অব্যাহতি পাচ্ছে পদ্মাসেতুর মামলার আসামিরা

dudakতদন্ত প্রতিবেদন কমিশনে জমা
পদ্মা সেতু প্রকল্পে দুর্নীতির ষড়যন্ত্রে অভিযোগ করা মামলার আসামিদের অব্যাহতির সুপারিশ করে পাঠানো তদন্ত প্রতিবেদন দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) জমা হয়েছে। সোমবার সকালে সংশ্লিষ্ট মহাপরিচালকের কাছ থেকে কমিশনে জমা দেওয়া হয়েছে বলে শীর্ষ নিউজকে নিশ্চিত করেছেন দুদক চেয়ারম্যান মো. বদিউজ্জামান।

এদিকে তদন্তকারী কর্মকর্তার সুপারিশ অনুযায়ী যদি দুদক এ মামলার আসামিদের অব্যাহতি দিয়ে বিষয়টি নথিভুক্ত করে, তাহলে দুদক প্রশ্নের সম্মুখিন হতে পারে বলে মনে করেছেন টিআইবি।

দুদক চেয়ারম্যান জমা দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে শীর্ষ নিউজকে বলেন, পদ্মা সেতু প্রকল্পে দুর্নীতির ষড়যন্ত্রের অভিযোগ করা মামলার তদন্ত প্রতিবেদনটি কমিশনে আজ জমা পরেছে। ইতোমধ্যে কমিশনার সাহাবুদ্দিন চপ্পুর যাচাই-বাছাই শেষে কমিশনার নাসির উদ্দিনের নিকট এসে পৌঁছেছে। আগামীকাল আমার হাতে হওতবা প্রতিবেদনটি আসতে পারে। তবে এখনো পর্যন্তু প্রতিবেদনটি আমার হাতে পৌঁছায়নি। তাই তদন্তকারী কর্মকর্তা কি সুপারিশ করেছে বা রিপোর্টে কি কি উল্লেখ করেছে তা এই মুহুর্তে বলতে পারছি না। তবে কাল (মঙ্গলবার) আমার হাতে পৌঁছালে প্রতিবেদন অনুযায়ী আমরা যেকোন একটি সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবো।

“আমরা শুনেছি উপযুক্ত তথ্য-প্রমানের অভাবে ওই তদন্ত প্রতিবেদনে মামলার আসামিদের অব্যাহতি প্রদানের জন্য সুপারিশ করা হয়েছে। তাহলে কমিশন কি তাদের অব্যাহতি দিয়ে মামলাটি নথিভুক্ত করতে যাচ্ছে?” এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলে, আমি এই মুহূর্তে কিছু বলতে পারছি না। তবে কাল যে কোন একটা সিদ্ধান্তে যেতে পারি। তবে এ মামলার তদন্তের সময় অনেক তথ্য প্রমাণ আনার চেষ্টা করেছি, কিন্তু আদালতে প্রমাণ করার মতো কোনো তথ্য পাইনি। তাই এ মামলার তদন্ত কাজ এফআরটি (নথিভুক্ত) হওয়ার সম্ভাবনায় বেশি।

দুদক সূত্র জানায়, গত রোববার এ মামলার তদন্ত প্রতিবেদন সংশ্লিষ্ট মহাপরিচালকের নিকট জমা দিয়েছেন তদন্ত কর্মকর্তা ও উপ-পরিচালক মির্জা জাহিদুল ইসলাম। ওই প্রতিবেদনে এ মামলার কার্যক্রম বন্ধ করার সুপারিশ করে সেতু বিভাগের সাবেক সচিব মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া ও কানাডার এসএনসি-লাভালিনের দুই কর্মকর্তাসহ মামলার সাত আসামিকে অব্যাহতি দিতে বলা হয়েছে। সেই সঙ্গে সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন ও সাবেক পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আবুল হাসান চৌধুরীও এ মামলা থেকে রেহাই পাচ্ছেন।

তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়, পর্যাপ্ত তথ্যপ্রমাণ ও নিরপেক্ষ সাক্ষীর অভাবে মামলাটি প্রতিষ্ঠিত হয়নি। মামলার এফআরটির সুপারিশ করা হলেও ভবিষ্যতে তথ্য প্রমাণ পাওয়া গেলে মামলার কার্যক্রম ফের চালু করা হবে। প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, ভবিষ্যতে কানাডিয়ান নির্মাণ প্রতিষ্ঠান এসএনসি-লাভালিনের প্রয়োজনীয় রেকর্ডপত্র ও ওই প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা রমেশ শাহের ডায়েরি (যেখানে ঘুষের তালিকা রয়েছে) কখনো পাওয়া গেলে মামলাটি ফের চালু করা হবে। এ ছাড়া নতুন করে মামলা দায়েরও করা হতে পারে। প্রতিবেদনে মামলাটি প্রতিষ্ঠিত না হওয়ার পক্ষে যুক্তি তুলে ধরে ডজনখানেক সুপারিশ তুলে ধরা হয়েছে।

এদিকে ট্রান্সপেরেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান শীর্ষ নিউজকে বলেন, দুদক যদি আসামিদের এ মামলা হতে অব্যাহতি দেয় তাহলে ভবিষতে অনেক প্রশ্নের সম্মুখিন হবে দুর্নীতি বিরোধি এই প্রতিষ্ঠানটি।

তিনি আরো বলেন, এদিকে আবার একই অভিযোগে কানাডার আদালতেও মামলার বিচার চলছে। এ অবস্থায় দুদক যদি মামলার কাজ সমাপ্ত ঘোষণা করে নথিভুক্ত করে। আর অপরদিকে কানাডার আদালত যদি একই অভিযোগে করা মামলার আসামিদের অভিযুক্ত করে। তাহলে দুদক ও কানাডার আদালতের ফলাফল বিপরীতমুখী হবে। যার কারণে হয়তোবা আবারো এই প্রতিষ্ঠানটি বিতর্কের মুখেও পরতে পারে। তাই কানাডার আদালতে ওই মামলার বিচার চলাকালীন সময়ে দুদকের এই মামলার কার্যক্রম বন্ধ করে তা নথিভুক্ত না করাটাই ভালো হবে বলে আমি মনে করি।

সূত্র মতে, এ মামলার তদন্ত কাজ যদি নথিভুক্ত করা হয়, তাহলে যে সাত আসামি অব্যাহতি পেতে যাচ্ছে তারা হলেন- সেতু বিভাগের সাবেক সচিব মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া, সেতু বিভাগের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী (নদীশাসন) কাজী ফেরদাউস, সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী (ব্রিজ কন্সট্রাকশন অ্যান্ড মেইনটেইনেন্স ডিভিশন) রিয়াজ আহমেদ জাবের, বাংলাদেশে এসএনসি-লাভালিনের সাব কনসালটেন্ট ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড প্ল্যানিং কনসালট্যান্ট লিমিটেডের ডিএমডি মোহাম্মদ মোস্তফা, কানাডিয়ান কোম্পানি এসএনসি-লাভালিনের আন্তর্জাতিক প্রকল্প বিভাগের সাবেক পরিচালক মোহাম্মদ ইসমাইল, একই বিভাগের সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট রমেশ শাহ ও এসএনসি-লাভালিনের সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট কেভিন ওয়ালেস।

উল্লেখ্য, ২০১২ সালের ১৭ ডিসেম্বর পদ্মা সেতু প্রকল্পে কানাডিয়ান কোম্পানি এসএনসি-লাভালিনকে পরামর্শক হিসেবে কাজ পাইয়ে দেওয়ার বিনিময়ে ঘুষ লেনদেনের ষড়যন্ত্রের অভিযোগে সেতু বিভাগের সাবেক সচিবসহ ৭ জনকে আসামি করে মামলা করে দুদক।

শীর্ষ নিউজ

Leave a Reply