বিদ্যাসাগর যদি সাঁতারটা শিখিয়ে দিতেন!

ahsan kabirআহসান কবির: ছোটকাল থেকে শুনে আসছি ডাকার মতো ডাকলে নাকি বিধাতাও শোনেন। নামাজ কিংবা জানাযায়,মিলাদ কিংবা প্রার্থনায়,মসজিদ,মন্দির কিংবা গীর্জায় বিধাতাকে ডাকার বহু রকম দৃশ্য আমাদের হৃদয়ে গেঁথে আছে। কিন্তু ৪ আগস্টে মাওয়া ঘাটের খুব কাছে সর্বগ্রাসী ঢেউয়ের তোড়ে পিনাক-৬ লঞ্চ ডুবে যাবার সময়ে যাত্রীরা যে আকুতি নিয়ে বিধাতাকে ডাকছিলেন, যে ভাবে দোয়া-কালেমা পড়ছিলেন, সেটা বোধ করি সব ধরনের ডাককে ছাড়িয়ে গিয়েছিল। ঢেউয়ের তোড়ে মিনিট খানেকের ভেতর ডুবে যাওয়া লঞ্চটার ভিডিও যারা দেখেছেন, যারা কান্নাকাতর বিধাতাকে ডাকার সব আকুতি শুনেছেন, তাদের পক্ষে কান্না চেপে রাখা সম্ভব না! আমার খুব জানতে ইচ্ছে করে আর কীভাবে ডাকলে বিধাতা আমাদের কথা শুনতেন। ডাক শোনার পর আমরা তখন আকাশের দিকে তাকিয়ে বলতাম যার কিছু নাই তার উপরওয়ালা আছেন।

মিজানুর রহমান নামের মানুষটির নিজের গাড়ি ছিল না, তিনি অন্যের গাড়ি চালাতেন। আর তার জীবনের গাড়ি ভবিষ্যতে চালিয়ে নেবার জন্য ছেলে ইমতিয়াজ আর দুই মেয়ে আমিনা আর আরফিনাকে নিয়ে স্বপ্ন দেখতেন। ঈদের ছুটিতে তিন ছেলে মেয়ে ও স্ত্রী রিনা রহমানকে নিয়ে গ্রামের বাড়ি বেড়াতে গিয়েছিলেন। তাদের ফেরার কথা গাজিপুরে। ঈদের আগে ও পরে বাড়ি যাবার কিংবা বাড়ি থেকে ফেরার যে কালচারে আমরা বন্দী হয়ে আছি, বাধ্য হয়ে সেই কালচারের সঙ্গী হতে মিজানুর রহমান আর তার স্ত্রী রিনা রহমান উঠেছিলেন পিনাক-৬ লঞ্চে। এরপর ঢেউ হয়ে উঠলো সর্বগ্রাসী রাক্ষস। ছেলেটাকে ঘাড়ের উপর বসিয়ে যে মিজান তখন লঞ্চের রেলিং ধরে তার জানা সব প্রার্থনা তুলে ধরছিলেন আল্লাহর কাছে, দুই হাত জড়ো করে নিজের প্রাণের বিনিময়ে ছেলেটার প্রাণ বাচানোর আকুতি করছিলেন,সেই মিজানের ডাক আস্তে আস্তে মিলিয়ে গেল ঢেউয়ের অতলে। সর্বগ্রাসী ঢেউ টেনে নিল মিজানকে,হয়তো তার বুকে মাথা রেখে মরে গেলে ছেলেটাও।

পিনাক-৬ লঞ্চটার মালিক আবু বকর সিদ্দিক ওরফে কালু। সরকার সমর্থকরা এই ভেবে খুশি হতে পারেন যে এই কালু সাহেব মুন্সিগঞ্জের লৌহজং উপজেলার দক্ষিণ মেদিনীমন্ডল ইউনিয়নের বিএনপি নেতা।তবে আওয়ামী লীগের সঙ্গে তার ঘনিষ্ঠতা কম নয়। ঢাকা মাওয়া রুটের সবচেয়ে বড় বাস পরিবহনের নাম ইলিশ পরিবহন। ইলিশ পরিবহনের মালিক দুজন। একজন কালু মিঞা,অন্যজন একই এলাকার আওয়ামী লীগ নেতা। সুতরাং লঞ্চ ডুবে যাবার পর যে তদন্ত কমিটি হয়েছে তার ভবিষ্যত কী হবে।

মিজান আর তার ছেলের কথা আমরা জানি কী ভাবে? লঞ্চে বসে মেয়ে আমিনা আর আরফিনাকে নিয়ে একইভাবে প্রার্থনা করছিলেন মা রিনা রহমান। সম্ভবত তার ডাক অর্ধেক কবুল হয়েছিল। আমিনা আর আরফিনা চলে গেল না ফেরার দেশে আর আজীবন এই ব্যথা বয়ে বেড়ানোর জন্য বেঁচে থাকলেন রিনা রহমান।

