ঈদে মাওয়ায় ভিন্ন চিত্র

mawa41ঈদ শেষে কর্মস্থলে ফেরা মানুষের চাপ এখনও দেখা যায়নি মাওয়ায়। তবে শনি-রবিবার নাগাদ এই চাপ প্রবল হবে। এবার ঈদে মাওয়ার চিত্র ছিল ভিন্ন। কোন প্রকার যাত্রী দুর্ভোগ ছাড়াই লোকজন বাড়ি ফিরেছেন নিরাপদে। রাতের বেলায় নিরাপত্তার কারণে লঞ্চ চলাচল বন্ধ থাকলেও যাত্রীরা পার হয়েছেন ফেরিতে।
এতে সময় একটু বেশি লাগলেও কোন ঝুঁকিই ছিল না। অপরদিকে ঘাটে ছিল না কোন প্রকার যানজট। অধিকাংশ সময় ফেরিগুলো গাড়ির জন্য অপেক্ষা করেছে। অথচ একসময়ে ঘরমুখো বহু মানুষকে ঈদের নামাজ পড়তে হয়েছে মাওয়ায়।

আগে থেকে ছুটি থাকায় এবং সুষ্ঠু পরিকল্পনার কারণে এবার মাওয়ায় ঈদে ঘরমুখো মানুষের বিড়ম্বনা তেমন একটা ছিল না। ঈদের আগের দিন মাওয়া অনেকটা ছিল ফাঁকা, যানবাহন আসছে আর কিছু সময়ের মধ্যেই ফেরিতে উঠে যাচ্ছে। মাওয়ায় এখন পারাপারের অপেক্ষায় তেমন কোন যানবাহনই ছিল না। তবে মাওয়া থেকে ১০ কিলোমিটার দূরে মহাসড়কের শ্রীনগর উপজেলার ছনবাড়ি থেকে পারাপারের অপেক্ষায় লাইনে দাঁড়িয়ে পণ্যবাহী দু’শতাধিক ট্রাক। মাওয়া বিআইডব্লউটিসির সহকারী ম্যানেজার শেখর চন্দ্র রায় জানান, ঘরমুখো মানুষ এবার অপেক্ষাকৃত সাচ্ছন্দে পারাপার হয়েছে। বিড়ম্বনাও হয়েছে কম।

মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোঃ সাইফুল হাসান বাদল জানান, সুষ্ঠু পরিকল্পনা এবং টিমওয়ার্ক যথাযথভাবে হওয়ার কারণেই ঘরমুখো মানুষকে বিড়ম্বনাহীন পারাপার করা সম্ভব হয়েছে। এছাড়া কর্মস্থলে ফেরা মানুষও যাতে যথাযথভাবে গন্তব্যে পৌঁছতে পারে সেদিকে সতর্ক দৃষ্টি রাখা হচ্ছে।

জনকন্ঠ

Comments are closed.