মুন্সীগঞ্জে বন্যায় উন্নতি : পানি বাহিত রোগের ঝুঁকি

munshiganj-fllood03মুন্সীগঞ্জে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হলেও পানি বাহিত রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দেওয়ায় ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে বন্যা পীড়িত কয়েক হাজার মানুষ। অবশ্য মুন্সীগঞ্জের সিভিল সার্জন কাজী শরিফুল আলম দাবি করেছেন, দুর্গত এলাকায় মেডিক্যাল টিম পর্যাপ্ত ওষুধ নিয়ে মানুষের সেবা দিয়ে যাচ্ছে যাওয়ায় বন্যা পরবর্তী রোগ নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

এদিকে বন্যার পানি নেমে যাওয়ার এ সময়ে সিরাজদিখান উপজেলার রাজদিয়া গ্রামে সাপের কামড়ে সুমনা দাস (৭) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন শাহানারা বেগম (৪৫) নামে আরো এক নারী।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের উদ্ধৃতি দিয়ে মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক সাইফুল হাসান বাদল জানান, বুধবার সকাল ৬টার দিকে জেলার ভাগ্যকূল পয়েন্টে পদ্মার পানি হ্রাস পেয়ে বিপদসীমার ৩ সেন্টিমিটার নিচ পর্যন্ত রেকর্ড করা হয়েছে। এছাড়া মাওয়া পয়েন্টে বিপদসীমার ২০ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে বইছে পদ্মার পানি।

এছাড়া শ্রীনগর উপজেলার ভাগ্যকূল ও বাঘরা, লৌহজংয়ের মেদিনীমণ্ডল, হলদিয়া, কনকসার, কুমারভোগ, কলমা ও গাঁওদিয়া, সিরাজদিখানের চিত্রকোট, টঙ্গীবাড়ি উপজেলার পাঁচগাঁও, হাসাইল-বানারী ও কামারখারা এবং মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার শিলই, বাংলাবাজারসহ নিম্নাঞ্চলের পানি কমেছে।

তবে লৌহজং উপজেলার কুমারভোগ ও মাওয়া এবং টঙ্গীবাড়ি উপজেলার কামারখাড়ায় পদ্মার ভাঙন অব্যাহত আছে বলে জানান জেলা প্রশাসক।

তিনি জানান, সরকারি হিসেবে ৭৯টি পরিবার বন্যায় সম্পূর্ণ ও দুই হাজার ৮৮৬ পরিবার আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের মোট সংখ্যা ১২ হাজার ২৬৩ জন।

সরকারিভাবে এসব বন্যার্তদের মাঝে ৩২ টন চাল ও দুই লাখ ৫০ হাজার টাকা বিতরণ করা হয়েছে। এর মধ্যে পরিবার প্রতি ৩০ কেজি চাল ও সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্তদের পাঁচ হাজার করে টাকা দেওয়া হয়েছে।

সাইফুল হাসান বাদল বলেন, জেলার বন্যা আক্রান্ত এলাকার সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সচল থাকলেও ভাঙনের শিকার টঙ্গীবাড়ি উপজেলার কামারখাড়া বড়াইল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যায়লয়ের শিক্ষা কার্যক্রম এখনও চালু করা যায়নি।

পানি কমতে থাকার এই সময়ে দুর্গত এলাকায় যেসব সমস্যা দেখা দিচ্ছে তা মোকাবেলায় ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের সমস্যা লাঘবে প্রশাসন কাজ করছে বলেও জানান তিনি।

বিডিনিউজ

Leave a Reply