যুক্তরাষ্ট্রে ফখরুদ্দীন মইনের দিনকাল

fakMainওয়ান-ইলেভেনে গঠিত বহুল আলোচিত-সমালোচিত কেয়ারটেকার সরকারের প্রধান উপদেষ্টা ড. ফখরুদ্দীন আহমদ এখনো জনপ্রিয়। ২০০৯ সালের ৬ জানুয়ারি শেখ হাসিনা নির্বাচিত সরকারের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ গ্রহণের পরই পর্দার আড়ালে চলে যাওয়া ড. ফখরুদ্দীন গত সপ্তাহে প্রথম জনসম্মুখে এসেছিলেন। যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়ায় বসবাসরত বাংলাদেশের জাতীয় দলের সাবেক ফুটবলার মোস্তফা হোসেন মুকুলের মেয়ে রুয়েনা তানাজের গায়ে হলুদ অনুষ্ঠিত হয় ২৮ আগস্ট। ওয়াশিংটন ডিসির কাছে ভার্জিনিয়ার একটি বিলাসবহুল হোটেলের বলরুমে ৩১ আগস্ট রুয়েনার শুভবিবাহ সম্পন্ন হয় বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত এক যুবকের সঙ্গে। গায়ে হলুদ ও বিবাহের উভয় অনুষ্ঠানেই সস্ত্রীক অংশ নেন ড. ফখরুদ্দীন আহমদ।

তারা উভয়েই চুপচাপ বসে ছিলেন। আড়ালে থাকতে চেয়েছিলেন উপস্থিত অতিথিদের থেকে। কিন্তু পারেননি। কেউ কেউ সে সময় জানতে চেয়েছেন, রাজনৈতিক দুর্বৃত্তদের নির্মূলের অভিযান থেকে তার সরকার হঠাৎ পিছু হটেছে কেন? বাংলাদেশের অধিকাংশ মানুষের সমর্থন পেয়েও তারা রাজনীতিকে দুর্নীতিমুক্ত করার পরিকল্পনা থেকে সরে দাঁড়িয়ে নোবেল বিজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে দিয়ে রাজনৈতিক দল গঠনের পথে এগিয়েছিলেন কেন? বাকি জীবন আমেরিকাতেই কাটাবেন, নাকি বাংলাদেশে ফেরার ইচ্ছা আছে- ইত্যাদি কৌতূহল পূরণে ড. ফখরুদ্দীন ছিলেন নীরব।
fakMain
হাসিমুখে সবাইকে কাছে টেনেছেন, তবে ওইসব প্রশ্নের কোনো জবাব দেননি। উল্লেখ্য, ড. ফখরুদ্দীন যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকত্ব গ্রহণ করেছেন। ম্যারিল্যান্ড অঙ্গরাজ্যে তার নিজস্ব বাড়ি রয়েছে, সেখানেই অবসর জীবন কাটাচ্ছেন। তার সরকারের মূল চালিকাশক্তি ছিলেন সেনাপ্রধান জেনারেল মইন উ আহমেদ। তিনিও চিকিৎসার জন্য নিউইয়র্কে বসবাস করছেন সস্ত্রীক। জেনারেল মইনও যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকত্ব গ্রহণ করেছেন। চিকিৎসকের অনুমতি ছাড়া জেনারেল মইনের পক্ষে বাংলাদেশে আসা একেবারেই অসম্ভব। তিনি ক্যানসারের চিকিৎসা নিচ্ছেন। জানা গেছে, জেনারেল মইন ও ড. ফখরুদ্দীন উভয়েই স্মৃতিচারণমূলক বই লিখছেন। ওয়ান-ইলেভেন পরিস্থিতি এবং বাংলাদেশের বাস্তবতা থাকবে তাদের বইয়ে।

বাপ্র

Leave a Reply