মাওয়ায় ঝুঁকিপূর্ণ ২৮ লঞ্চ পদ্মায় কখনোই চলতে দেয়া হবে না

mawa padma lমাওয়া রুটের ঝুঁকিপূর্ণ ২৮টি লঞ্চ আর কখনও প্রমত্ত পদ্মায় চলাচল করতে দেবে না নৌ মন্ত্রণালয়। ওই রুটে এসব লঞ্চ চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি হচ্ছে। যাত্রী নিরাপত্তা বিবেচনায় রোববার নৌ মন্ত্রণালয় এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আসন্ন ঈদ ও পূজার বাড়তি যাত্রী পরিবহনে মাওয়ায় যাতে নৌযানের সংকট দেখা না দেয় সেজন্য বিকল্প ব্যবস্থা হিসেবে দুটি রো রো ফেরি চালানোর সিদ্ধান্ত হয়েছে। এর বাইরে ১০টি বড় লঞ্চ ওই রুটে চলাচলের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। ছোট লঞ্চের মালিকরা যাতে কোনো প্রতিবন্ধকতা, আইন-শৃংখলার অবনতি ঘটাতে না পারে সেজন্য আইন-শৃংখলা ও গোয়েন্দা সংস্থাকে সতর্ক রাখা হবে। পাশাপাশি বড় লঞ্চের নিরাপত্তা, অতিরিক্ত যাত্রী বহন প্রতিরোধ ও ঘাটের আইন-শৃংখলা রক্ষায় ঢাকা নদীবন্দর (সদরঘাট), মাওয়া ও পাটুরিয়া নদীবন্দরে র‌্যাব-পুলিশের পাশাপাশি বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি), আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ান ও আর্মড আনসার সদস্য মোতায়েনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে নৌ মন্ত্রণালয়।

নৌমন্ত্রী শাজাহান খান রোববার নৌ মন্ত্রণালয়ে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) ও সমুদ্র পরিবহন অধিদফতরের (ডিজি শিপিং) ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং লঞ্চ মালিক নেতাদের সঙ্গে একাধিকবার বৈঠক করে এ সিদ্ধান্ত নেন বলে অংশগ্রহণকারী কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। তারা বলেছেন, যাত্রী নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সরকার কঠোর অবস্থান নিয়েছে। বৈঠকের বিষয়ে জানতে নৌমন্ত্রী শাজাহান খানের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগ করেও তাকে পাওয়া যায়নি। বৈঠকে অংশ নেয়া সমুদ্র পরিবহন অধিদফতরের মহাপরিচালক কমোডর জাকিউর রহমান ভূঁইয়া যুগান্তরকে বলেন, ঝুঁকিপূর্ণ বিবেচনায় ২৮টি লঞ্চ চলাচলে নিষেধাজ্ঞা আরোপের বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। ওইসব লঞ্চ মাওয়া থেকে সরিয়ে শান্ত নদীতে কোন রুটে চলাচল করতে দেয়া যায় তা খতিয়ে দেখতে বিআইডব্লিউটিএকে বলা হয়েছে। এছাড়া তিনটি গুরুত্বপূর্ণ নৌবন্দরে বিজিবি, আর্মড পুলিশ ও আর্মড আনসার মোতায়েনের বিষয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে চিঠি দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। প্রাপ্যতাসাপেক্ষে তিন বন্দরে এসব বাহিনীর সদস্য নিয়োজিত করা হবে। পাশাপাশি পুলিশ ও র‌্যাবের সদস্যরাও দায়িত্ব পালন করবেন।

উল্লেখ্য, ২৪ সেপ্টেম্বর দৈনিক যুগান্তরে খালের লঞ্চ পদ্মায় শিরোনামে রিপোর্ট প্রকাশের পর যাত্রী নিরাপত্তা বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে দুই দফায় ২২টি লঞ্চ বন্ধ করে দেয় বিআইডব্লিউটিএ। আরও কয়েকটি লঞ্চ বন্ধের প্রক্রিয়া শুরু করে। এরপর থেকে লঞ্চ মালিকদের একাংশ ঝুঁকিপূর্ণ ওইসব লঞ্চ চলাচলে সুযোগ দিতে নৌ মন্ত্রণালয়, বিআইডব্লিউটিএ ও ডিজি শিপিংয়ের কর্মকর্তাদের ওপর অব্যাহত চাপ দিয়ে আসছে বলে জানান ভুক্তভোগী কর্মকর্তারা। তারা বলেন, ঈদের আগে এসব লঞ্চ চলতে দেয়া না হলে মাওয়া রুটে ধর্মঘট পালন করবেন বলেও জানান তারা।

