কলাবাগানের সেই ‘ডাকাত’ জয়পুরহাটের মূলহোতা

bracb2ব্র্যাক ব্যাংকের ৫৬ লাখ টাকা উদ্ধার, আটক ৭
২০০২ সালে রাজধানীর ধানমন্ডির ব্র্যাক ব্যাংক কলাবাগান শাখায় হানা দেয় একদল ডাকাত। ওই সময় ডাকাত দল ভল্ট ভাঙতে না পারলেও ব্যাংক থেকে লুট করে নিয়ে যায় ২৫০ ভরি স্বর্ণ। ওই সময় রাজা মিয়াসহ ১৮/১৯ জনকে আটক করা হয়। পরে তারা দেড় বছর কারাভোগ করে।

২০১৪ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর রাতে আবারও ব্র্যাক ব্যাংকে হানা দেয় একদল ডাকাত। জয়পুরহাট ব্র্যাক ব্যাংক শাখার ওই ঘটনায় নেতৃত্ব দেয় কলাবাগান ব্র্যাক ব্যাংক শাখায় ডাকাতির ঘটনায় জড়িত রাজা মিয়া নিজে। কিন্তু এবার তারা ভল্ট ভাঙতে সক্ষম হয় এবং এক কোটি ৯৬ লাখ টাকা লুট করে নিয়ে যায়।

র‌্যাব সদর দপ্তরে বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৪টায় আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক মুফতি মাহমুদ খান।
bracb1
জয়পুরহাটের ব্র্যাক ব্যাংক শাখা থেকে এক কোটি ৯৬ লাখ টাকা ডাকাতির ঘটনায় মূল পরিকল্পনাকারী রাজা মিয়া ও শামীমসহ সাতজনকে আটক করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। তাদের কাছ থেকে ডাকাতির ৫৬ লাখ টাকাও উদ্ধার করা হয়।

আটকরা হলেন- রাজা মিয়া (৪৫), বাদল মল্লিক ওরফে বাবলা (৪৯), মঞ্জুরুল হাছান শামীম (৩২), অনুপ চন্দ্র পন্ডিত (২১), প্লাবন চন্দ্র পন্ডিত (২৫), স্বপন দেবনাথ (৪০) ও এম কে কুদ্দসুর রহমান বুলু (৫২)। ডাকাতির ঘটনায় ইসলাম ও তাজ আহমেদ এখনও পলাতক আছে।

র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক মুফতি মাহমুদ খান জানান, শামীম ও রাজা মিয়া ব্যাংকের ভল্ট খোলায় পারদর্শী। দীর্ঘদিন ধরে তারা এ পেশার সঙ্গে জড়িত। আটক ডাকাত দলের সদস্যরা এক কোটি ৬৩ লাখ টাকা লুট করেছিল বলে জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছে।

তবে ব্যাংক কর্তৃপক্ষের দাবি, তাদের এক কোটি ৯৬ লাখ টাকা খোয়া গেছে। র‌্যাব মোট ৫৬ লাখ টাকা উদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছে।
bracb2
উল্লেখ্য, ২৬ সেপ্টেম্বর রাতের কোনো এক সময় জয়পুরহাট শহরের প্রধান সড়কের শাজাহান প্লাজার দ্বিতীয় তলায় অবস্থিত বেসরকারি ব্র্যাক ব্যাংকের প্রধান শাখায় ডাকাতির ঘটনা ঘটে। ডাকাতরা সুকৌশলে ওই ব্যাংকের পেছনের পূর্ব দিকের দেয়াল কেটে পরিকল্পিতভাবে ভেতরে ঢুকে বিদ্যুৎ ও সিকিউরিটি লাইনের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে একে একে তিনটি দরজা ভেঙে ভল্টের মধ্যে কিছু খুচরা নোট রেখে এক কোটি ৯৬ লাখ টাকা নিয়ে পালিয়ে যায়।

ডাকাতির ঘটনাটি সম্পূর্ণ পরিকল্পিত দাবি করে মুফতি মাহমুদ খান জানান, র‌্যাবের গোয়েন্দা দল অনুসন্ধান চালিয়ে জানতে পারে, জয়পুরহাটের ওই ডাকাতির মূল হোতা এবং ভল্ট অনলক স্পেশালিস্ট রাজা মিয়া মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর এলাকায় অবস্থান করছে। র‌্যাব-১১ এর একটি দল ৮ অক্টোবর রাত সাড়ে ১০টায় শ্রীনগর উপজেলার হাশারপাড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করে। পরে তার তথ্যের ভিত্তিতে বিভিন্ন স্থান থেকে বাকি ছয়জনকে আটক করা হয়।

