মুন্সীগঞ্জে চলছে খাল-নালা দখল ও ভরাটের মহোৎসব

sreenagar852নদী মাত্রিক বাংলাদেশে নদী যেমন বিস্তৃত তেমনি খাল-নালা ও ছড়িয়ে আছে দেশের জেলা উপজেলা গুলোর সর্বত্র। আর এসব খাল-নালা বেশীর ভাগই সরকারি সম্পত্তি। এ সুযোগে কিছু ভূমি খেকো রাক্ষসচক্র বিভিন্ন পন্থা অবলম্বন করে খালের জায়গা দখল করে মাটি ভরাট করে তৈরি করছে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ বসতবাড়ি। আবার কোন কোন চক্র নদী-নালা ও খালের জায়গা দখল করে চালাচ্ছে প্লট ব্যাবসা। এ জাতীয় চিত্র দেশের সর্বত্র বিরাজমান। মুন্সীগঞ্জ জেলাতেও এর কমতি নেই।

৬টি উপজেলা নিয়ে গঠিত মুন্সীগঞ্জ জেলা। মুন্সীগঞ্জ সদর, গজারিয়া, টঙ্গিবাড়ী, সিরাজদিখান, লৌহজং ও শ্রীনগর প্রতিটি উপজেলাই নদী বেষ্টিত প্রকৃতির অপরুপ সাজে সজ্জিত। পদ্মা, মেঘনা, ধলেশ্বরী ও গোমতী এই চার নদীর বেষ্টনী দিয়ে আবৃত জেলার সীমানা । আর ছোট বড় হাজারো খাল-নালা দিয়ে এসব নদীর জল প্রবাহিত হতো জেলার সর্বত্র। মানুষের দৈনন্দিন কাজকর্ম সহ যাতায়াতের এক সময় অন্যতম মাধ্যম হিসেবে ব্যবহার করা হতো খাল গুলো।

sreenagar852জেলার তেমনি কিছু কিছু খাল ভূমি খেকো রাক্ষসদের থাবায় হাড়িয়ে ফেলছে তাদের রস-যৌবন। হাড়িয়ে ফেলছে তাদের গতিপথ ও গন্তব্য। সরজমিনে জেলার প্রতিটি উপজেলা ঘুড়ে দেখা যায় ঐতিহ্যবাহী খালগুলো নামে-বেনামে দখল করে পরিবতর্ন করে ফেলেছে তাদের রুপ। আর এভাবেই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের চোখের সামনেই ধীরে ধীরে দখল হয়ে যাচ্ছে সরকারি খালগুলো। যেন বলার কিছু নেই, দেখার কেউ নেই। অভিযোগ পাওয়া যায়, প্রভাবশালী সিন্ডিকেট থেকে শুরু করে সরকারি দলের নেতা-কর্মীরা এ সকল কর্মে জড়িত তবে সরকারি কর্মকর্তারও এতে পিছিয়ে নেই।

মুন্সীগঞ্জ শহরের পাশ দিয়ে প্রবাহমান ছিল “জুবলী” খাল যা বতর্মানে “জুবলী” রোড হয়েছে। শহর উন্নয়নের জন্য ১৯৮৯ সালে তৎকালীন প্রেসিডেন্ট হোসেইন মোহাম্মদ এরশাদ মুন্সীগঞ্জ শহরে সফরে এসে খাল ভরাট করে সড়ক তৈরির ঘোষণা দেন। এরপর জোট সরকার ক্ষমতায় এসে তা বাস্তবায়ন করে। ২০০৪ সানে শহর উন্নয়নের নামে আরেকটি (ইসলামপুর-মুন্সীরহাট) খালকে ভরাট করা হয় যা এখন অথর্ব হয়ে পরে আছে। আর তা দখল করে নিচ্ছে নামে-বেনামে মসজিদ-মাদ্রাসা, মার্কেট, স্কুল নির্মাণ করে।

