খাজনার চিঠি পেয়ে আনন্দ!

padmaaলৌহজংয়ে পদ্মার চর
ভূমি মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার পদ্মা নদীর চরে জেগে ওঠা জমির মালিকদের কাছ থেকে খাজনা নিতে চিঠি দিয়েছে প্রশাসন। আগামীকাল রবিবার থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে এ খাজনা নেওয়া শুরু হচ্ছে। এতে করে বাপ-দাদার ভিটে-বাড়ি-জমি ফিরে পেতে যাওয়া জমির মালিকদের মধ্যে আনন্দের বন্যা বইছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ১৯৯৪ সালের দিকে লৌহজংয়ের পদ্মায় ব্যাপক ভাঙন দেখা দেয়। ভাঙনে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, তিনটি সরকারি খাদ্য গুদাম, দিঘলী বন্দর, টিএনটি ভবন, পশু হাসপাতাল, থানা ভবন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মসজিদ, মাদ্রাসাসহ অসংখ্য স্থাপনা ও শত শত একর ফসলি জমি ও বাড়িঘর বিলীন হয়ে যায়। কয়েক বছর পর আবার এসব জমি পদ্মার বুকে জেগে উঠে। জেগে ওঠা জমির খাজনা দিতে গেলে সংশ্লিষ্ট ভূমি অফিস তা নিতে অপারগতা প্রকাশ করে। ২০০৮-০৯ অর্থ বছরে সরকার দিয়ারা জরিপের মাধ্যমে এসব জেগে ওঠা জমি খাসজমিতে রেকর্ডভুক্ত করে। এ নিয়ে জমির মালিকরা উচ্চ আদালতে মামলা করেন। মামলার রায় জমির মালিকদের পক্ষে যায়। উচ্চ আদালতের নির্দেশে ভূমি অফিস একবার খাজনা নিলেও পরবর্তী সময়ে তা আবার বন্ধ করে দেয়। এতে জমির মালিকদের মধ্যে ক্ষোভ বাড়তে থাকে। তাঁরা মানববন্ধনসহ বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেন।

এ নিয়ে গত ১৪ জুলাই স্থানীয় সংসদ সদস্য সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি ভূমিমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। তিনি জমির মালিকদের পক্ষে যুক্তি তুলে ধরেন। অন্য দিকে জমির মালিকদের পক্ষ থেকে গত ১৫ জুলাই উচ্চ আদালতে একটি রিট করা হয়। রিটে মুন্সীগঞ্জের ডিসি, এডিসি রাজস্বসহ তিনজনের কাছে খাজনা না নেওয়ার কারণ দুই সপ্তাহের মধ্যে জানাতে বলা হয়। এ মাসের গোড়ার দিকে ভূমি মন্ত্রণালয় একটি চিঠি দিয়ে চরের প্রকৃত জমির মালিকদের কাছ থেকে খাজনা নিতে সংশ্লিষ্ট ভূমি অফিসকে নির্দেশ দেয়। ভূমি মন্ত্রণালয়ের চিঠি পাওয়ার পর খাজনা পরিশোধের জন্য জমির মালিকদের নোটিশ দিতে শুরু করে স্থানীয় ভূমি অফিস। কিন্তু এ নিয়ে জমির মালিকদের মধ্যে সন্দেহ থাকায় তাঁদের মধ্যে খাজনা দেওয়া নিয়ে দ্বিধা-দ্বন্দ্ব ছিল। গত বৃহস্পতিবার তাঁরা সংশ্লিষ্ট ভূমি কর্মকর্তার সঙ্গে আলাপ করে সন্দেহ দূর করেন।

লৌহজং উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আবুল কালাম বলেন, ‘ভূমি মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে আমরা খাজনা নিতে শুরু করেছি। তবে দিয়ারা জরিপ বাতিল হচ্ছে না। বরং সংশোধন করা হচ্ছে। রেকর্ডপত্রের কাগজ দিয়ে যেসব মালিক খাজনার জন্য আবেদন করবে, যাচাই করে সব কিছু ঠিক থাকলে তাদের জমি দিয়ারা জরিপের রেকর্ড থেকে বাদ দিয়ে আগের রেকর্ডে খাজনা নেওয়া হবে। বিষয়টি সঠিকভাবে বুঝতে পেরে এখন জমির মালিকরা খাজনা দিতে আগ্রহ প্রকাশ করছেন।’

উচ্চ আদালতে রিটকারী আল সামস বলেন, ‘দিয়ারা জরিপ বাতিল না হওয়ায় আমাদের মধ্যে একটু সংশয় ছিল। যেহেতু আমাদের জমি দিয়ারা জরিপের রেকর্ড থেকে বাদ দেওয়া হবে, তাই খাজনা দিতে এখন আর সমস্যা নেই।’

কালের কন্ঠ

Leave a Reply