বঙ্গবন্ধু বিমানবন্দর নির্মাণে ৪ স্থানে সম্ভাব্যতা যাচাই

biman5বঙ্গবন্ধু বিমানবন্দর নির্মাণে চারটি স্থানে সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এ জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের পিপিপি (সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্ব) সেলে এ সংক্রান্ত প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে।

নির্ধারণ করা চারটি স্থানের মধ্যে রয়েছে- মাদারীপুরের শিবচর উপজেলার চর জানাজাত, মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার কেয়াইন ও লতব্দি এবং ঢাকার দোহারের চর বিলাসপুর। এর আগে প্রকল্পের কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যাওয়ার আগেও এ চারটি স্থান নির্ধারণ করা হয়েছিল। তবে তখন সম্ভাব্যতা যাচাই করা হয়নি।

আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন গত মহাজোট সরকারের সময়ে বঙ্গবন্ধু বিমানবন্দর নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হলেও এক পর্যায়ে প্রকল্পটি বন্ধ হয়ে যায়। এরপর শেখ হাসিনা আবারও প্রধানমন্ত্রী হন। তিনি বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় পরিদর্শনে এসে বঙ্গবন্ধু বিমানবন্দর নির্মাণ প্রকল্পটি আবারও শুরু করার নির্দেশ দেন।

বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন দ্য রিপোর্টকে বলেন, বঙ্গবন্ধু বিমানবন্দর নির্মাণে ফিজিবিলিটি স্টাডির (সম্ভাব্যতা যাচাই) জন্য আমরা চারটি স্থান নির্ধারণ করেছি। এটা হবে পিপিপির ভিত্তিতে। তাই এ সংক্রান্ত প্রস্তাব প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের পিপিপি অফিসে পাঠানো হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে সিদ্ধান্ত পাওয়া গেলে আমরা ফিজিবিলিটি স্টাডির জন্য দরপত্র আহ্বান করব।

গত সরকার ক্ষমতায় আসার পরই বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণের তোড়জোড় শুরু করে। বিমানবন্দরের জন্য উপযুক্ত জায়গা নির্ধারণ করতে বিমান মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব জয়নুল আবেদীন তালুকদারকে প্রধান করে একটি সেল গঠন করা হয়। সেল বিমানবন্দর স্থাপনের জন্য জায়গা নির্ধারণ করে মুন্সীগঞ্জের আড়িয়াল বিল। ২০১১ সালের ফেব্রুয়ারিতে স্থানীয় অধিবাসীদের সঙ্গে পুলিশের ব্যাপক সংঘর্ষে একজন পুলিশ সদস্যও নিহত হন। এরপর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেই আড়িয়ল বিল এলাকায় বিমানবন্দর নির্মাণ করা হবে না বলে ঘোষণা দেন।

বিমান মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা আরও জানান, এরপর দোহার উপজেলার চর বিলাসপুর, মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার কেয়াইন ও লতব্দি, মাদারীপুরের শিবচর উপজেলার চর জানাজাত, ফরিদপুরের ভাঙ্গা, মাদারীপুরের রাজৈর, গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলার বাঘিয়ার বিল, মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া এবং মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইরকে বিমানবন্দর নির্মাণের জন্য সম্ভাব্য স্থান হিসেবে বেছে নেয় বিমানবন্দর গঠন সংক্রান্ত সেল। পরে সেখান থেকে চারটি স্থান রাখা হয়।

দ্য রিপোর্ট

Leave a Reply