khal456মুন্সীগঞ্জের অতিপ্রাচীন একটি হাট “মুন্সীরহাট” যেখানে এক সময় হাটের মতোই প্রতিদিন বাজার বসত। কারণ সদর উপজেলার পাঁচটি চরের হাজার হাজার মানুষ বাজার-হাটের জন্য এখানে আসতো। আর ওই এলাকার মানুষদের একমাত্র যোগাযোগের বাহন ছিলো নৌকা। কালিদাস সাগর নামের খালটির ধলেশ্বরী থেকে শুরু মুন্সীরহাট হয়ে বাংলাবাজারের পদ্মায় গিয়ে শেষ হয়েছে।

তেমনি টঙ্গীবাড়ী উপজেলার মহেশপুর থেকে মাকহাটি রজতরেখা খাল, মাকহাটি থেকে ধামারন কাজলরেখা ও মাকহাটি থেকে দিঘীপাড় হয়ে পদ্মা নদীতে মিলিত হয়েছে ব্রহ্মপুত্রনদ নামের খালটি। আর এসব খাল গুলো বিভিন্ন ভাবে ভরাট করে, খালের জায়গা দখল করে যাতায়াতের পথ সরু করে বন্ধ করে দিচ্ছে বলে অভিযোগ করেছে এলাকাবাসী।

এদিকে, উপজেলার বালিগাঁও বাজারের পাশে তালতলা-গৌরগঞ্জ-ডহরি খালের একটি বিশাল অংশ বিআইডব্লিউটিএ’র ২৮৬ দাগের জায়গা লিজের নামে দখল করে নিয়ে ভরাট করছে স্থানীয় আওয়ামীলীগের প্রভাবশালী এক সিন্ডিকেট।

এ বিষয়ে বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান ড. সামসুদ্দোহা চৌধুরী খন্দকার বলেন, খালের পাড় কিভাবে লিজ দেয়া হয়েছে, কে দিয়েছে, তা ক্ষতিয়ে দেখা হচ্ছে। আমরা খাল খনন করি, ভরাট করি না। এ বিষয়ে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

স্থানীয়রা জানান, খালের পাড় দখল হয়ে গেলে স্থানীয় ব্যবসায়ীদের ব্যবসায়ীক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার আশঙ্কাতো রয়েছেই। কারণ আড়িয়ল বাজারের ক্রেতারা বেশীরভাগ নৌপথে যাতায়াত করে এবং যেখানে ভরাটকরা হচ্ছে সেখানেই নৌঘাটি।

Aldi-Khal584এদিকে, শ্রীনগর উপজেলার একাধিক খাল ভরাট করে ফেলছে ভুমিখেকো সিন্ডিকেট। শ্রীনগর-ষোলোঘর রাস্তার দেউলভোগ এলাকার খালের উপর নির্মিত প্রায় চল্লিশ ফুট দীর্ঘ বেইলী ব্রিজের মুখটি ভড়াট করে ফেলছে স্থানীয় প্রভাবশালী সিন্ডিকেট। এরফলে ঢাকার চকবাজার নামে পরিচিত দেউলভোগ, হরপাড়া, ভূইছিদ্র ও ষোলঘর এলাকার প্রায় শতাধিক একর ধানি জমি স্থায়ী ভাবে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হবে। ফলে ঐ জমি থেকে প্রতিবছর প্রায় সাত থেকে আট হাজার মণ বোরো ধান উৎপাদন থেকে বঞ্চিত হচ্ছে স্থানীয় কৃষকরা। চরম বিপাকে পরবে তারা।

স্থানীয় সিন্ডিকেটরা এতটাই প্রভাবশালী যে, উপজেলা প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে বালু ভড়াট করার তিনদিন পর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দুজন শ্রমিককে আটক করে থানা হাজতে আটকে রাখে। পরে মুচলেকার শর্তে ছাড়িয়ে নিয়ে আসে ওই প্রভাবশালী ভুমিখেকোরা।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহানারা বেগম জানান, পানি নিষ্কাশনের নালা তৈরি করে দেওয়ার শর্তে আটককৃত শ্রমিকদেরকে জমির মালিক ছাড়িয়ে নিয়ে যায়। বালু সরিয়ে না নিলে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এতো কিছুর পরও থেমে নেই তারা। বিভিন্ন সময় বিভিন্ন নামে বিভিন্ন রুপে আসে ভুমিখেকোরা। আবার থেমে থেমে চলে তাদের খাল-নদী-নালা দখল ও ভরাটের কাজ।

khal585এমনি ভাবেই দখল হয়ে যাচ্ছে গজারিয়া উপজেলার বেশ কিছু চলমান খাল। উপজেলার ভবেরচর বাস ন্ট্যান্ড থেকে বাজার হয়ে কালিতলা হয়ে মেঘনার সাথে সংযুক্ত খালটি বিভিন্ন জায়গায় বাঁধ দিয়ে বালু ভরাট করছে। তবে বলার যেন কেউই নেই। উপজেলার ইমামপুর ইউনিয়নের দৌলতপুর খাল, বাউশিয়া ইউনিয়নের বড়কান্দি খাল, তেতুইতলা খালসহ বিভিন্ন খাল প্রভাবশালী সিন্ডিকেট ছাড়াও মোনায়েম কোম্পানি, আনোয়ার সিমেন্ট কোঃ মতো বিভিন্ন কোম্পানি দখল করে নিয়েছে। মুছে দিয়েছে খালের চিহ্নটুকু।

মুন্সীগঞ্জ সিরাজদিখান উপজেলার মধ্যপাড়া ইউনিয়নের পূর্ব-কাকালদি এলাকার “কাকলদি খাল” ও ইছাপুরা ইউনিয়নের পূর্ব শিয়ালদি এলাকার “শিয়ালদি খাল” সহ লৌহজং উপজেলার কনকশার এলাকার “কনকশার খাল” উপজেলার বেশ কয়েকটি খাল এভাবেই দখল করে নিয়েছে প্রভাবশালী মহল থেকে শুরু করে বিভিন্ন সিন্ডিকেট।

এসব এলাকার গ্রামবাসী ও ভুক্তভোগীরা জানান, আগে দেখতাম খাল খনন করা হতো, আর এখন খাল ভরাট করা হয়। সব পাল্টাইয়া গেছে। রাজনীতি করে এরা তো এখন খাল ভরাটের মহোৎসবে মেতেছে। এ উৎসবে সিন্ডিকেট, গ্রুপের অভাব নেই। এক সময় দেখা যাবে খাল-নালা-নদী বলে কিছুই নেই সব মরুভূমির হয়ে গেছে। এমন ঘটনা সরকারি কর্মকর্তাদের চোখের সামনে প্রতিনিয়তই ঘটছে। এ যেন দেখার কেউ নেই।

এ বিষয়ে মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসক সাইফুল হাসান বাদল জানান, খাল ভরাটসহ ফসলি জমি ভরাটের বিষয়ে আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। খবর পাওয়া মাত্র ঘটনা স্থলে গিয়ে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহন করা হচ্ছে। বিভিন্ন সময় মেজিস্ট্রেট পাঠিয়ে মোবাই কোর্টের মাধ্যমে জরিমানাও করা হয়েছে অনেকেই।

শহরের অবস্থিত মুন্সীরহাট খাল ও কাটাখালি খাল দুটি এখনো বহমান রয়েছে । যা বর্তমানে অনেক জায়গায়ই ভরে ফেলা হয়েছে এবং হচ্ছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে জেলা প্রশাসক বলেন, এই খাল দখলের বিষয়টি আমার জানা নেই। খোঁজ নিয়ে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এটিএন টাইমস

Comments are closed.