। গত ১০ আগস্ট রোববার টোকিওর কিতা সিটি হিগাশি তাবাতা চিইকি শিনকোউশিৎসুতে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে তিনি এ ঘোষণা দেন।

সংবাদ সম্মেলনে স্থানীয় প্রবাসী মিডিয়া এবং বাংলাদেশ হতে প্রকাশিত প্রিন্ট মিডিয়ার স্থানীয় কর্মীবৃন্দ, দলের অনুসারীগণ ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির দায়িত্বপ্রাপ্ত স্বাস্থ্য এবং জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ডা. বদিউজ্জামান ভূঁইয়া ডাবলু।

বিমান কুমার পোদ্দারের সূচনা বক্তব্যের পর নির্বাচন প্রক্রিয়ার ওপর সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন সনত বড়–য়া। তিনি বলেন, ২০১১ টোকিওর কোইওয়াতে দলের এক সাধারণ সভাতে প্রাক্তন সভাপতি কাজী মাহ্ফুজুল হককে প্রধান করে ৯ সদস্যবিশিষ্ট সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি করে নির্বাচন সংক্রান্ত সর্বময় ক্ষমতা প্রদান করা হয়। কমিটি একাধিক সভা করে জাপানের আর্থ-সামাজিক প্রেক্ষাপটে এবং জাপানের স্থানীয় আইন মেনে বিভিন্ন জটিলতায় বাস্তব প্রেক্ষাপটে কমিটির অধিকাংশ সদস্যের উপস্থিতি এবং বাকিদের সম্মতিতে সর্বসম্মতভাবে সালেহ্ মো. আরিফ এবং খন্দকার আসলাম হিরাকে যথাক্রমে সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক হিসেবে চূড়ান্তভাবে বাছাই করা হয়। সেই সঙ্গে ৭১ সদস্যবিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণার দায়িত্ব অর্পণ করা হয়। ১০ নভেম্বর ২০১৩তে এ দায়িত্ব অর্পণ করা হয়।
al japan
কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন, মোঃ হারুন অর রশীদ, মাসুদুর রহমান, বিমান কুমার পোদ্দার, বাদল চাকলাদার, মোল্লা মো. অহিদুল ইসলাম, সলিমুল্লাহ্ কাজল, পার্থ সারথি বড়–য়া এবং শেখ এমদাদ। এদের মধ্যে শেখ এমদাদ এবং পার্থ সারথি বড়–য়া বিভিন্ন সভায় অনুপস্থিত থেকে নিষ্ক্রিয় হয়ে যান এবং সলিমুল্লাহ্ কাজল বাংলাদেশে অবস্থান করায় লিখিতভাবে তার সম্মতির কথা জানান।

সংবাদ সম্মেলন পরিচালনা করেন দায়িত্বপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক খন্দকার আসলাম হিরা। শেষ পর্যায়ে তাকে সহযোগিতা করেন কবি মোতালেব শাহ আইউব প্রিন্স। মঞ্চে এ সময় উপবিষ্ট ছিলেন সালেহ্ মো. আরিফ, খন্দকার আসলাম হিরা এবং কেন্দ্রীয় কমিটির ডা. বদিউজ্জামান ডাবলু।

নতুন কমিটির নাম ঘোষণার পূর্বে এক বক্তব্যে ডা. বদিউজ্জামান বর্তমান সরকারের ভূয়সী প্রশংসা এবং বিগত দিনে চারদলীয় জোটের সমালোচনা করে দলীয় বক্তব্য রাখেন।

ডা. বদিউজ্জামানের বক্তব্যের পর সভাপতি আরিফ নতুন কমিটিতে স্থান পাওয়াদের পদবিসহ একে একে নাম ঘোষণার আগে যোগ্যতার মাপকাঠি সম্পর্কে বলেন, বিগত দিনে দলের কার্যক্রমে অংশগ্রহণ, দলের প্রতি নিষ্ঠা, ত্যাগ এবং জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রতি অবিচল থাকার যোগ্যতাকে প্রাধান্য দেয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ৪০০ সদস্যের ফরম আমাদের হাতে আসে। তিনটি ক্যাটাগরিতে (প্রাথমিক সদস্যর জন্য আবেদন, নবায়ন এবং পুনঃ আবেদন) এই আবেদনকারীদের মধ্য থেকে বিভিন্ন যাচাইবাছাইয়ে প্রায় ৫০টি ফরম ভুয়া বলে প্রমাণিত হয়। যারা অন্য দলের সদস্য হিসেবে প্রমাণিত সত্য। অথচ নির্বাচনী বৈতরণী পার হবার জন্য এসব লোককে দলের সদস্য বানানো হয়।

সালেহ্ মোঃ আরিফ বলেন, ৩৫০ সদস্যের প্রায় সকলেই পদ পাবার যোগ্য। কিন্তু বিদেশ কমিটি মানে জেলা কমিটির (গঠনতন্ত্র অনুযায়ী) পদের সংখ্যা মাত্র ৭১টি। কাজেই কাউকে বাদ দেয়া ছিল দুরূহ একটি কাজ। কিন্তু অপ্রিয় হলেও তা করতে হয়েছে। তবে কমিটিতে যারা বাদ পড়েছেন তারা অযোগ্য, এটা ভাববার অবকাশ নেই। আওয়ামী লীগের প্রতিটি কর্মীই নেতৃত্ব দেবার যোগ্য বলে আমি মনে করি।

এরপর সভাপতি আরিফ ৭১ সদস্যবিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটির সদস্যদের নাম ঘোষণা করলে হলভর্তি নেতাকর্মীগণবিপুল করতালির মাধ্যমে স্বাগত জানান।

পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে সভাপতি সালেহ্ মো. আরিফ, সাধারণ সম্পাদক খন্দকার আসলাম হীরা, সাংগঠনিক সম্পাদক মাসুদুর রহমান, প্রচার সম্পাদক পার্থ সারথি বড়–য়া এবং দফতর সম্পাদক হিসেবে মো. মাসুদ আলমের নাম স্থান পায়। এছাড়াও ৯ জন সহসভাপতি, ৩৪ জন কার্যকরী সদস্য পদ মনোনীত করা হয়। পূর্ণাঙ্গ কমিটি নাম ঘোষণা শেষে নেতৃবৃন্দ সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন।

এক প্রশ্নের জবাবে কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ডা. বদিউজ্জামান বলেন, এই কমিটিকে কিছুতেই প্রস্তাবিত কমিটি বলা যাবে না। এটাই মূল কমিটি। আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্র মেনে যথাযথ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে এ কমিটি গঠিত হয়েছে। আমি নির্বাচন প্রক্রিয়ার সব ডকুমেন্ট দেখেছি, অনেকের সঙ্গে কথা বলেছি, ১০০% নিশ্চিত হওয়ার পর আমি এখানে এসেছি। নতুবা আসতাম না। যারা আওয়ামী রাজনীতি করতে চান জাপানে, তাদেরকে পরবর্তী কমিটি গঠিত না হওয়া পর্যন্ত এই কমিটির অধীনেই কাজ করতে হবে। তিনি বলেন, আপনি আওয়ামী রাজনীতি করবেন আর গঠনতন্ত্র মানবেন না, প্রক্রিয়া অনুসরণ করবেন না, এটা তো হতে পারে না। শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার জন্য তিনি একই পতাকাতলে কাজ করার অনুরোধ জানান।

সাম্প্রতিক পদ্মায় লঞ্চডুবিতে বহু প্রাণহানি, প্রবাসী মো. আবদুল হানিফ এবং ১৫ ও ২১ আগস্ট শহীদদের আত্মার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে সভার শুরুতে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply