পদ্মার দু’পাড়ে ৬শ’ যান আটকা

mawa jamনতুন ফেরি ‘কলমিলতা’
মাওয়া-কাওড়াকান্দিতে রো রো ফেরি তৃতীয় দিনের মতো বুধবার বন্ধ রয়েছে। এতে দু’পারে আটকা পড়েছে পণ্যবাহী ট্রাকসহ প্রায় ৬শ’ যান। দেশের প্রধান এই ফেরি সার্ভিসটি সচল রাখা হয়েছে কম ধারণ ক্ষমতার ৯টি ফেরি দিয়ে। ১৩ দিনের মাথায় দ্বিতীয়বারের মত সোমবার নদী ভাঙ্গনে মাওয়া রো রো ফেরিঘাট পদ্মায় বিলীন হয়ে যায়। গত ১৯ আগস্ট থেকে নদী ভাঙ্গন ও স্রোতের কারণে এই ফেরি সার্ভিস মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে।

টানা ১৬ দিন ধরে ফেরি সার্ভিস বিঘিœত হওয়ায় চরম দুর্ভোগে পড়েছে দক্ষিণাঞ্চলের ২১ জেলার মানুষ। এদিকে, বুধবার মাওয়া ফেরি বহরে যুক্ত হয়েছে নতুন ফেরি ‘কলমিলতা।’ বিআইডব্লিউটিসির মাওয়া অফিসের ম্যানেজার সিরাজুল হক জানান, মাওয়া ৩ নং নতুন রো রো ফেরি ঘাটটি আগের ৩ নং ফেরি ঘাটের ১শ’ ফুট পূর্বে স্থাপনের কাজ বুধবার সকাল থেকে শুরু হয়েছে। বৃহস্পতিবার এই ঘাটটি সচল হলে রো রো ফেরি চলাচল আবার শুরু হবে। তবে উজানের পানি নেমে না যাওয়া পর্যন্ত সঙ্কট পুরোপুরি কাটছে না। এদিকে সোমবারের নদী ভাঙ্গনের রো রো ফেরি ঘাটের তলিয়ে যাওয়া র‌্যামটি উদ্ধার করেছে উদ্ধারকারী জাহাজ রুস্তম।

বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল, আমানত শাহ ও শাহ আলী এই ৩টি রো রো ফেরি ছাড়াও টানা জাহাজের (আইটি) অভাবে বন্ধ রয়েছে ফেরি লেন্টিং, প্রবল স্রোতে ঢাকা ও কর্ণফুলী চলতে পারছে না। ফেরি রামশ্রীকে মেরামতের জন্য ডকে পাঠানো হয়েছে। এখন চলাচল করছে টানা ফেরি থোবাল, রানীগঞ্জ, রানীক্ষেত রায়ুপুরা ও টাপলু। কে-টাইপ ফেরি করবী, কেতকি ও কাকলী এবং মিডিয়াম ফেরি ফরিদপুর। কিন্তু সচল এই ৯টি ফেরিও স্রোতের সাথে পাল্লা দিয়ে স্বাভাবিক চলতে পারছে না। কাওড়াকান্দি থেকে মাওয়ায় আসার পথে সময় লাগছে অপেক্ষাকৃত বেশী।

জনকন্ঠ

Leave a Reply