১২ হাজার যক্ষ্মারোগী শনাক্ত : চরাঞ্চলে বেশি

jakkhaমারাত্মক ওষুধ প্রতিরোধী যক্ষ্মা রোগী ১০ জন
মুন্সীগঞ্জে ১২ হাজার ১৫৩ যক্ষ্মা রোগী শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে চিকিৎসা নিয়ে পুরোপুরি সুস্থ হয়েছে ৯ হাজার ২৯৪। সরাসরি পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে ওষুধ সেবনের (ডটস) মাধ্যমে চিকিৎসাধীন রয়েছে ২ হাজার ৭৮ রোগী। যক্ষ্মায় মারা গেছেন ৬৮১ জন। আরোগ্য লাভের হার ৯৩ শতাংশ। এদের মধ্যে ১০ জনের এমডিআর (ওষুধ প্রতিরোধী যক্ষ্মা) শনাক্ত হয়েছে। ভয়াবহ এই যক্ষ্মা থেকে মুক্ত হয়েছে ৬। মারা গেছেন একজন, বাকি ৩ জনের ব্যয়বহুল চিকিৎসা চলছে। ২০০৭ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৪ সালের চলতি মাস পর্যন্ত প্রায় আট বছরের চিত্র এটি। জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ ও সংশ্লিষ্ট এনজিও থেকে প্রাপ্ত তথ্যে দেখা যায় চরাঞ্চলের যক্ষ্মা রোগীর প্রকোপ বেশি।

এছাড়া মিল-কলকারখানার শ্রমিকরা যক্ষ্মায় আক্রান্ত হচ্ছে। ভৌগোলিক কারণে নদীবেষ্টিত এই জেলায় চরাঞ্চলের বহু মানুষের বসবাস। তাই ৬ চরাঞ্চলের ঘরে ঘরে রোগী শনাক্তের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। যক্ষ্মারোগ নিরাময়ে এই জেলায় এখন নীরব বিপ্লব ঘটেছে। কেটে গেছে যক্ষ্মা আতঙ্ক। ‘যক্ষ্মা হলে রক্ষা নেই’ এই প্রবাদ এখন ঠাঁই নিয়েছে জাদুঘরে। এখন প্রবাদ চলছে ‘বিনামূল্যে যক্ষ্মা চিকিৎসা ঘরে ঘরে, সুস্থ হচ্ছে জনে জনে’।

জেলা সিভিল সার্জন ডা. কাজী শরিফুল আলম জানান, যক্ষ্মার চিকিৎসা এখন অতি সহজলভ্য। কিন্তু কোন যক্ষ্মা রোগী ওষুধের পুরো কোর্স সম্পন্ন না করলে মহাবিপদ। যক্ষ্মা একটি মারাত্মক সংক্রামক রোগ যা প্রাথমিকভাবে ফুসফুস আক্রান্ত করে। তাই রোগী শনাক্তের মাধ্যমে ব্র্যাকের কর্মীরা ডটসের আওতায় ঘরে ঘরে গিয়ে ওষুধ সেবন করানোর ফলেই এই সাফল্য আসছে।

ব্র্যাকের স্বাস্থ্য, পুষ্টি ও জনসংখ্যা কর্মসূচীর সিনিয়র জেলা ব্যবস্থাপক সুব্রত কুমার বিশ্বাস জানান, যক্ষ্মা রোগীর জন্য ১ হাজার ৫৯ সেবিকা কাজ করছে। চিকিৎসাধীন অবস্থায় ওষুধ খাওয়া বন্ধ করার পরিণতি হতে পারে ভয়াবহ। আর তাই সেবিকাদের সরাসরি পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে প্রতিদিন রোগীরা ওষুধ সেবন করছে। এসব কাজের তদারকি করা হচ্ছে পাঁচ স্তরে। এতে এমডিআর হওয়ার আশঙ্কা থাকছে না। মুন্সীগঞ্জ বক্ষব্যাধি হাসপাতালে জুনিয়র কনসালট্যান্ট বক্ষব্যাধি বিশেষঞ্জ ডা. এএসএম ফখরুল আহসান জানান, এখনও বাংলাদেশে লাখে ২২৫ যক্ষ্মা রোগী রয়েছে। এদের অনেকেই এখনও অসচেতন। ভীতি আর অজ্ঞতায় তারা চিকিৎসা সেবা থেকেও বঞ্চিত হচ্ছে। একটু সচেতনতাই দিতে পারে যক্ষ্মা থেকে মুক্তি। যদি সঠিক সময়ে রোগ চিহ্নিত করে চিকিৎসা নেয়া যায় তাহলে যক্ষ্মা একেবারেই সেরে যায়। আর এ কারণেই যক্ষ্মা চিহ্নিতকরণে নানামুখী উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।

