মুক্তারপুরে পুলিশের ওপর হামলা করার প্রেক্ষিতে মামলা

muktarpurconstableমুন্সীগঞ্জ শহরের উপকণ্ঠ পঞ্চসার ইউনিয়নের মুক্তারপুর পুরাতন ফেরিঘাট এলাকা থেকে ইয়াবা দিয়ে মাসুদ রানা (৪০) নামের ১ যুবককে গ্রেফতারের ঘটনায় পুলিশের ওপর হামলা করার প্রেক্ষিতে মামলা করে পুলিশ। এ মামলায় মাসুদ রানা ও তার দুলাভাই সদর উপজেলা যুবদলের সহ-সভাপতি মো. সিরাজুল ইসলামসহ ৪ জনকে আসামি করা হয়েছে। এ ছাড়াও অজ্ঞাতনামা আরও ১০০-১৫০ জনকে আসামি করা হয়েছে।

ঘটনার দিন রাত সাড়ে ১১টার দিকে মুক্তারপুর নৌ-পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই মোশারফ হোসেন বাদী হয়ে মাদক বিক্রেতাকে ছিনিয়ে নেওয়া ও পুলিশের ওপর হামলার অভিযোগ এনে মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা করা হয়েছে নুরুল ইসলাম সৈকতকে।

গত শুক্রবার বিকেলে ২০০ পিস ইয়াবা দিয়ে ম্যানেজার মাসুদ রানাকে মুক্তারপুর নৌ-পুলিশ ফাঁড়ির পুলিশ গ্রেফতার করে। নিরীহ ম্যানেজার মাসুদ রানাকে গ্রেফতার করায় স্থানীয়রা পুলিশের ওপর হামলা করে নিছিয়ে নিয়ে যায় তাকে। এ সময় পুলিশ কনস্টেবল (১৬৭-নং) আল-আমিন (৩৫) ডান হাত ভেঙে যায়। তাকে মুন্সীগঞ্জ সদর জেনারেল হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়ার পর ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনার পর পুলিশের গ্রেফতার অভিযান শুরু হলে এখন পর্যন্ত মুক্তারপুর এলাকা পুরুষশূন্য হয়ে রয়েছে এবং মুক্তারপুর এলাকার সাধারণ মানুষের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

এদিকে, পুলিশের ওপর হামলার ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে সন্ধ্যা ৬টার দিকে মো. জয়নাল আবেদীনকে (৫০) গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তাকে গতকাল শনিবার আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ঘটনা থেকে মুক্তারপুর এলাকার সাধারণ মানুষের মধ্যে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। ওই ঘটনায় মুন্সীগঞ্জের নতুন পুলিশ সুপার বিজয় বিপ্লব তালুকদারসহ সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন জেলার বিভিন্ন শ্রেণী-পেশাজীবী সাধারণ মানুষ।

মাসুদ রানাকে ইয়াবা দিয়ে গ্রেফতারের বিষয়টি অস্বীকার করে মুক্তারপুর নৌ-পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই মোশারফ হোসেন বলেন, মুক্তারপুর পুরাতন ফেরিঘাট এলাকা থেকে ইয়াবা ব্যবসায়ী মাসুদ রানাকে ২০০ পিস ইয়াবসহ গ্রেফতার করে পুলিশ। গ্রেফতারের পর পরই এলাকার ১০০-১৫০ জন দুস্কৃতিকারী পুলিশ সদস্যদের ঘেরাও করে পিটিয়ে এক পুলিশ সদস্যের ডান হাত ভেঙে দিয়ে গ্রেফতারকৃত মাদক বিক্রেতাকে ছিনিয়ে নিয়ে যায়।

স্থানীয় সূত্র জানিয়েছিল, মাসুদ রানা মুক্তারপুর এলাকার একটি সুতার মিলের ম্যানেজার। মুক্তারপুর পুলিশ ফাঁড়ির সদস্যরা দীর্ঘদিন ধরে নানা শ্রেণী-পেশার লোকদের ধরে মাদক দিয়ে চালান করে দেয়ার ভয় দেখিয়ে টাকা-পয়সা হাতিয়ে নিচ্ছে। পুলিশের বিরুদ্ধে যারা প্রতিবাদ করে তাদের এভাবেই হয়রানির শিকার হতে হয়। মাসুদ রানার ভগ্নিপতি সদর উপজেলা যুবদলের সহ-সভাপতি মো. সিরাজুল ইসলাম জানিয়েছিলেন, তার শ্যালক কোনো মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত নয়। সে মুক্তারপুর এলাকার একটি সুতার মিলের ম্যানেজার। মুক্তারপুরে বিএনপির একটি প্রভাবশালী পরিবারের দ্বন্দ্ব চলছে। বাড়িতে চুরির ঘটনাকে কেন্দ্র করে পরিবারের সদস্যরা দু’ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছে। এ বিভক্তের কারণে সেখানে পুলিশ দিয়ে হয়রানি করা হচ্ছে বলেও দাবি করেন তিনি। কিন্তু মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত না থাকায় চাকরিজীবী এবং সৎ চরিত্রের লোক হওয়ায় মাসুদ রানাকে পুলিশের কাছ থেকে ছিনিয়ে নেওয়ার ঘটনায় মাসুদ রানা ও তার দুলাভাই মো. সিরাজুল ইসলামকে এজাহারভুক্ত আসামি করে এবং মো. জয়নাল আবেদীনকে পুলিশের ওপর হামলার অভিযোগ এনে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

এ ছাড়া এই মামলার পূর্বে মাসুদ রানার নামে কোনো মামলা মোকদ্দমা বা একটি জিডিও নেই বলে দাবি করেছেন তার স্ত্রী সীমা আক্তার।

এ বিষয়ে মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি, তদন্ত) মো. ইয়ারদৌস হাসানের কাছে জানতে চাইলে তিনি কোনো কথা না বলে ফোনটি কেটে দিয়েছিলেন। তার কারণ নিছুক দুর্ঘটনাকে কেন্দ্র করে সাধারণ মানুষকে হয়রানি করেন (ওসি, তদন্ত) মো. ইয়ারদৌস হাসান। বিএনপি সমর্থক হিসেবে পরিচিত এ পুলিশ অফিসার মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় দ্বিতীয় বারের মতো পোস্টিং নিয়ে নানাভাবে চাঁদাবাজি করছে বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ। এর আগে শহরের কোর্টগাঁও এলাকার আওয়ামী লীগ কর্মী ও শহর ব্যবসায়ী সমিতির বর্তমান সভাপতি মো. আরিফুর রহমানের ছোট ভাই মো. ফরহাদ হোসেন আবিরের নিকট থেকে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা নেয়। পরে আবির এ বিষয়ে তৎকালীন পুলিশ সুপার মো. হাবিবুর রহমানের কাছে (ওসি, তদন্ত) মো. ইয়ারদৌস হাসানের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দিলে ওই টাকা তিনি ফেরত দিয়েছে বলে জানিয়েছেন মো. ফরহাদ হোেেসন আবির।

এ ছাড়াও সদর থানায় মামলা এন্ট্রি, চার্জশিট থেকে নাম বাদ দেয়া, নিরীহ সাধারণ মানুষদের বিভিন্ন মামলার আসামি করার ভয়সহ নানাভাবে নগদ অর্থ হাতিয়ে নেয়ারও অভিযোগ রয়েছে মো. ইয়ারদৌস হাসানের বিরুদ্ধে।

এবিনিউজ

Leave a Reply