সাঈদীর রায়ে ক্ষুব্ধ মুন্সীগঞ্জবাসী

dhsভবতোষ চৌধুরী নুপুর: ৭১’এর মুক্তিযুদ্ধে যারা শয়তান ছিল, তাদেরই জয় হলো। যারা রাজাকারি করেছে আজ আবার তাদেরই জয় হলো। আ’লীগ দক্ষিণ পন্থী। এ সরকার আতাঁত করে রায় দিয়েছে। এ রায় প্রহসনের রায়। এ ধরনের নানা মন্তব্যের ঝড় উঠেছে সাড়া দেশ ব্যাপি। এমন কি বাদ পড়েনি যোগাযোগ মাধ্যমের ওয়েব সাইট গুলো। আর এভাবেই মুন্সীগঞ্জের সর্বস্তরের মানুষ তাদের ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

বুধবার সকাল থেকে জামায়াতের নায়েবে আমির দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর রায় শোনার জন্য বিভিন্ন টিভি মিডিয়াসহ যোগাযোগ মাধ্যম গুলোতে চোখ রেখেছে সর্বসময়। কিন্তু রায় ঘোষণার পর থেকে ক্ষোভে-রাগে ফেটে পরে এ অঞ্চলের মনুষ।

২০১৩ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে সাঈদীকে মৃত্যুদণ্ড দেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১। সকালে মৃত্যুদণ্ডাদেশের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল মামলার চূড়ান্ত রায়ে সাজা কমিয়ে তাকে আমৃত্যু কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ।

রায় ঘোষণার পরপরই আমার এক সহকর্মী তুহিন ভাই ফোন করে তার ক্ষোভ প্রকাশ করে বল্লেন, ক্ষমতার লোভ আর ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য এ প্রহসনের রায় দিয়েছে। পার পাবেনা দক্ষিন পন্থী আ’লীগ সরকার। আমাদেরই ফাঁসির রায় কার্যকর করতে হবে।

এ সহকর্মীর মতো আরও অনেকেই নিজ নিজ অবস্থান থেকে ঘৃণা-ক্ষোভ-রাগ প্রকাশ করেছে। তারা আক্ষেপ করে বলেন, পূর্বের রায় বহাল রাখতে পারত ট্রাইব্যুনাল।

এক ফেসবুক এক্টিভিটর তার কমেন্টসে ক্ষোভ প্রকাশ করে লিখেছে ” আগের বার সাইদিকে চাঁদে দেখা গিয়েছিল, এবার আশাকরি সূর্যে দেখা যাবে”।

দেশের লক্ষ-কোটি মানুষকে আশহত করেছে দেলোয়ার হোসেন সাইদীর(দেউল্লা রাজাকার) রায়। যার বিরুদ্ধে গণহত্যা, হত্যা, ধর্ষণের আটটি অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হয়। এর মধ্যে দু’টি অপরাধে অর্থাৎ ৮ ও ১০নং অভিযোগে সাঈদীকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেন ট্রাইব্যুনাল। কিন্তু তার পরও কি করে তার মৃত্যুদণ্ড না হয়ে আমৃত্যু কারাদণ্ডাদেশ হয়।

হতাশা কন্ঠে মুন্সীগঞ্জ শহরের ষাটোর্দ্ধ এক চায়ের দোকানদার বলেন, ‘ভুল হইছে চাচা যুদ্ধের সময় রাজাকারি করলে ভাল হইত। তখন ভাল থাকতাম, এখনও ভাল থাকতাম। এখন আর চায়ের দোকানদারি করতে হইতনা। কারন রাজাকাররা তো বাইচা যায়।’

বুধবার সকালে প্রধান বিচারপতি মো. মোজাম্মেল হোসেনের নেতৃত্বাধীন বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা, বিচারপতি আব্দুল ওয়াহহাব মিঞা, বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী ও বিচারপতি এএইচএম শামসুদ্দিন চৌধুরী। সুপ্রিম কোর্টের এই ৫ সদস্যের আপিল বিভাগ সংখ্যাগরিষ্ঠতার ভিত্তিতে এ রায় দেয়।

এটিএন টাইমস

Leave a Reply