বৈঠক শেষে রাত পৌনে ৮টার দিকে বাংলাদেশ লঞ্চ মালিক সমিতির সহ-সভাপতি শহীদুল ইসলাম ভূঁইয়া যুগান্তরকে বলেন, আমাদের ভাগ্য খারাপ। ২২ বছর পর মাওয়ায় পিনাক-৬ লঞ্চ দুর্ঘটনাকে কেন্দ্র করে ২৮টি লঞ্চ চলাচলে নিষেধাজ্ঞা দিচ্ছে। ইতিমধ্যে ২২টি লঞ্চ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। আমরা নৌমন্ত্রীকে বলেছি, যখন পিনাক-৬ দুর্ঘটনাকবলিত হয় তখন পদ্মা অশান্ত ছিল, আবহাওয়া খারাপ ছিল। এখন এসব সমস্যা নেই। এ রুটের ৮৬টি লঞ্চের সবকটিকে চলতে দেয়ার অনুরোধ করেছি। এ দাবি মানতে রাজি না হলে আইএসও অনুযায়ী ৬৫ ফুট আকারের কম ১২-১৩টি ছাড়া বাকি লঞ্চগুলোকে চলাচলের অনুমতির দেয়ার বিষয়টি বিবেচনা করতে বলেছি। কিন্তু তিনি আমাদের দাবি মানতে নারাজ। তিনি আরও বলেন, ঈদে যাত্রী বেড়ে যায়। ২৮টি বন্ধ করে দেয়ায় লঞ্চ সংখ্যা কমে যাবে। তখন যাত্রীরা মাওয়া ঘাটে মারামারি করবে, হুলস্থূল পাকাবে। সামাল দিতে না পারলে আমরা লঞ্চ বন্ধ করে দেব। তখন সবাই বুঝবে লঞ্চ বন্ধ করে কী লাভ হয়েছে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, মাওয়া ঘাটে বিকল্প নৌযান দেবে কিনা সে বিষয়ে আমাদের সঙ্গে কোনো আলাপ হয়নি। আমরা ধর্মঘটের হুমকি দিইনি।

বৈঠকে অংশ নেয়া একাধিক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে যুগান্তরকে বলেন, নৌমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে জানানো হয়েছে, এই ২৮টি লঞ্চ মাওয়া রুটে অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। কোনোভাবে এ রুটে এসব লঞ্চ চলাচলের অনুমতি দেয়া সমীচীন হবে না। আবহাওয়া সংকেত ও নদী উত্তাল থাকলে পদ্মা নদীতে এসব লঞ্চে যাত্রী বহন অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। শুধুমাত্র শীত মৌসুমে চলতে পারবে। কিন্তু লঞ্চ মালিকরা শুধু শীতে লঞ্চ চালাতে রাজি নন। তারা সারা বছর যাত্রী বহন করতে চান। জবাবে মন্ত্রী এসব লঞ্চ মাওয়া থেকে সরিয়ে বিকল্প কোন রুটে চলতে দেয়া যায় তা পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য বিআইডব্লিউটিএকে নির্দেশ দিয়েছেন। কর্মকর্তারা বলেন, টেকেরহাট-খুলনাসহ বেশ কয়েকটি রুটে ছোট শান্ত নদী রয়েছে। ওইসব নদীতে এসব লঞ্চ সরিয়ে নেয়া যেতে পারে। কর্মকর্তারা আরও বলেন, ঈদের বাড়তি যাত্রী পরিবহন নিয়ে বৈঠকে আলোচনা হয়। এতে সমুদ্র পরিবহন অধিদফতরের পক্ষ থেকে দেয়া এক প্রস্তাবে শুধু যাত্রী বহনের জন্য দুটি রো রো ফেরি ও ২০টি বড় লঞ্চ দেয়ার সুপারিশ করা হয়। পাশাপাশি ছোট লঞ্চ মালিকরা যাতে বড় লঞ্চে হামলা ও ভাংচুর চালাতে না পারে সে বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য বলা হয়। সমুদ্র পরিবহন অধিদফতরের মতে, দুটি ফেরি দৈনিক অন্তত ৪০ হাজার যাত্রী পার করতে সক্ষম হবে।

যুগান্তর

Leave a Reply