পিনাক-৬ লঞ্চটার মালিক আবু বকর সিদ্দিক ওরফে কালু। সরকার সমর্থকরা এই ভেবে খুশি হতে পারেন যে এই কালু সাহেব মুন্সিগঞ্জের লৌহজং উপজেলার দক্ষিণ মেদিনীমন্ডল ইউনিয়নের বিএনপি নেতা।তবে আওয়ামী লীগের সঙ্গে তার ঘনিষ্ঠতা কম নয়। ঢাকা মাওয়া রুটের সবচেয়ে বড় বাস পরিবহনের নাম ইলিশ পরিবহন। ইলিশ পরিবহনের মালিক দুজন। একজন কালু মিঞা,অন্যজন একই এলাকার আওয়ামী লীগ নেতা। সুতরাং লঞ্চ ডুবে যাবার পর যে তদন্ত কমিটি হয়েছে তার ভবিষ্যত কী হবে। ১৯৯৪ থেকে ২০১৪ পর্যন্ত লঞ্চ দুর্ঘটনা তদন্তে তদন্ত কমিটি হয়েছে দুইশত বার। রিপোর্ট বেরিয়েছে মাত্র তিনটির। বিধাতা এভাবেই কী চলতে থাকবে দেশটা।

যারা নদী বা সমুদ্রে লঞ্চ,প্যাসেঞ্জার ভেসেল কিংবা পন্যবাহী লঞ্চ বা জাহাজ চালান তাদের আর ও আর বা রুলস অব দ্য রোড মেনে চলতে হয়। সমুদ্র বা নদীতে কোন সতর্ক সংকেত জারি হলে,তিন নম্বর সতর্ক সংকেত পর্যন্ত ৬৫ ফুটের কম দৈর্ঘের লঞ্চ এর চলাচলের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি আছে। পিনাক-৬ এর দৈর্ঘ মাত্র ৫২ ফুট। তারপরও দুই নম্বর বিপদ সংকেত মাথায় নিয়ে নদীতে নামানো হয়েছিল লঞ্চটিকে। ২০১৪ এর এপ্রিলে পিনাক-৬ লঞ্চটির চলাচলের মেয়াদ শেষ হয়ে গিয়েছিল। এটিকে নষ্ট বা ভেঙ্গে ফেলার কথা থাকলেও আরো পয়তাল্লিশ দিন চলাচলের জন্য অনুমতি দেয়া হয়েছিল। কারা দিয়েছিল এই অনুমতি? বিআইডব্লিউটিসি বা বাংলাদেশ নৌ পরিবহন মন্ত্রনালয়ের অনুমতি ছাড়া এবং তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ কাগজ ছাড়া কোন লঞ্চ কোন ঘাট থেকে ছাড়তে পারে না। তাহলে?

পিনাক -৬ তে যাত্রী ধারণ ক্ষমতা ছিল ৮৫ জন। লঞ্চডুবির সময় ৪১ জন সাঁতার দিয়ে তীরে উঠতে সমর্থ হয়েছিলেন। স্পীডবোট নিয়ে ৮০ থেকে ৯০ জনকে উদ্ধার করে স্থানীয় মানুষজন। স্থানীয় প্রশাসনের মতে নিঁখোজ রয়েছেন আরো ১২৫ জন। ২০১৪ এর এপ্রিলে একই জায়গায় এমভি মিরাজ নামের একটি লঞ্চ ডুবে গেলে প্রাণ হারিয়েছিলেন ৫৬ জন মানুষ। গত ২০ বছরে লঞ্চডুবি হয়েছে ৬৫৮ বার যদিও সরকারি হিসেবে আরও কিছু কম। ২০ বছরে লঞ্চ দুর্ঘটনায় ৫,৫০০ মানুষ মারা গেছেন। প্রায় তিন হাজার মানুষ নিখোঁজ রয়েছেন। যারা মারা গিয়েছেন বিধাতাকে ডাকা ছাড়া তাদের আর কোন কিছু করণীয় ছিল না।

বছরের পর বছর ধরে আমরা এভাবেই রাষ্ট্রীয়ভাবে মৃত্যু ফাঁদের পৃষ্ঠপোষকতা দিয়ে এসেছি। খারাপ লঞ্চ যেটা ঝুকিপূর্ন আবহাওয়াতে ডুবে যাবে, সংখ্যায় কম লঞ্চ যেখানে যাত্রী বেশি থাকবে,কম আয়ের মানুষ যাদের এই সমস্ত লঞ্চ ছাড়া যাতায়াতের আর কোন সুযোগ থাকবে না এসব ব্যবস্থা পরোক্ষ ভাবে রাষ্ট্রই করে থাকে। আর যদি কেউ প্রতিবাদ করে রাষ্ট্রের বিপক্ষে, যদি এসব লঞ্চে না উঠতে হয়, তাহলে একটাই উপায়। ঝড় বৃষ্টির রাতে মার সাথে ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের দেখা করার মত ঘটনা ঘটাতে হবে আমাদের।

