জাপান-বাংলাদেশ সিভিল এভিয়েশন চুক্তি নবায়ন

moniJapanBimanবিমান রুট চালুর সম্ভাবনা : উৎফুল্ল প্রবাসীরা
রাহমান মনি: জাতীয় পতাকাবাহী বিমান বাংলাদেশ এয়ার লাইন্স এর যাত্রীবাহী বিমানের সর্বশেষ ফ্লাইটটি জাপানের মাটিতে অবতরণ করেছিল ২৭ অক্টোবর ২০০৬ (শুক্রবার) এবং একই দিন যাত্রী নিয়ে জাপান ত্যাগ করে। সেই যে যাওয়া আর ফিরে আসা হয়ে ওঠেনি। মাঝখানে ৮টি বছর। এই আটটি বছরে জাপান প্রবাসীদের প্রতীক্ষার পালা শেষ হতে চায়নি।

এটাকে প্রতীক্ষা বলার অন্যতম প্রধান কারণ, বন্ধ হবার আগে বিমান কর্তৃপক্ষ আনুষ্ঠানিক কোনো ঘোষণা দেয়নি। প্রবাসীরা প্রথম জানতে পেরেছিল স্থানীয় ট্রাভেলার এজেন্সিগুলো থেকে। ট্রাভেলার এজেন্সিগুলো জানিয়েছিল, বিমান ঢাকা-ব্যাংকক-নারিতা রুটটির টিকেট বুকিং বন্ধ করে দিয়েছে। সেই কারণেই প্রবাসীদের প্রতীক্ষার পালা। কবে আবার চালু হবে? অবশ্য মিডিয়ার কল্যাণে জানা গেছে যে, অব্যাহত লোকসানের কারণে রুট বন্ধ করে দেয়া হয়েছিল, একই যুক্তিতে বন্ধ করা হয়েছিল ঢাকা-নিউইয়র্ক এবং ঢাকা-ব্রাসেলস এর রুট।

সেই থেকে জাপান প্রবাসীরা রুটটি পুনরায় চালু করার জন্য বিভিন্নভাবে বিভিন্ন মহলে অনুরোধ করে আসছে। এই নিয়ে বিভিন্ন মিডিয়াতেও অনেক লেখালেখি হয়েছে। সাপ্তাহিক-এও একাধিকবার লেখা হয়েছে। জাপানে যখনি বাংলাদেশের সরকারের প্রধানমন্ত্রীগণ কিংবা সংশ্লিষ্ট রথী মহারথীদের আগমন ঘটেছে জাপান প্রবাসীরা তাকে অনুরোধ জানিয়েছে উদ্যোগ নেয়ার জন্য। অনেকে কথাও দিয়েছিলেন কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি। সুনীলের ভাষায় বলতে হয় কেউ কথা রাখেননি।
moniJapanBiman
বর্তমান রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন জাপানে নিয়োগ পাবার পর ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১২ দূতাবাস মিলনায়তনে প্রবাসীদের পক্ষ থেকে তাকে বরণ করে নেয়া হয়। সেখানেও প্রবাসীদের পক্ষ থেকে রাষ্ট্রদূত মহোদয়কে বিমানের রুটটি পুনরায় চালু করার উদ্যোগ নেয়ার জন্য অনুরোধ জানানো হয়। রাষ্ট্রদূত প্রবাসীদের অনুরোধে সাড়া দিয়ে উদ্যোগ নেয়ার আশ্বাস দেন। প্রধানমন্ত্রীর সফরের সময় তিনি তার নজরে আনেন।

২১ সেপ্টেম্বর ২০১৪ জাইকা সেন্টারে আয়োজিত একটি আয়োজনে প্রধান অতিথির শুভেচ্ছা বক্তব্যে রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন অচিরেই বিমানের রুটটি চালু করার জন্য তার উদ্যোগের কথা জানান। দিনে বিশ্বের পূর্বাকাশে আলোর ঝলকানি দেখতে পায় প্রবাসীরা। অবশেষে বিধাতা তাদের প্রতি সদয় হয়েছে এবং স্বপ্ন পূরণ হতে চলেছে বলে রাষ্ট্রদূতকে তাৎক্ষণিক ধন্যবাদ জানান উপস্থিত প্রবাসীরা।

২২ সেপ্টেম্বর বিমান ও পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেননের নেতৃত্বে একটি উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন প্রতিনিধি দল জাপান সফর শুরু করে। এই প্রতিনিধি দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন বাংলাদেশ সিভিল এভিয়েশনের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মাহমুদ হোসাইন।

