মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে ফেরি চলাচল ব্যাহত

mawa5মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে ফেরি চলাচলে বিঘ্ন দেখা দিয়েছে। এখন এই রুটে ফেরি চলাচল করছে ওয়ান ওয়ে পদ্ধতিতে। পদ্মার পানি কমতে থাকায় ভয়াবহ নাব্যতা সংকট ও ডুবোচর জেগে ওঠায় হুমকির মুখে পড়েছে স্বাভাবিক ফেরি চলাচল।

গত দুই সপ্তাহে একাধিকবার মুন্সীগঞ্জের লৌহজং টার্নিং পয়েন্টের ডুবোচরে এবং চ্যানেলের হাজরা পয়েন্টে যাত্রী ও যানবাহন বোঝাই রো রো ফেরিসহ চলাচলরত ফেরিগুলো আটকা পড়ে যাওয়ায় ওয়ান ওয়ে পদ্ধতিতেও চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। এতে চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন চলাচলরত যাত্রী সাধারণ।

এদিকে, এভাবে পদ্মার পানি হ্রাস অব্যাহত থাকলে আসন্ন ঈদুল আযহার আগেই এ রুট দিয়ে যাত্রী ও যানবাহন পারপারে তীব্র অচলাবস্থা দেখা দিতে পারে বলে সংশ্লিষ্টদের আশংকা।

বিআইডব্লিউটিসির মাওয়া কার্যালয়ের একাধিক সূত্র জানায়, সম্প্রতি ভরা বর্ষায় উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে পদ্মায় পানি বৃদ্ধি পেয়ে তীব্র স্রোতে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে ধেয়ে আসতে থাকে অসংখ্য পলি।

স্রোতের ঘূর্ণাবর্তে পলি জমে জমে নৌ চ্যানেলের একাধিক স্থানে ক্রমেই প্রসারিত হয় ডুবোচর। এতে সার্ভে হাইড্রোগ্রাফি চালানোর পর নৌ চ্যানেলের মুখেই বিস্তীর্ণ একাধিক ডুবোচরের অস্তিত্ত্ব পাওয়া যায়।

সূত্র আরো জানায়, গত দুই সপ্তাহ ধরে পদ্মায় অস্বাভাবিক পানি হ্রাস পাওয়ায় লৌহজং টার্নিংয়ের মুখে সরু এ পয়েন্ট দিয়ে ফেরি চলছে ঝুঁকি নিয়ে। দুর্ঘটনা এড়াতে মাওয়া থেকে কাওড়াকান্দিগামী ফেরিগুলো লৌহজং টার্নিং পয়েন্ট পাড়ি না দেওয়া পর্যন্ত মাওয়াগামী ফেরিগুলোকে এ পয়েন্টে অপেক্ষা করতে হচ্ছে।

নৌরুটের হাজরা টার্নিং পয়েন্টে আরও একটি ডুবোচর দেখা দিয়েছে। পলি জমে জমে এখানেও বর্তমানে ১০ ফুট পানির গভীরতা রয়েছে। ফলে উভয় পয়েন্টে ডাবল ওয়ে ফেরি চলাচল বন্ধ রেখে ফেরি চলছে ওয়ান ওয়ে পদ্ধতিতে। এছাড়া রুটের মধ্যনদীতে আরও বিস্তীর্ণ একটি ডুবোচরের অস্তিত্ত্ব পাওয়া গেছে। এ ডুবোচরটি ২৫০০ ফুট এলাকা নিয়ে ক্রমেই প্রসারিত হচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা জানান, পদ্মায় পানি হ্রাস পাওয়ায় লৌহজং ও হাজরা টার্নিংয়ে নাব্যতা সংকট দেখা দিয়েছে। বর্তমানে লৌহজং টার্নিংয়ে ৮ থেকে ৯ ফুট এবং হাজরা টার্নিংয়ে ১০ ফুট পানি পাওয়া যাচ্ছে। এভাবে পানি হ্রাস অব্যাহত থাকলে ফেরি চলাচলে অচলাবস্থার সৃষ্টি হবে।

কর্তৃপক্ষর নির্দেশনা থাকায় কোনো ফেরি ওভারটেকিং করছে না বলে তিনি জানান।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর

Leave a Reply