এ পর্যন্ত যে তিনটি তদন্ত রিপোর্ট বেরিয়েছে তার সার কথা হচ্ছে ত্রুটিপূর্ণ নকশা দিয়ে লঞ্চ বানানো,অদক্ষ চালক,অতিরিক্ত যাত্রী ও পন্য বহন এবং আবহাওয়ার পূর্বাভাস না মানার কারণে দুর্ঘটনা ঘটছে একের পর এক। লঞ্চে প্রাণ বাঁচানোর সরঞ্জামও ঠিক মত থাকে না। দুর্ঘটনার সব কারণ আমরাই আয়োজন করে থাকি বলে শেষ মুহূর্তে বিধাতার কাছে হাত তোলা ছাড়া আমাদের আর কোন উপায় থাকে না।

বছরের পর বছর ধরে আমরা এভাবেই রাষ্ট্রীয়ভাবে মৃত্যু ফাঁদের পৃষ্ঠপোষকতা দিয়ে এসেছি। খারাপ লঞ্চ যেটা ঝুকিপূর্ন আবহাওয়াতে ডুবে যাবে, সংখ্যায় কম লঞ্চ যেখানে যাত্রী বেশি থাকবে,কম আয়ের মানুষ যাদের এই সমস্ত লঞ্চ ছাড়া যাতায়াতের আর কোন সুযোগ থাকবে না এসব ব্যবস্থা পরোক্ষ ভাবে রাষ্ট্রই করে থাকে। আর যদি কেউ প্রতিবাদ করে রাষ্ট্রের বিপক্ষে, যদি এসব লঞ্চে না উঠতে হয়, তাহলে একটাই উপায়। ঝড় বৃষ্টির রাতে মার সাথে ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের দেখা করার মত ঘটনা ঘটাতে হবে আমাদের। মিজান,রিনা,আমিনা,আরফিনা কিংবা ইমতিয়াজদের হতে হবে ঈশ্বর চন্দ্র বিদ্যাসাগর কিংবা ব্রজেন দাসদের মত!

তাহলে কী দাঁড়ালো ব্যাপারটা? সাবেক নৌপরিবহনমন্ত্রীর মতো বর্তমান মন্ত্রীও নিহতের পরিবার প্রতি দুটো করে ছাগল প্রদানেরর ঘোষণা দেবেন। গর্ব করে বলবেন-লাশ উদ্ধারের সাথে সাথে তো বিশ হাজার টাকা দেওয়া হচ্ছে। এরপর স্থানীয় প্রশাসনের কাছে ধর্না দিতে হবে। তারা নিহতের পরিবার সম্পর্কে নিশ্চিত হয়ে আরও একলাখ পচিশ হাজার টাকা দেবে। তার মানে দাঁড়াচ্ছে হতভাগ্য যারা লঞ্চে উঠতে বাধ্য হয়েছিল,তাদের ও তাদের পরিবারের মূল্য দুটো ছাগল ও এক লাখ পয়তাল্লিশ হাজার টাকার সমান।(যদি এই টাকা কপালে জোটে)

রাষ্ট্রের অবহেলায় বছর বছর এমন দুর্ঘটনা ঘটবে। প্রমত্ত নদীতে শাহ আলম নামের স্পিড বোট চালক নিজে উদ্যোগী হয়ে দ্রুত বেগে ছুটে যাবেন উদ্ধার কাজে। নাম না জানা এক কিশোর কান্না কাতর হয়ে বলবে- আংকেল আমার পরিবারের সবাই ডুবে মারা গেছে। দয়া করে আমাকে বাঁচান। শাহ আলম চেষ্টা করবেন। রাক্ষুসে ঢেউয়ের জিহবাতে চড়ে অচেনা কিশোরটা চলে যাবে না ফেরার দেশে। ব্যর্থতার দায়ভাগ নিয়ে হাউ মাউ করে কাঁদবেন শাহ আলম। রাষ্ট্রের তাতে কিছু যাবে আসবে না।

লঞ্চ দুর্ঘটনা আসে,লঞ্চ দুর্ঘটনা আড়ালে চলে যায়। রাষ্ট্রের আসলেই কিছু যায় আসে না। ঈশ্বর চন্দ্রকে যদি পেয়ে যাই কখনো,হাত জোড় করে তাকে মিনতি জানিয়ে বলবো-ঝড় বৃষ্টি মাথায় নিয়ে নদী সাঁতরে মায়ের সঙ্গে দেখা করতে যাওয়ার মন্ত্রটা দয়া করে সবাইকে শিখিয়ে দিয়ে যান।

লেখক: রম্য লেখক ও অভিনেতা।
theahsankabir@gmail.com

বাংলাট্রিবিউন

Leave a Reply