সরেজমিন ঘুরে এবং তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, চরাঞ্চল ও অনগ্রসর এলাকাগুলোতে দরিদ্র জনগোষ্ঠীর মধ্যে যক্ষ্মায় আক্রান্তের সংখ্যা বেশি। এদের আবার অনেকেই ধূমপায়ী। লৌহজং উপজেলার পদ্মারচরের পাইকারার চর গ্রামের রহমান ঘরামি (৪৬) ও জহিরউদ্দিন (৫০) যক্ষ্মায় আক্রান্ত হয়ে নিয়মিত ছয় মাস ওষুধ খেয়ে সুস্থ হয়েছেন। তারা দু’জনেই ধূমপায়ী ছিলেন। যক্ষ্মা রোগের জীবাণু পাওয়া গেছে পার্শ্ববর্তী বেজগাঁওচরের শাহিনুর আক্তার (১৮), ঝাউটিয়া চরের ফজল তালুকদার (৪৫), গোয়ালীরচরের জহিরুল ইসলাম (৫০), আব্দুস সালাম (৫৫), মোতালেব মিয়া (৪৫), সংগ্রামবীর চরের আ. হামিদ (৬০), দানেশ ফকির (৬০) ও শাইনহাটিরচরের মোজাফ্ফর মাদবরসহ (৫০) আরও অনেকের। তাদের ওষুধ খাওয়াচ্ছেন সরাসরি ব্র্যাকের সেবিকা। যারা সুস্থ হয়েছেন তাদের অনুভূতিও অন্যরকম।

সদর উপজেলার মিরেশ্বের বাস্তুহারা গ্রামের বিধবা মাবিয়া খাতুন (৭০) বলেন, ‘আমি অহন কত শান্তিতে আছি, তা বুঝাইতে পারুম না। যক্ষ্মা থেইক্যা যে এমুনভাবে মুক্তি পামু, আগে বুঝতে পারিনি। ছয় মাস ওষুধ খাওনের লেইগা কোথাও বেড়াইতে পর্যন্ত যাই নাই, আইজ এর ফল পাইতাছি।’ গত ৬ আগস্ট ওষুধের কোর্স শেষ করে কফ পরীক্ষায় ভাল রিপোর্ট এসেছে। তাকে ওষুধ খাইয়েছেন ব্র্যাকের সেবিকা রাহেলা আক্তার সঞ্চিতা। কোর্স সফলভাবে সম্পন্ন করায় রাহেলা ব্র্যাক থেকে ৫শ’ টাকা পেয়েছেন। রাহেলার তত্ত্বাবধানে এখনও ৫ রোগী ওষুধ খাচ্ছেন। অর্ধ শিক্ষিত গৃহবধূ রাহেলা ব্র্যাকের সেবিকা ট্রেনিং নিয়ে এখন যক্ষ্মা রোগের চিকিৎসা এবং চিহ্নিতকরণ কাজ ছাড়াও সমাজের অনেক সেবামূলক কাজ করছেন। এই সেবিকা বলেন, ‘এখন জীবনটা বেশ উপভোগ করতাছি। মানুষের উপকার কইরা ভাল লাগা পাইতাছি। কয় টাকা পাইলাম হেইডা বড় কথা না, অসহায় এক মায়েরে শান্তি দিতে পারছি, রোগ মুক্তির জন্য সহযোগিতা করতে পারছি, এর লেইগাই শান্তি।’

বিশেষজ্ঞরা জানান, বাতাসের মাধ্যমে যক্ষ্মা রোগের জীবাণু ছড়ায়। যক্ষ্মা রোগে আক্রান্ত ব্যক্তির হাঁচি বা কাশির মাধ্যমে রোগের জীবাণু বাতাসে গিয়ে মিশে রোগের সংক্রমণ ঘটায়। যক্ষ্মায় আক্রান্ত হলে তিন সপ্তাহ বা এর অধিক সময় ধরে কাশি হয়, কাশির সঙ্গে রক্ত যাওয়া বুকে ব্যথা অথবা শ্বাস নেয়ার সময় ও কাশির সময় ব্যথা হয়। অস্বাভাবিকভাবে ওজন হ্রাস, অবসাদ অনুভব করা, জ্বর, রাতে ঘাম হওয়া, কাঁপুনি ও ক্ষুধামন্দা দেখা দেয়। তবে যক্ষ্মা হলে ভয় পাওয়ার কিছু নেই। রোগীকে পরিবার-পরিজন থেকে আলাদা করার দরকার নেই। ¯েপশাল কোন খাওয়া-দাওয়ার দরকার নেই। নিয়মিত, পরিমিত এবং পূর্ণমাত্রায় ও পূর্ণমেয়াদে ওষুধ সেবন করলে অবশ্যই যক্ষ্মা স¤পূর্ণ ভাল হয়ে যায়।

জনকন্ঠ

Leave a Reply