দীর্ঘ ২১ বছরের পর বাংলাদেশ সিভিল এভিয়েশন এবং জাপান আন্তর্জাতিক এভিয়েশনের মধ্যে করা চুক্তিটি নবায়ন করা হয়। ১৯৯৩ সালে সর্বশেষ চুক্তি অনুযায়ী ঢাকা-নারিতা রুটে সপ্তাহে একটি ফ্লাইট চলাচলের অনুমতি ছিল। পরে যা নারিতা হয়ে নাগোয়া পর্যন্ত বৃদ্ধি পায়। কিন্তু ৩ মাস পরেই তা বন্ধ করা হয়। নবায়নকৃত চুক্তি অনুযায়ী ঢাকা-ব্যাংকক-নারিতা কিংবা ঢাকা-ব্যাংকক-হানেদা বা উভয় রুটে সপ্তাহে দুটি ফ্লাইট চলাচলের অনুমোদন দেয়া হয়। পারফর্মেন্স এর ওপর নির্ভর করে পরবর্তীতে ফ্লাইট সংখ্যা বৃদ্ধি করে সপ্তাহে সর্বোচ্চ চারটি পর্যন্ত বৃদ্ধির কথা উল্লেখ করা হয়। অথবা স্থানীয় কোনো এয়ারলাইন্স এর সঙ্গে বাণিজ্যিক সমঝোতার ভিত্তিতে ফ্লাইট চালুর কথাও উল্লেখ করা হয়।

বাংলাদেশ দলের পক্ষে সিভিল এভিয়েশন অথরিটি অফ বাংলাদেশ এর চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মাহমুদ হোসাইন এবং জাপানের পক্ষে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক এবং আন্তর্জাতিক এভিয়েশন এর এসিস্টেন্ট ভাইস মিনিস্টার হিরোশি ওৎসুকা চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন। ২৫ সেপ্টেম্বর ’১৪ চুক্তি সম্পন্ন হয়।

২৫ সেপ্টেম্বর ’১৪ চুক্তি হবার পর একই দিন সন্ধ্যায় প্রতিনিধি দল দূতাবাস মিলনায়তনে নেতৃস্থানীয় প্রবাসীদের উপস্থিতিতে চুক্তির বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন। মূলত মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন একক বক্তব্যে এর বিশদ বর্ণনা দেন। পরে তিনি প্রবাসীদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন। অভিজ্ঞতাসম্পন্ন প্রবাসীরা ইতিপূর্বে অলাভজনক হওয়ার ঘোষণায় তাদের অভিজ্ঞতার কথা মন্ত্রীর সামনে তুলে ধরেন।

প্রবাসীরা বলেন, এই রুটে বিমান অলাভজনক হওয়ার কথা নয়। আর যদি হয়েই থাকে তার জন্য ম্যানেজমেন্টই দায়ী। সপ্তাহে একটি মাত্র ফ্লাইট-এর রুটে কান্ট্রি ম্যানেজার, এয়ার পোর্ট ম্যানেজার এবং ক্যাশিয়ারসহ মোট ছয়জন কর্মচারী রাখার কোনো যৌক্তিকতা নেই। মাত্র একজন ম্যানেজার নিয়োগই যথেষ্ট এবং তাকে সহযোগিতার জন্য আরও ২-১ জন স্থানীয়ভাবে নিয়োগ দেয়া যেতে পারে। প্রবাসীরা দাবি করেন কোনোমতেই যেন কোনো বাংলাদেশিকে স্থানীয় এজেন্ট নিয়োগ না দেয়া হয়। স্থানীয় এজেন্ট নিয়োগে পূর্বে তিক্ত অভিজ্ঞতার কথা তারা তুলে ধরেন।

২৬ সেপ্টেম্বর দূতাবাসে রাষ্ট্রদূত মহোদয়ের অফিস কক্ষে এই প্রতিবেদকের সঙ্গে চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মাহমুদ হোসাইন এক সংক্ষিপ্ত সাক্ষাৎকারে জানান, দীর্ঘ ২১ বছর পর আমরা চুক্তিটি নবায়ন করতে পেরেছি। মূল কাজ শেষ হয়েছে। এখনও কিছু কিছু গ্রাউন্ড ওয়ার্ক বাকি রয়েছে। আশা করি আলোচনা সাপেক্ষে এবং সমঝোতার ভিত্তিতে বাকি কাজগুলো ভালোভাবেই সম্পন্ন হবে।