তিনি আরও জানান, রাজা মিয়া ২০০২ সালে চট্টগ্রামের শুক্কুর আলীর নেতৃত্বে রাজধানীর ধানমন্ডির ব্র্যাক ব্যাংক, কলাবাগান শাখায় শাহেদ আলম, হানিফ ও অন্যান্য ২০/২১ জনের সহায়তায় ২৫০ ভরি স্বর্ণালংকার লুটের সঙ্গে জড়িত। ওই সময় রাজা মিয়া ব্র্যাক ব্যাংক কলাবাগান শাখার ভল্ট ভাঙতে না পেরে ড্রয়ারে রক্ষিত ২৫০ ভরি স্বর্ণ লুট করে। স্বর্ণ লুটের দু’দিন পর রাজা মিয়াসহ ১৮/১৯ জনকে আটক করা হয়। পরে তারা দেড় বছর কারাভোগ করে।

মুফতি মাহমুদ খান জানান, কারাগারে থাকা অবস্থায় শামীমের সঙ্গে রাজা মিয়ার পরিচয় হয়। জেল থেকে জামিনে ছাড়া পাওয়ার পর ২০১২ সালের দিকে শামীমের সঙ্গে রাজা মিয়ার ফের দেখা হয়। ঈদুল আজহার ২০ থেকে ২৫ দিন আগে রাজা মিয়ার সঙ্গে শামীমের ফোনে যোগাযোগ হয়। ব্যাংক ডাকাতির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট তাজ, নওশের, ইসলাম, ইকবাল, কুদ্দুসুর রহমান বুলু ও স্বপনের সঙ্গে জয়পুরহাটের ভাড়া বাসায় তাদের পরিচয় হয়।

তিনি আরও জানান, ব্যাংক ডাকাতির পরিকল্পনা থাকলেও টানা হরতালের কারণে তা বাস্তবায়নের সুযোগ হয়নি তাদের। শামীম, রাজা মিয়া, নওশের, ইসলাম ও তাজ সাধারণত স্বর্ণালংকারের দোকান/ব্যাংক যেখানে নিরাপত্তা কিছুটা দুর্বল সে ধরনের স্থান খুঁজে বের করে ডাকাতির টার্গেট নির্ধারণ করে। এরই ধারাবাহিকতায় ডাকাতির মূল পরিকল্পনাকারী শামীম ও রাজা মিয়া টার্গেট হিসেবে জয়পুরহাটের ব্র্যাক ব্যাংকের শাখা নির্বাচন করে। ডাকাতির পরিকল্পনার অংশ হিসেবে ১২ সেপ্টেম্বর ব্যাংক সংলগ্ন একটি বাসা তারা ভাড়া নেয়।

ডাকাতির প্রায় এক সপ্তাহ আগে তারা শাবল দিয়ে দেয়াল কাটার কাজ শুরু করে। ছয় দিনের মধ্যে এ কাজ তারা শেষ করে। দেয়াল কাটার পর ব্র্যাক ব্যাংকে প্রবেশের মতো সুড়ঙ্গ তৈরি হয়। ২৬ সেপ্টেম্বর রাতে তাজ মাহমুদ ও নওশের ব্যাংকে প্রবেশ করে সিসি ক্যামেরার সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে। এরপর রাজা মিয়া ও ইসলাম আনুষঙ্গিক যন্ত্রপাতি নিয়ে ভল্টে প্রবেশ করে এবং ভল্টের তালা ভেঙ্গে টাকা লুট করে ভাড়া বাসায় নিয়ে যায়। সেখানে টাকা ভাগাভাগি করা হয়।

মুফতি মাহমুদ খান জানান, জিজ্ঞাসাবাদে রাজা জানায়, যে কোনো ধরনের ভল্ট/তালা সে ১০/১৫ মিনিটের মধ্যে ভাঙতে পারে। লুট করা টাকার মধ্যে সে ৩১ লাখ, শামীম ৩৩ লাখ, ইসলাম ১২ লাখ ৫০ হাজার, তাজ মাহমুদ আট লাখ, এম কে কুদ্দুসুর রহমান বুলু ও ইকবাল ৩৩ লাখ, স্বপন ১৮ লাখ, নওশের ১৪ লাখ ও বাদল নয় লাখ টাকা ভাগ পায়।

ডাকাতির ঘটনার মূল পরিকল্পনাকারী শামীম রাজধানীর বাড্ডা থানায় ২০০৫ সালে একটু চুরির মামলায় তিন মাস জেল খাটে। এ ছাড়া চট্টগ্রাম বন্দরের গোডাউন লুটের ঘটনায় জেলও খাটে সে।

দ্য রিপোর্ট

Comments are closed.