ইলিশ রক্ষায় বাধা : জেলেদের ‘চর’

hilsaডিমওয়ালা ইলিশ রক্ষায় চলছে অভিযান। এর পরও প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলায় মেঘনা নদীতে ইলিশ নিধন চলছে। সরকারি কার্যালয়সহ বিভিন্ন স্থানে থাকা চরের (সোর্স) মাধ্যমে অভিযানের বিষয়ে জেলেরা আগেই খবর পাওয়ায় এ সমস্যা দেখা দিয়েছে।

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, ৫ থেকে ১৫ অক্টোবর পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন স্থানের মতো মতলব উত্তর উপজেলার ষাটনল থেকে হাইমচর উপজেলার চরভৈরবী পর্যন্ত মেঘনার ৬০ কিলোমিটারে মাছ ধরা নিষিদ্ধ। ইলিশ রক্ষায় সরকার প্রতিবছর এ সময় নিষেধাজ্ঞা জারি করে। কিন্তু অনেক জেলে এ নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে মাছ ধরেন।
মতলব উত্তর উপজেলার দশানী, ষাটনল, এখলাসপুর, মোহনপুর, আমিরাবাদসহ মেঘনার কয়েকটি স্থানে গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে গিয়ে দেখা যায়, একাধিক জেলে নদীতে জাল ফেলে মাছ ধরছেন। জাল পাতার প্রস্তুতি নিচ্ছেন কেউ কেউ। মুন্সিগঞ্জ এলাকা থেকে আসা সিদ্দিক মিজি বলেন, ‘মাছ না ধরলে পেডে খাওন জোডে না। তাই চুরি কইরা জাল পাতি। আইন মানলে তো আমাগো পেট ভরব না।’

মতলব দক্ষিণ উপজেলার কলাদী এলাকার বাসিন্দা দেলোয়ার হোসেন বলেন, ‘এখন ইলিশ কিনতে বাজারে যাওয়া লাগে না। জেলেরাই মাছ বাড়িতে নিয়ে আসেন। গতকাল সকালে ৬০০ টাকায় আটটি ইলিশ কিনেছি।’

মতলব উত্তর উপজেলার মৎস্য কর্মকর্তা জহিরুল ইসলাম বলেন, ‘আন্তরিক চেষ্টা সত্ত্বেও ইলিশ ধরা বন্ধ হচ্ছে না। প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে জেলেরা মাছ ধরছেই। সোর্সের মাধ্যমে অভিযানের খবর আগে জেনে যাওয়ায় অনেক জেলেকে ধরা সম্ভব হয় না। প্রত্যেক জেলেরই একজন করে সোর্স থাকে। অভিযান পুরোপুরি সফল না হওয়ার জন্য দায়ী জেলেদের ওই সোর্স।’

মতলব উত্তর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মফিজুল ইসলাম বলেন, জেলেদের চরেরা আগে থেকেই অভিযান চালানোর খবর দিয়ে দেওয়ায় ইলিশ নিধন বন্ধ করা সম্ভব হচ্ছে না।

চাঁদপুর জেলা মৎস্য কর্মকর্তা সফিকুর রহমান জানান, প্রশাসন ও মৎস্য বিভাগের তৎপরতা সত্ত্বেও জেলেরা মা ইলিশ শিকার করছেন। গতকাল পর্যন্ত ওই এলাকায় প্রশাসন ৩৭টি অভিযান চালিয়েছে। আটক করা হয়েছে ১ দশমকি ৫০ টন ইলিশ। প্রতিদিনই অভিযান চালানো হচ্ছে।

প্রথম আলো

Comments are closed.