চেয়ারম্যান জানান, জাপান সিভিল এভিয়েশন খুব আন্তরিকতার সঙ্গে আমাদের সব ধরনের পূর্ণ সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছে। প্রথম ২ বছর ল্যান্ডিং চার্জ ৫০% ছাড় দেয়া হবে। সিডিউল অনুযায়ী এবং নিয়মিত ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে পারলে ভবিষ্যতে ফ্লাইট সংখ্যা বৃদ্ধিরও আশ্বাস পেয়েছি। সবচেয়ে বড় কথা চুক্তি অনুযায়ী এই রুটে ৩৫% অতিরিক্ত প্যাসেঞ্জার চার্জ এবং ঢাকা-ব্যাংকক হয়ে নারিতা অথবা হানেদা যেকোনো রুট অথবা উভয় রুট আমরা ব্যবহার করতে পারব।

এয়ার ভাইস মার্শাল মাহমুদ বলেন, আমরা আমাদের দায়িত্ব পালন করার চেষ্টা করছি এবং প্রবাসীদের সহযোগিতা পেলে অব্যাহত সেবা বজায় রাখা সম্ভব হবে। তিনি রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেনের প্রতি কৃজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, তারই ঐকান্তিক এবং নিরলস প্রচেষ্টার জন্য আমরা চুক্তি নবায়নে সম্ভব হয়েছি।

এই প্রতিবেদক মার্শাল মাহমুদকে জানান, বিমান আসলে অলাভজনক প্রতিষ্ঠান নয়। এটাকে অলাভজনক প্রতিষ্ঠান করে রাখা হয়েছে। সব সময় সব সরকারই লুটপাটে শকুনের মতো ঝাঁপিয়ে পড়ে। বিমান কেনার নামে, বিক্রির নামে, মেরামত এবং রক্ষণাবেক্ষণের নামে লুটপাট করা হয়। বিলম্বে ফ্লাইট চলাচলের জন্য স্থানীয় অথরিটিকে অতিরিক্ত চার্জ দিতে হয়। এদেরকে পাঁচ তারকাসমৃদ্ধ হোটেলে রাখতে হয়। এতে করে সংশ্লিষ্ট সকলের মেদ বাড়ে এবং স্থূল হন আর বিমান স্ফীত হয় এবং রুটের পরিমাণ কমে আসে। ছোট হয়ে আসছে পৃথিবীর পরিবর্তে ছোট হয়ে আসছে বিমানের পথ ধ্রুব সত্যে পরিণত হয়।

চেয়ারম্যানের কাছে এই প্রতিবেদক প্রশ্ন রেখে জানতে চান, বিমান যদি লোকসানই দিবে, তবে কর্মকর্তা, কর্মচারী, পাইলট, ট্রেড ইউনিয়নসহ সবাই লাভবান হয় কী করে? সবার বাড়ি গাড়ি আসে কোথা থেকে?

সরাসরি রুটে বিমান চালু হলে প্রবাসীদের উৎফুল্লের প্রধান কারণ হলো, দেশ থেকে পরিবার পরিজন, বৃদ্ধ বাবা-মাকে আনার জন্য ট্রানজিট নামের ঝামেলার বিমান বদল না করা। অসুস্থ বয়স্ক এবং শিশুরা ট্রানজিট ঝামেলায় ভুগেন বেশি। অনেক সময় এরা একা চলতে পারেন না। সঙ্গে যাতায়াত করতে হয়। এ জন্য অতিরিক্ত অর্থ, সময় এবং শ্রম খরচ করতে হয়। সরাসরি ফ্লাইট থাকলে এসব ঝামেলা অনেকটাই দূর হয়।

তবে যতোই সরাসরি ফ্লাইটে বা দেশীয় পতাকা বহন করুক না কেন, শুধু দেশপ্রেমের কারণে সেই বিমান ভ্রমণ করবেন না প্রবাসীরা। আর শুধু প্রবাসীদের ওপর নির্ভর করে বিমানও টিকে থাকবে না। থাকতে পারেও না। টিকে থাকতে হলে উন্নত সেবার পাশাপাশি ভাড়া নির্ধারণের দিকেও কর্তৃপক্ষের নজর দিতে হবে। কম্পিটিশনের এই যুগে যে যত বেশি এই দুটোর দিকে নজর দিতে পারবে সে-ই টিকে থাকবে, এটাই স্বাভাবিক।

rahmanmoni@gmial.com

সাপ্তাহিক

Comments are closed.